ঢাকা, মঙ্গলবার, ২১ আষাঢ় ১৪২৯, ০৫ জুলাই ২০২২, ০৫ জিলহজ ১৪৪৩

জাতীয়

গোপনে চুল্লিতে কাঠ পুড়িয়ে বানানো হতো কয়লা!

উপজেলা করেসপন্ডেন্ট | বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম
আপডেট: ১৪৪৯ ঘণ্টা, মে ২০, ২০২২
গোপনে চুল্লিতে কাঠ পুড়িয়ে বানানো হতো কয়লা! চুল্লি

পাথরঘাটা (বরগুনা): বরগুনার পাথরঘাটা উপজেলায় অবৈধভাবে চুল্লিতে কাঠ পুড়িয়ে কয়লা বানানো হতো। যা পরিবেশ ও মানবদেহের জন্য ক্ষতিকর।

খবর পেয়ে এমন তিনটি কারখানার মোট ১৩টি চুল্লি ভেঙে দেওয়া হয়েছে।

বৃহস্পতিবার (১৯ মে) দুপুরে পৃথক অভিযান চালিয়ে চুল্লিগুলো ভেঙে দিয়ে অবৈধ এ কর্মকাণ্ড বন্ধ করে দেন পাথরঘাটা উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা (ইউএনও) হোসাইন মুহাম্মদ আল-মুজাহিদ।

অভিযানে উপজেলার কাঠালতলী বকুলতলা গ্রামের জাহাঙ্গীর মিয়ার আটটি, রায়হানপুর ইউনিয়নের রায়হানপুর গ্রামের সোহাগের দু’টি চুল্লি ও একই ইউনিয়নের মাদারতলী গ্রামের ফজলুর সরদারের তিনটি চুল্লি ভেঙে দেওয়া হয়েছে।

পাথরঘাটা উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা (ইউএনও) হোসাইন মুহাম্মদ আল মুজাহিদ বলেন, কাঠ পুড়িয়ে কয়লা তৈরি করা অবৈধ কাজ। এগুলো মানুষ ও পরিবেশের জন্য হুমকি স্বরূপ। এলাকার মানুষের অভিযোগের ভিত্তিতে আগে তাদের সতর্ক করা হয়। কিন্তু তারপরও কার্যক্রম বন্ধ না করায় অবৈধভাবে কয়লা তৈরির চুল্লিগুলো সম্পূর্ণ ভেঙে দেওয়া হয়েছে।

এ বিষয় বাংলাদেশের পরিবেশ আন্দোলনের (বাপা) পাথরঘাটা উপজেলা সমন্বয়ক শফিকুল ইসলাম খোকন বলেন, ফসলি জমি ঘেঁষে এবং ঘনবসতিপূর্ণ এলাকায় কারখানা স্থাপন করায় পরিবেশ ও জীববৈচিত্র্যের মারাত্মক ক্ষতি হচ্ছে। বিষাক্ত ধোঁয়ায় ফসলের ক্ষতি হচ্ছে। এসব চুল্লি জ্বলে দিন-রাত। প্রতিদিন পোড়ানো হচ্ছে শত শত মণ কাঠ। বিগত দিনে একাধিকবার প্রশাসন বন্ধ করলেও অসাধু ব্যবসায়ীরা সুযোগ বুঝে ফের কাঠ পোড়ানো শুরু করেন।  

বাংলাদেশ সময়: ১৪৪৬ ঘণ্টা, মে ২০, ২০২২
এসআই


 

বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম'র প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।
Alexa