ঢাকা, শনিবার, ১২ অগ্রহায়ণ ১৪২৮, ২৭ নভেম্বর ২০২১, ২১ রবিউস সানি ১৪৪৩

চট্টগ্রাম প্রতিদিন

ভুল বুঝবেন না, বিভ্রান্ত হবেন না: মহিউদ্দিন

স্পেশাল করেসপন্ডেন্ট | বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম
আপডেট: ১৪২৮ ঘণ্টা, মার্চ ৯, ২০১৪
ভুল বুঝবেন না, বিভ্রান্ত হবেন না: মহিউদ্দিন

চট্টগ্রাম: চট্টগ্রাম মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের কর্মকর্তা-কর্মচারীদের বিভ্রান্ত না হওয়ার আহ্বান জানিয়েছেন চট্টগ্রাম মেডিকেল বিশ্ববিদ্যালয় বাস্তবায়ন পরিষদের চেয়ারম্যান ও সাবেক মেয়র এবিএম মহিউদ্দিন চৌধুরী।

চট্টগ্রাম মেডিকেল কলেজকে বিশ্ববিদ্যালয় করা নিয়ে কর্মকর্তা-কর্মচারীদের মধ্যে ভুল বোঝাবুঝির সৃষ্টি হয়েছে উল্লেখ করে তিনি তাদের উদ্দেশ্যে বলেন, ‘আপনাদের মধ্যে যে ভুল বোঝাবুঝির সৃষ্টি হয়েছে তার অবসান ঘটাতে হবে।

ভুল বুঝবেন না, বিভ্রান্ত হবেন না। কর্মচারীদের ন্যূনতম ক্ষতি আমরা মেনে নেব না। ’

রোববার দুপুরে চট্টগ্রাম প্রেসক্লাবে আয়োজিত এক সংবাদ সম্মেলনে তিনি এসব কথা বলেন। চট্টগ্রাম মেডিক্যাল বিশ্ববিদ্যালয় বাস্তবায়ন পরিষদের ব্যানারে এ সংবাদ সম্মেলনের আয়োজন করা হয়।

লিখিত বক্তব্যে মহিউদ্দিন চৌধুরী বলেন, চট্টগ্রাম মেডিক্যাল কলেজকে বিশ্ববিদ্যালয়ে রূপান্তর করা হলে নামমাত্র দামে চট্টগ্রামে বিশ্বমানের চিকিৎসা সেবা পাওয়া যাবে। এতে হাজার হাজার কোটি বৈদেশিক মুদ্রা বাঁচবে। বর্তমানে প্রাকৃতিক নিসর্গে মোড়া আশি একর জমিতে মেডিকেল বিশ্ববিদ্যালয় গড়ে উঠলে তা উচ্চতর মেডিকেল শিক্ষা, উন্নত চিকিৎসা গবেষণা এবং চিকিৎসা সেবায় সেরা তীর্থে পরিণত হবে।

মহিউদ্দিন বলেন, চট্টগ্রাম মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের যে স্বল্পসংখ্যক কর্মচারী চট্টগ্রামের মহান অর্জনের পথে বাধা সৃষ্টি করছেন, তারা অচিরেই নিজেদের ভুল বুঝতে পারবেন। কারণ মেডিকেল বিশ্ববিদ্যালয় বাস্তবায়ন হলে কর্মচারীদের কোন অবমূল্যায়ন হবে না। তাদের স্থায়ী চাকুরিসহ সরকারী সুবিধার কোন ঝুঁকি তৈরি হবেন‍া। বরং তারা আরও বেশি উপকৃত ও সম্মানিত হবেন।

একই সংবাদ সম্মেলনে একুশে পদকপ্রাপ্ত সমাজ বিজ্ঞানী ও প্রিমিয়ার বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য ড. অনুপম সেন বলেন, বিশ্ববিদ্যালয়ের চাকুরিতে সরকারী চাকুরির চেয়ে অনেক বেশি সুযোগ-সুবিধা। পেনশন বেসিক বেতনের ৮০ শতাংশ। সরকারী চাকুরি যেমন কোনভাবে যায়না, বিশ্ববিদ্যালয়ের চাকুরিও যাবেনা। এছাড়া চট্টগ্রামে আরও অনেক বড় চাকুরির ক্ষেত্র তৈরি হবে।

সংবাদ সম্মেলনে অন্যান্যের মধ্যে পেশাজীবি সমন্বয় পরিষদের সভাপতি ডা.এ কিউ এম সিরাজুল ইসলাম, বিশেষজ্ঞ চিকিৎসক অধ্যাপক ডা.ইমরান বিন ইউনূস, নগর আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক আ জ ম নাছির উদ্দিন, বিএমএ’র চট্টগ্রাম শাখার সভাপতি ডা.মুজিবুল হক খান, ভারপ্রাপ্ত সাধারণ সম্পাদক ডা.ফয়সাল ইকবাল, স্বাচিপ নেতা ডা.শেক শফিউল আজম, চমেক শিক্ষক সমিতির সাধারণ সম্পাদক ডা.নূর কাশেম খান উপস্থিত ছিলেন।

উল্লেখ্য চট্টগ্রাম মেডিক্যাল কলেজকে বিশ্ববিদ্যালয়ে রূপান্তরের ঘোষণার পর থেকে আন্দোলন শুরু করে হাসপাতালের তৃতীয় ও চতুর্থ শ্রেণীর কর্মচারীরা। ডিপ্লোমা নার্স অ্যাসোসিয়েশন ও স্বাস্থ্য বিভাগীয় সরকারি কর্মচারী সংগ্রাম পরিষদ নামে দু’টি ব্যানারে এ আন্দোলন চলছে।

বাংলাদেশ সময়: ১৪২০ ঘণ্টা, মার্চ ০৯, ২০১৪ 

বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম'র প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।
Alexa