ঢাকা, মঙ্গলবার, ১১ কার্তিক ১৪২৭, ২৭ অক্টোবর ২০২০, ০৯ রবিউল আউয়াল ১৪৪২

কবিতা

বৃষ্টিতে জল নেই জেনে | অনন্যা মণ্ডল

বৃষ্টিতে জল নেই জেনে বৃষ্টিতে জল নেই জেনেই-তোমার কচুপাতায় পারদ। একদিন দেখ- প্রাসাদের মেঘগুলো কেমন ভষ্ম হয়! দিনদিন বনসাই মানুষ ও

বৃষ্টিবিঘ্নতাই আমার অবসর | ইমরুল ইউসুফ

বৃষ্টিবিঘ্নতাই আমার অবসর একাকীত্ব অবিরাম ঘুরে চলা লাটিম প্রশান্তির বাতাসে উড়ে হয় নিরুদ্দেশ বৃষ্টি উপাখ্যানে একদল নর্তকী নেচে

ইন্টার্ন হোস্টেল | সাজ্জাদ সাঈফ

আমার দোতলার ঘরটা থেকে দেখা যায় মর্গকুঠুরি, একটা শিমুল গাছে প্রতি রাতে পেঁচা পারিষদ জড়ো হয় একসাথে  যদি মানুষের যাতায়াতহীন রাতের

দু’টি কবিতা | রিঙকু অনিমিখ

উপহার তুমি চলে গেলেও এ ঘরে আলো জ্বলে আছে, কী অদ্ভুত এই আলোর ব্যাপারটা!- দেখো- রাত নামলে সবচেয়ে বেশি জ্বলে ওঠে সে। আমার বাকি জীবনের

ছাই | অনামিকা তাবাস্‌সুম

ছাই ছাদের উপরিভাগে পায়রা ওড়া বিকেল কল্পডানা খুঁজছে শুভ রোদ, শুভ মেঘ টবের দীর্ঘশ্বাসে ফ্যাকাসে হয়ে যাচ্ছে ফুলগাছটার মুখ।

চৌকাঠ | অজিত দাশ

চৌকাঠ প্রকাশ্যে উড়ছে যাবতীয় ব্যথার অগ্রন্থিত অক্ষর তোমাকে জানা আর না জানা অকথিত ভঙ্গিমা মাত্র।  অথচ কোনো গোপন দর্জা খুলে গেলে

দু’টি কবিতা | শামীম হোসেন

ঝড় নগরে এসেছে এক বাজপাখি আর বিশাল ডানা মেলে- ধেয়ে আসছে ধূলিঝড়... ধুলোর ভেতর থেকে হাত বাড়িয়ে ভাঙছে গাছ-ছোটবড় বাড়িঘর... আলুথালু

চুমু | মোকসেদুল ইসলাম

চুমু উড়ন্ত চুমুটা কিন্তু তোমাকে উদ্দেশ্য করেই দিয়েছি চালাক পাখি, তুমি কিছু বুঝে ওঠার আগেই খপ্ করে লুফে নিলো সে। আহ্ আফসোস আমার,

ছাই | ট্র্যাসি কে স্মিথ

ছাই ভাষান্তর: হুমায়ূন-আল-শফিক আমাদের বাড়িটাকে অবশ্যই রহস্যে পরিপূর্ণ করে রাখবো। বাড়িটা যেনো খায়, আবেদন করে এবং হত্যা করতে সক্ষম

মানুষ | জব্বার আল নাঈম

মানুষ  হে পৃথিবী, নিমগ্ন মধ্যরাতে প্রথম যৌনতা আমিই তোমাকে দিয়েছি। শিখিয়েছি নীরবতাময় ভালোবাসার আদর আপ্যায়ন; সমূহ সম্ভাবনার

কষ্টের সংজ্ঞা | মাসুম মুনাওয়ার

কষ্টের সংজ্ঞা কষ্ট পেতেই আমাদের জন্ম হয়। কষ্টগুলো রাত হয়ে বিঁধে যায় সোনালি চোখে। কিছু কষ্ট কুয়াশা হয়ে হারিয়ে যায় গহীন বনে। চোখ থেকে

তিনটি কবিতা | সাইফুল্লাহ মাহমুদ দুলাল 

জোনাকবাতি  ঘুমিয়ে পড়া অ্যালবামের রঙিন গ্রুপছবি থেকে একজন ঘুমিয়ে গেলো। একটি জোনাক পোকা শাদাকালো হয়ে দৃষ্টি ও দূরত্বের বাইরে

মা সিরিজ থেকে | গিরীশ গৈরিক

মা-১১ শহরের বাড়িগুলো খুব পাশাপাশি অথচ ভেতরের মানুষগুলো অনেক দূরে দূরে বসবাস করে আমার মা তাই কোনোদিন শহরের অধিবাসী হতে পারেনি সে

অভ্যুদয় | সৈয়দ ইফতেখার আলম

অভ্যুদয় আমার একটা ব্যক্তিগত নদী থেকে বয়ে গেছে জল সেটা কার কাছে খুঁজে পাচ্ছি না! নদীর পাড়ে ভাঙন ছিলো তুর্কিনাচন, দূরে লম্বা-বুনো

তিনটি কবিতা | ফকির ইলিয়াস

যা তুমি সরাতে চাইছো সরাতে চেয়েছিলে পাথর। সরাতে চেয়েছিলে নদী। অথচ কী তাজ্জব— দেখো, সরে যাচ্ছে মধ্যরাতের দেয়াল। যে ছায়া কাছে আসছে-

অনুভূতি | রেজওয়ান তানিম

অনুভূতি সৈকতে, সূর্যস্নানে...  হাঁটু অবধি ফেনা তোলা জল  লুকোচুরি খেলে... অকস্মাৎ  চোরাবালি মুখ তোলে,  একটু একটু করে দেবে

সিল্কের ছাড়পত্র | মঈনুস সুলতান

সিল্কের ছাড়পত্র এসো- তবে পান করে সুরভিত কফি সুমাত্রার, জড়ো করি মানচিত্র আর টিকিট প্রস্তুতি নেই টেরাকোটা সিপাহীর দেশে সাহসী

ঝিনুকের খোসা | আহমেদ শরীফ শুভ

ঝিনুক কুড়োনো শেষে বালিয়াড়ি হয়ে যায় স্মৃতি ঋতুর বয়স আসে ঋতু আসে ঋতু যায় কখনো সেসব স্মৃতি ধূলোয় উড়িয়ে দেয় কামিনের মেয়ে খোঁপায় কামিনী

দু’টি কবিতা | রুহুল মাহফুজ জয়

অংক বৃত্ত মেলানো পৃথিবীর স্বভাব আমি তোমার বৃত্তে ঘুরপাক খাই অংক মেলাতে পারি না তুমি যদি সংখ্যা তোমার নামের পাশে ইচ্ছামতো শূন্য

দ্বিতীয় জম্ম | অনিমিক শুভ

হাঁটু মুড়ি দিয়ে খেয়াঘাটে বসে আছে মঈন মাঝি তাকে দেখে আমার মাঝি হওয়ার সাধ উথলে উঠলো! এসব আমার প্রথম জন্মের কথা এজম্মে আমার মাঝি হতে

এই বিভাগের সর্বাধিক জনপ্রিয়

Alexa