ঢাকা, বুধবার, ২৪ অগ্রহায়ণ ১৪২৮, ০৮ ডিসেম্বর ২০২১, ০৩ জমাদিউল আউয়াল ১৪৪৩

চট্টগ্রাম প্রতিদিন

ভারতীয় সহকারি হাই কমিশনারকে সংবর্ধনা দিল চসিক

স্টাফ করেসপন্ডেন্ট | বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম
আপডেট: ১৮০৩ ঘণ্টা, মার্চ ২, ২০১৪
ভারতীয় সহকারি হাই কমিশনারকে সংবর্ধনা দিল চসিক ছবি: বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম

চট্টগ্রাম: চট্টগ্রামে ভারতীয় দূতাবাসের সহকারি হাই কমিশনার সোমনাথ ঘোষকে বিদায় সংবর্ধনা দিয়েছে সিটি করপোরেশন। একই সঙ্গে নবনিযুক্ত সহকারি হাই কমিশনার সোমনাথ হালদারকে সংবর্ধনা দেওয়া হয়েছে।



রোববার দুপুরে নগরীর চট্টগ্রাম ক্লাব মিলনায়তনে এ সংবর্ধনা অনুষ্ঠানের আয়োজন করা হয়। অনুষ্ঠানে সভাপতিত্ব করেন সিটি মেয়র এম মনজুর আলম।

মেয়রের একান্ত সচিব মো. মনজুরুল ইসলামের সঞ্চালনায় অনুষ্ঠানে বক্তব্য রাখেন নবনিযুক্ত ভারতীয় সহকারি হাই কমিশনার সোমনাথ হালদার, বিদায়ী সহকাwi হাই কমিশনার সোমনাথ ঘোষ, চট্টগ্রামে নিযুক্ত রাশিয়ান কনসাল জেনারেল মি. ওলেগ পি বয়কো, সাবেক গণপরিষদ সদস্য মোহাম্মদ ইসহাক মিয়া, প্রিমিয়ার বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য বিশিষ্ট সমাজবিজ্ঞানী অধ্যাপক ড. অনুপম সেন, দৈনিক পূর্বকোণের সম্পাদক তসলিম উদ্দিন, চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয়ের অধ্যাপক জিনবোধি ভিক্ষু, জামাল খান বেথেলহেম চার্চের ড. আলফ্রেড এ অধিকারী, প্যানেল মেয়র মোহাম্মদ হোসেন, করপোরেশনের প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তা আলী আহমেদ।

এম মনজুর আলম বলেন, ঐতিহাসিকভাবে ভারত বাংলাদেশের অকৃত্রিম বন্ধু ও সুপ্রতিবেশী। মহান মুক্তিযুদ্ধে ভারতের সহযোগিতা বাংলাদেশের জনগন চিরদিন স্মরণে রাখবে। তিনি বাংলাদেশ থেকে চিকিৎসাসহ বিভিন্ন প্রয়োজনে ভারতে গমনেচ্ছুক বাংলাদেশী নাগরিকদের ভিসা ব্যবস্থা সহজতর করার জন্য নবনিযুক্ত সহকারি হাই কমিশনারকে আহবান জানান।

মেয়র বলেন, বাংলাদেশ সাম্প্রদায়িক সম্প্রীতির বন্ধনে আবদ্ধ একটি গণতান্ত্রিক স্বাধীন দেশ। এদেশের সকল নাগরিক জাতি ধর্ম বর্ণ নির্বিশেষে ঐক্যবদ্ধ রয়েছে। তিনি আশা করেন, নবনিযুক্ত সহকারী হাই কমিশনার অতীতের বন্ধনকে আরো সুদৃঢ় করতে সক্ষম হবেন।

এসময় মেয়র নবনিযুক্ত ভারতীয় সহকারি হাই কমিশনারকে স্বাগত জানান এবং দীর্ঘদিন চট্টগ্রামে দায়িত্বে নিয়োজিত বিদায়ী সহকারি হাই কমিশনারের বর্ণাঢ্য কর্মময় সময়ের প্রশংসা করেন।

সোমনাথ হালদার বলেন, ঐতিহ্যগত দিক থেকে চট্টগ্রাম রাজনৈতিক, সাংস্কৃতিক ও ব্যবসাবান্ধব এলাকা। চট্টগ্রামের সাথে ব্যবসায়িক সম্পর্ক সুদৃঢ় করার জন্য তিনি ভারতীয় নাগরিকদের উৎসাহিত করবেন বলে জানান।

বিদায়ী ভারতীয় সহকারি হাই কমিশনার সোমনাথ ঘোষ চট্টগ্রামে দীর্ঘ তিন বছর দায়িত্ব পালনের অভিজ্ঞতা তুলে ধরে  বলেন, মেয়রসহ চট্টগ্রামের জনগনের অকৃত্রিম ভালবাসা ও সহযোগিতায় তিনি ধন্য হয়েছেন। যে কোনো দেশের ভালো কাজের মূল্যায়ন করা নাগরিক দায়িত্ব।

তিনি বলেন, নানান প্রতিকূলতা সত্ত্বেও বাংলাদেশ ধীরে ধীরে উন্নয়নের পথে এগিয়ে যাচ্ছে। যা প্রশংসার দাবি রাখে। চট্টগ্রাম ভৌগোলিকভাবে ঐতিহাসিক একটি এলাকা। ভারতের নিকট চট্টগ্রামের মূল্য অনেক বেশি। ভারত সরকারের নীতি হল প্রতিবেশী রাষ্ট্রের সাথে সম্পর্ক সুনিবিড় করা। দেশকে রাজনৈতিক, অর্থনৈতিক ও সামাজিক ক্ষেত্রে উন্নতির শীর্ষে পৌঁছে দেয়ার জন্য রাজনৈতিক স্থিতিশীলতা ও সৌহার্দ¨ পূর্ণ পরিবেশ অপরিহার্য।

সোমনাথ ঘোষ বলেন, বাংলাদেশ থেকে মুসলিম, হিন্দু ও বৌদ্ধগন ধর্মীয় আচার-অনুষ্ঠান, চিকিৎসা সেবা ও ব্যবসা-বাণিজ্যের জন্য প্রতিনিয়ত ভারতে যাতায়াত করে। আমি চেষ্টা করেছি বাংলাদেশের জনগন যাতে সহজ ও স্বল্প সময়ে ভিসা পায়।

এর আগে মেয়র নবনিযুক্ত ও বিদায়ী সহকারি হাই কমিশনারদের ফুলেল শুভেচ্ছায় বরণ করেন এবং উভয়কে চট্টগ্রাম সিটি কর্পোরেশনের মনোগ্রাম খচিত ক্রেস্ট ও উপহার সামগ্রী তুলে দেন।

বাংলাদেশ সময়: ১৮০০ ঘণ্টা, মার্চ ০২, ২০১৪

বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম'র প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।
Alexa