ঢাকা, বুধবার, ৩ বৈশাখ ১৪৩১, ১৭ এপ্রিল ২০২৪, ০৭ শাওয়াল ১৪৪৫

জাতীয়

শাহজাহানপুরে একই বাসায় দুই দফা আগুনে সাতজন দগ্ধ

সিনিয়র করেসপন্ডেন্ট  | বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম
আপডেট: ২৩১৪ ঘণ্টা, ফেব্রুয়ারি ২৭, ২০২৪
শাহজাহানপুরে একই বাসায় দুই দফা আগুনে সাতজন দগ্ধ

ঢাকা: রাজধানীর শাহজাহানপুর ঝিল মসজিদ এলাকার একটি বাসায় গ্যাস লাইন লিকেজ থেকে আগুনে ৭ জন দগ্ধ হয়েছেন। তাদেরকে উদ্ধার করে শেখ হাসিনা জাতীয় বার্ন ও প্লাস্টিক সার্জারি ইনস্টিটিউটে ভর্তি করা হয়েছে।

মঙ্গলবার (২৭ ফেব্রুয়ারি) সকাল ৮টার দিকে ও সন্ধ্যা ছয়টার দিকে একই বাসায় পরপর দুইবার এই আগুনের ঘটনা ঘটে।

এতে দগ্ধ হন  ঝিলমসজিদ মোহনা টেইলার্স গলির ৫৩ নম্বর ৫ তলা বাড়ির নিচতলার ভাড়াটিয়া মিন্টু হাওলাদার (৪০), তার মেয়ে মারিয়া ইশরাত (১৯),  সেনেটারি মিস্ত্রি মনির হোসেন (৪১), দেলোয়ার হোসেন (৫৭), প্রতিবেশী আলী আকবর (৩৫), বাচ্চু মিয়া (৪৫) ও সিরাজুল ইসলাম (৪৮)।

দগ্ধ মিন্টু হাওলাদার জানান, বাড়িটির নিচতলায় তাদের ভাড়া বাসায় বাথরুমে ও রান্নাঘরে মাঝেমধ্যেই গ্যাসের গন্ধ পাওয়া যেত। তবে কোথা থেকে লিকেজ হয়ে গ্যাস বের হতো তা খুঁজে পাইনি। আজ মঙ্গলবার সকাল ৮টার দিকে সেই রান্না ঘরে হঠাৎ করেই গ্যাস থেকে আগুনের ঘটনা ঘটে । এতে তিনি ও প্রতিবেশী বাচ্চু মিয়া দগ্ধ হন।

মিন্টু হালদারের স্ত্রী ঝর্ণা আক্তার জানান, সকালেই তাদেরকে বার্ন ইনস্টিটিউটে নিয়ে আসা হয়। সকালে  আগুনের ঘটনার পর সন্ধ্যায় এটি মেরামতের জন্য সেনেটারি মিস্ত্রি যায় ওই বাসায়। তখন সেখানে পুনরায় আবার জমে থাকা গ্যাস থেকে আগুন ধরে যায়। এতে সেনেটারি মিস্ত্রিসহ মিন্টুর মেয়ে মারিয়াও দগ্ধ হন। পরে তাদেরকে নিয়ে আসা হয় বার্ন ইনস্টিটিউটে।

বার্ন ইনস্টিটিউটের চিকিৎসকরা জানান, মিন্টু হাওলাদারের ৪০ শতাংশ পুড়ে গেছে। বাকিদের হাত-মুখসহ শরীরের বিভিন্ন জায়গায় দগ্ধ হয়েছে। সবাইকে চিকিৎসাধীন রাখা হয়েছে।

এদিকে শাজাহানপুর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) সুজিত কুমার সাহা জানান, শাহজাহানপুর ঝিল মসজিদের পাশে ৫৩ নাম্বার বাড়ির নিচ তলায় গ্যাস লিকেজ থেকে আগুনের ঘটনায় বেশ কয়েকজন দগ্ধ হয়েছেন। বিস্তারিত জানার জন্য পুলিশ ঘটনাস্থলে কাজ করছে।

বাংলাদেশ সময়: ২৩১৪ ঘণ্টা, ফেব্রুয়ারি ২৭, ২০২৪
এমএম
 

বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম'র প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।