ঢাকা, মঙ্গলবার, ৩ বৈশাখ ১৪৩১, ১৬ এপ্রিল ২০২৪, ০৬ শাওয়াল ১৪৪৫

জাতীয়

‘মানবতার শেখ হাসিনা’ পোস্টার উদ্বোধন

স্টাফ করেসপন্ডেন্ট | বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম
আপডেট: ২২৩১ ঘণ্টা, ফেব্রুয়ারি ১, ২০২৩
‘মানবতার শেখ হাসিনা’ পোস্টার উদ্বোধন

ঢাকা: ঢাকা মেডিকেল কলেজ ইতিহাস সংরক্ষণ প্রকল্প কর্তৃক ‘মানবতার শেখ হাসিনা’ শীর্ষক পোস্টার উদ্বোধন করেছেন শিক্ষামন্ত্রী ডা. দীপু মনি।  

বুধবার (১ ফেব্রুয়ারি) সন্ধ্যায় জাতীয় প্রেসক্লাবে তিনি এ পোস্টারের উদ্বোধন করেন।

এ সময় অধ্যাপক ডা. মনিলাল আইচ লিমু ও এম অর মাহবুব রচিত ‘মানবতার শেখ হাসিনা’ শীর্ষক ব‌ইয়ের (চতুর্থ সংস্করণ) মোড়ক উন্মোচন করেন অধ্যাপক আ ফ ম রুহুল হক।  

অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি হিসেবে বক্তব্য রাখেন, আওয়ামী লীগের প্রেসিডিয়াম সদস্য ডা. মোস্তফা জালাল মহিউদ্দিন।  

বিশেষ অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন, জাতীয় অধ্যাপক এ বি এম আবদুল্লাহ, জাতীয় অধ্যাপক এ কে আজাদ, স্বাধীনতা পদক প্রাপ্ত অধ্যাপক টি এ চৌধুরী, বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব মেডিকেল বিশ্ববিদ্যালয়ের সাবেক উপাচার্য অধ্যাপক কামরুল হাসান খান, স্বাধীনতা চিকিৎসক পরিষদের সভাপতি ডা. জামাল উদ্দিন চৌধুরী, স্বাধীনতা চিকিৎসক পরিষদের মহাসচিব অধ্যাপক কামরুল হাসান লিমন, ঢাকা মেডিকেল কলেজের অধ্যক্ষ অধ্যাপক শফিকুল ইসলাম চৌধুরী।  

অনুষ্ঠানে শিক্ষামন্ত্রী বলেন, দেশের সব গণতান্ত্রিক আন্দোলন-সংগ্রামে গুরুত্বপূর্ণ অবদান রেখেছে ঢাকা মেডিকেল কলেজ। আমরা ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়কে আন্দোলন-সংগ্রামের সূতিকাগার বলি। কিন্তু ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতাল ও কোনো অংশে কম ছিল না। ভাষার মাস শুরু হলো। একমাত্র বাঙালির এই বিরাট ইতিহাস রয়েছে।  

তিনি বলেন, একুশের স্মৃতির সঙ্গে ঢাকা কলেজের ইতিহাস ওতপ্রোতভাবে জড়িত। আজ যে বইটি উন্মোচন করা হলো, তাতে এই বিষয়ে অনেক তথ্য রয়েছে। ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতাল আমাদের দেশের শুধুমাত্র চিকিৎসা শিক্ষা ও চিকিৎসা ব্যবস্থায় একটা বিশাল জায়গা জুড়ে আছে তা নয়, এর একটি বিশাল ঐতিহ্য রয়েছে। দেশের সব গণতান্ত্রিক আন্দোলন-সংগ্রামে ঢাকা মেডিকেল কলেজের গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা ছিল। এই কলেজের স্মৃতি সংরক্ষণ একটি গুরুত্বপূর্ণ কাজ। কাজটি যারা করছেন, আমি তাদের ধন্যবাদ জানাই।  

তিনি আরও বলেন, আমাদের দেশ বঙ্গবন্ধুকন্যা শেখ হাসিনার নেতৃত্বে মধ্যম আয়ের দেশ হয়েছে, ডিজিটাল বাংলাদেশ হয়েছে। স্বল্পোন্নত দেশ থেকে উন্নয়নশীল দেশে রূপান্তরিত হয়েছি। এখন আমাদের তিনি (প্রধানমন্ত্রী) স্বপ্ন দেখাচ্ছেন, ২০৪১ সালের মধ্যে দেশ স্মার্ট বাংলাদেশ হবে।  

শিক্ষামন্ত্রী বলেন, স্মার্ট বাংলাদেশের চারটি মৌলিক উপাদানের মধ্যে একদম কেন্দ্রবিন্দুতে রয়েছে স্মার্ট নাগরিক। স্মার্ট নাগরিক তৈরিতে আমরা কাজ করে যাচ্ছি। যত প্রতিবন্ধকতা আসুক, যত অপপ্রচার করুক, যত মিথ্যাচার করুক,  আমাদের এগিয়ে যেতেই হবে। একটি অসাম্প্রদায়িক, গণতান্ত্রিক শোষণহীন, বৈষম্যহীন বাংলাদেশ, যেটিকে বঙ্গবন্ধু বলেছিলেন সোনার বাংলা, সেই সোনার বাংলা গড়ে তুলতে হবে।

বাংলাদেশ সময়: ২২২৩ ঘণ্টা, ফেব্রুয়ারি ১, ২০২৩

এসকেবি/আরএইচ

বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম'র প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।