ঢাকা, বুধবার, ২৬ শ্রাবণ ১৪২৯, ১০ আগস্ট ২০২২, ১১ মহররম ১৪৪৪

অর্থনীতি-ব্যবসা

‘বিদ্যুৎ ও জ্বালানি খাত বেসরকারিকরণ সংবিধানের লঙ্ঘন’

স্টাফ করেসপন্ডেন্ট | বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম
আপডেট: ০৯১৯ ঘণ্টা, আগস্ট ৩, ২০১০
‘বিদ্যুৎ ও জ্বালানি খাত বেসরকারিকরণ সংবিধানের লঙ্ঘন’

ঢাকা : বিদ্যুৎ ও জ্বালানি খাত ক্রমশ ব্যাক্তি মালিকানায় ছেড়ে দিয়ে সরকার সংবিধান লংঘন করছে বলে অভিযোগ এনেছে তেল-গ্যাস, খনিজ সম্পদ ও বিদ্যুৎ-বন্দর রাক্ষা জাতীয় কমিটি ।

মঙ্গলবার একটি সেমিনারে কমিটির নেতারা বলেন, সংবিধানের ৭, ১৩, ১৬ ও ১৪৩ নম্বর অনুচ্ছেদ মানতে হলে দেশের এ দুটি খাত রাষ্ট্রের মালিকানায় রাখতে হবে।

 

রাজধানীর মুক্তি ভবনে ’জ্বালানি সম্পদ, বিদ্যুৎ সংকট এবং জ্বালানি নিরাপত্তা: নীতি, চুক্তি, প্রতিষ্ঠান ও মালিকানা’- শীর্ষক দিনব্যাপি সেমিনারে বক্তারা বলেন, দেশের জ্বালানী ও বিদ্যুৎ খাতকে যেভাবে বেসরকারিকরণ করা হচ্ছে, তাতে খুব নিকটে দেশের মালিকানায় কোন বিদ্যুৎ কেন্দ্র বা গ্যাসক্ষেত্র থাকবে না।

সেমিনারে সভাপতিত্ব করেন সংগঠনের আহ্বায়ক প্রকৌশলী শেখ মুহাম্মদ শহীদুল্লাহ।

বক্তারা বলেন, এভাবে বেসরকারিকরণ চলতে থাকলে একদিন বিদ্যুৎ ও জ্বালানির জন্য বহুহাতিক কোম্পানিগুলোর দিকে তাকিয়ে থাকতে হবে। এটা হতে দেওয়া যায় না।

বক্তারা বলেন, উৎপাদন অংশিদারিত্ব বন্টন চুক্তিতে (পিএসসি) তৃতীয় পরে কাছে বিক্রি বা রফতানির বিষয়টি এসেছে। যা দেশের জন্য তিকর। জ্বালানি সম্পদের সর্বোচ্চ ব্যবহারের স্বার্থে পিএসসি বাতিলের দাবি করেন তারা।

বক্তারা বলেন, দেশের সম্পদ দেশেই থাকবে। এই সম্পদের সবটুকু বিদ্যুতায়ন ও শিল্পায়নসহ দেশের কাজে লাগাতে হবে।

তেজষ্ক্রিয় পারমাণবিক বর্জ্য নিষ্কাষণ নিশ্চিত করা ছাড়া পারমাণবিক বিদ্যুৎ কেন্দ্র নির্মাণ না করা জন্য সরকারের প্রতি আহ্বান জানান তারা ।

সেমিনারে অন্যান্যের মধ্যে বক্তব্য রাখেন জাতীয় কমিটির সদস্য সচিব অধ্যাপক আনু মুহাম্মদ, প্রকৌশলী ম. ইনামুল হক, মুশাহিদা সুলতানা, ড. আফতাব আলম খান, নূর মোহাম্মদ, অধ্যাপক শামসুল আলম প্রমুখ।

বাংলাদেশ স্থানীয় সময় : ২০৪১, জুলাই ০৩, ২০১০।

বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম'র প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।
Alexa