ঢাকা, মঙ্গলবার, ১১ মাঘ ১৪২৮, ২৫ জানুয়ারি ২০২২, ২১ জমাদিউস সানি ১৪৪৩

অর্থনীতি-ব্যবসা

১৭ আগস্টের মধ্যেই দাহ্য রাসায়নিক সরাতে হবে: শিল্পমন্ত্রী

স্টাফ করেসপন্ডেন্ট | বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম
আপডেট: ০৮৫৪ ঘণ্টা, আগস্ট ৩, ২০১০
১৭ আগস্টের মধ্যেই দাহ্য রাসায়নিক সরাতে হবে: শিল্পমন্ত্রী

ঢাকা : ১৭ আগস্টের মধ্যেই বিপজ্জনক সকল দাহ্য রাসায়নিক দ্রব্য নিজ নিজ গুদাম ও ব্যবসা প্রতিষ্ঠান থেকে অন্যত্র সরিয়ে ফেলতে পুরান ঢাকার ব্যবসায়ীদের আবার তাগিদ দিয়েছেন শিল্পমন্ত্রী দিলিপ বড়ুয়া। পাশাপাশি তিনি বলে দিয়েছেন, দু’মাসের বেঁধে দেয়া এই সময়সীমা কোনোভাবেই আর বাড়ানো হবে না।



শিল্পমন্ত্রী মঙ্গলবার বাংলাদেশ চেম্বার অব ইন্ডাস্ট্রিজ (বিসিআই) আয়োজিত ‘পুরান ঢাকার শিল্পের বর্তমান পরিস্থিতি এবং করণীয়’ শীর্ষক এক আলোচনা সভায় প্রধান অতিথির বক্তব্য দিচ্ছিলেন।


আলোচনা সভায় পুরান ঢাকার ব্যবসায়ীরা বলেন, সরকারের এই ঘোষণায় ব্যবসায়ীদের মধ্যে আতঙ্কের সৃষ্টি হয়েছে। এর ফলে রাসায়নিক দ্রব্যের আমদানি ও  পুরান ঢাকার ব্যবসায়ীদের ব্যবসা অনেক কমে গেছে। ব্যবসায়ীদের কোনো প্রকার হয়রানি না করার অনুরোধ জানিয়ে তারা বিপদজনক রাসায়নিক দ্রব্যের তালিকা প্রণয়ন করতে  সরকারকে অনুরোধ জানান। পাশাপাশি এ সকল দ্রব্য রাখার লাইসেন্স প্রদান এবং গুদাম ও ব্যবসা অন্যত্র সরিয়ে নেওয়ার জন্য উপযুক্ত স্থান বরাদ্দ করাসহ সরকারের কাছে সহযোগিতা চান।  

ব্যবসায়ীদের বক্তব্যের জবাবে শিল্পমন্ত্রী বলেন, ব্যবসায়ীরা সরকারের কাছে সময় বাড়ানোর আবেদন জানানোর পর সরকার তাদের দুই মাস সময় বেঁধে দিয়েছে। এর মধ্যে গঠিত টাস্কফোর্সের কোনো কার্যক্রম চালানো হয়নি।   ব্যবসায়ীদেরও কোনো প্রকার হয়রানি করা হয়নি। সরকার তার কথা রেখেছে। সুতরাং ব্যবসায়ীদেরকেও তাদের কথা রাখতে হবে।

মন্ত্রী বলেন, জনগণের জানমাল রক্ষা করার দায়িত্ব সরকারের। যেখানে মৃত্যুফাঁদ রয়েছে সেখানে কোনো ঝুঁকি নেওয়া যায় না।
ব্যবসা অন্যত্র সরিয়ে নেওয়ার জন্য ব্যবসায়ীদের পক্ষ থেকে সরকারকে স্থান বরাদ্দের যে অনুরোধ করা হয়েছে সে প্রসঙ্গে শিল্পমন্ত্রী বলেন, সরকার ব্যবসা করবে না, সুতরাং এ ধরনের দাবি তোলা যৌক্তিক নয়। তবে সরকার ব্যবসায়ীদের নীতিগত সহায়তাসহ বিভিন্ন সহযোগিতা দিতে প্রস্তুত।  

রাজধানীর দিলকুশাস্থ বিসিআইসি ভবনে আয়োজিত এই আলোচনা সভায় বিশেষ অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন আইন প্রতিমন্ত্রী অ্যাডভোকেট কামরুল ইসলাম। বিসিআই সভাপতি শাহেদুল ইসলাম হেলালের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠিত আলোচনা সভায় অন্যান্যের মধ্যে বক্তব্য রাখেন সংসদ সদস্য ডা. মোস্তফা জালাল মহিউদ্দিন, শিল্প মন্ত্রণালায় সম্পর্কিত সংসদীয় স্থায়ী কমিটির সদস্য জাহিদ মালিক এমপি প্রমুখ।

আইন প্রতিমন্ত্রী কামরুল ইসলাম বলেন, কোন্ কোন্ রাসায়নিক দ্রব্য বিপদজনক- এটা যারা ব্যবসায়ী তারাই অন্যদের চেয়ে ভালো বলতে পারবেন। সুতরাং ব্যবসায়ীদের উচিত নিজেদেরই উদ্যোগেই একটি তালিকা তৈরী করা।

প্রসঙ্গক্রমে তিনি বলেন, অধিকাংশ ক্ষেত্রেই পরিবেশ দূষণের জন্য ব্যবসায়ীরাই দায়ী। প্রতিটি শিল্প প্রতিষ্ঠানে বর্জ্য শোধনাগার থাকার কথা থাকলেও বেশিরভাগ প্রতিষ্ঠানেই তা নেই। তিনি প্রতিটি শিল্প প্রতিষ্ঠানেই  বর্জ্য শোধনাগার স্থাপন এবং এ ব্যাপারে পরিবেশ ছাড়পত্র দিতে আরো কঠোর হওয়ার ওপর গুরুত্বারোপ করেন তিনি।

বাংলাদেশ স্থানীয় সময় : ১৯১৮ ঘন্টা , ০৩ আগস্ট , ২০১০

বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম'র প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।
Alexa