ঢাকা, বৃহস্পতিবার, ১৮ অগ্রহায়ণ ১৪২৮, ০২ ডিসেম্বর ২০২১, ২৬ রবিউস সানি ১৪৪৩

চট্টগ্রাম প্রতিদিন

সবাই একই পরিবারের

চট্টগ্রামে মাইক্রোবাসের সিলিন্ডার বিস্ফোরণে নিহত ৩

স্টাফ করেসপন্ডেন্ট | বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম
আপডেট: ১৩৫৩ ঘণ্টা, মার্চ ১৭, ২০১৪
চট্টগ্রামে মাইক্রোবাসের সিলিন্ডার বিস্ফোরণে নিহত ৩ ছবি: বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম

চট্টগ্রাম: চট্টগ্রামের ফটিকছড়ি উপজেলার ভূজপুর থানাধীন নাজিরহাট-কাজিরহাট সড়কের সুয়াবিল এলাকায় মাইক্রোবাসের সিলিন্ডার বিস্ফোরণে একই পরিবারের তিন নারী নিহত হয়েছেন। এ ঘটনায় আহত হয়েছেন আরও পাঁচজন।



সোমবার দুপুর সোয়া ১টার দিকে ঘটনাটি ঘটে। তবে দুর্ঘটার পর পুলিশ এবং প্রত্যক্ষদর্শীরা নিহতের সংখ্যা চারজন বলে জানিয়েছিল। ওই সময় পরিবারের একজন শিশু নিখোঁজ থাকায় নিহতের সংখ্যা ৪জন বলে জানিয়েছিল পরিবারের সদস্যরা। পরে শিশুটিকে আহত অবস্থায় পাওয়া যায়।  

নিহত তিন নারী হলেন- হালিমা বেগম (৭০), সেনুয়ারা বেগম                                                                                                                 (৬৫) ও পারভিন আক্তার (৩০)। আহতরা হলেন- প্রমি আক্তার (৯), সুমি আক্তার (১০), শারমিন (১১), লাভলী (৯) ও মরিয়ম বেগম (৫৫)।

আহতদের মধ্যে প্রমি আক্তার (৯) ও সুমি আক্তার’র (১০) অবস্থা অশঙ্কাজনক। তাদের চট্টগ্রাম মেডিকেল কলেজ (চমেক) হাসপাতালে পাঠানো হয়েছে। অপর আহতদের প্রাথমিক চিকিৎসা শেষে ছেড়ে দেওয়া হয়েছে।

ভূজপুর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মো. কবির হোসেন বাংলানিউজকে নিউজকে বলেন, ভূজপুর থানার হারওয়ালছড়ি ইউনিয়নের আমান বাজার এলাকার বাসিন্দা দুবাই প্রবাসী মো.শফিকে চট্টগ্রাম বিমানবন্দর থেকে বাড়িতে নিয়ে যাচ্ছিলেন পরিবারের সদস্যরা।

নাজিরহাট-কাজিরহাট সড়কদের সুয়াবিল ইউনিয়নের ব্রিকফিল্ড এলাকায় গাড়ির সিলিন্ডার বিস্ফোরণ ঘটে। এতে ঘটনাস্থলেই তিনজনের মৃত্যু হয়। এছাড়া আহত হয়েছে আরো পাঁচজন। তবে দুবাই ফেরত মো.শফি সুস্থ রয়েছেন।

তবে ঘটনার পর ভূজপুর থানার ওসি নিহতের সংখ্যা চারজন বলে জানিয়েছিলেন।

এ বিষয়ে যোগাযোগ করা হলে সোমবার বিকেলে ভূজপুর থানার ওসি বাংলানিউজকে বলেন, ঘটনাস্থলে উপস্থিত হয়ে অগ্নিদগ্ধ চারটি মাথার খুলি দেখা গিয়েছিল বলে আমরা মনে করেছিলাম। পরে দেখা গেছে তিনটি মাথার খুলি অন্যটি পুড়ে যাওয়া শরীরের অংশ। যেটাকে দেখতে মাথার খুলি মনে হয়েছিল।

ওসি বলেন,‘নিহত তিনজন ছাড়া এক শিশু নিখোঁজ রয়েছে বলেও তাদের পরিবার দাবি করেছিল। পরে শিশুটিকে আহত অবস্থায় পাওয়া যায়। ’ 

ওসি জানান, নিহত সেনুয়ারা বেগম দুবাই ফেরত শফির মা, ভাবি পারভিন আক্তার এবং শাশুড়ি হালিমা বেগম।  

প্রত্যক্ষদর্শীরা জানান, মাইক্রোবাসটি নাজিরহাট থেকে কাজিরহাটের দিকে যাচ্ছিল। সুয়াবিল এলাকার ব্রিকফিল্ড নামক স্থানে মাইক্রোবাসটি পৌঁছলে হঠাৎ সিলিন্ডার বিস্ফোরণ ঘটে ঘটনাস্থলেই তিনজন নিহত হন।

প্রত্যক্ষদর্শীরা আরো জানান, সিলিন্ডার বিস্ফোরণে নিহতদের শরীর সম্পূর্ণ পুড়ে গেছে। কেবল কঙ্কালগুলো পড়ে আছে।

এ ঘটনায় আহতদের ফটিকছড়ি উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে পাঠানো হয়। সেখান থেকে দুইজনকে আশঙ্কাজনক অবস্থায় চট্টগ্রাম মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালে পাঠানো হয়। বাকি তিনজনকে প্রাথমিক চিকিৎসা দেওয়া হয়।  

ফটিকছড়ি উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে‘র জরুরি বিভাগের উপ-সহকারী কমিউনিটি মেডিক্যাল অফিসার মো.ফারুক বাংলানিউজকে বলেন, গাড়ির সিলিন্ডার বিস্ফোরণে আহত পাঁচজনকে হাসপাতালে আনা হয়।

দুইজনের ‍অবস্থা আশঙ্কাজনক হওয়াতে তাদের চট্টগ্রাম মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালে পাঠানো হয়। বাকি তিনজনকে প্রাথমিক চিকিৎসা দেওয়া হয়েছে।

বাংলাদেশ সময়: ১৩৫৫ ঘণ্টা, মার্চ ১৭, ২০১৪/আপডেট: ১৯১৫ ঘণ্টা

বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম'র প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।
Alexa