ঢাকা, সোমবার, ২০ আষাঢ় ১৪২৯, ০৪ জুলাই ২০২২, ০৪ জিলহজ ১৪৪৩

জাতীয়

রাশিয়ার সঙ্গে খেলা বন্ধ করুন: পশ্চিমাদের প্রতি জেলেনস্কি

আন্তর্জাতিক ডেস্ক | বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম
আপডেট: ১৪৪৩ ঘণ্টা, মে ২৭, ২০২২
রাশিয়ার সঙ্গে খেলা বন্ধ করুন: পশ্চিমাদের প্রতি জেলেনস্কি ভলোদিমির জেলেনস্কি

২৪ ফেব্রুয়ারি শুরু হওয়া রুশ আগ্রাসনের অবসান চান ইউক্রেনীয় প্রেসিডেন্ট ভলোদিমির জেলেনস্কি। যুদ্ধ শুরুর দিন থেকে বরাবর পশ্চিমা দেশগুলোর কাছে সহায়তা চেয়ে আসছেন তিনি।

তার চাওয়া একটাই- যেকোনো পরিস্থিতিতে আগ্রাসন বন্ধ হোক। কিন্তু এখন পর্যন্ত তেমন কোনো ব্যবস্থা প্রতীয়মান হয়নি।

সরাসরি যুদ্ধ বন্ধের কোনো ব্যবস্থা না করলেও প্রতিনিয়ত রাশিয়ার ওপর বিভিন্ন কারণে নিষেধাজ্ঞা দিয়ে আসছে পশ্চিমা বিশ্ব। ইউরোপীয় ইউনিয়নও (ইইউ) দেশটির বিরুদ্ধে নিষেধাজ্ঞা আরোপ করবে বলে জানিয়েছে। এ নিষেধাজ্ঞার বাস্তবায়ন কার্যত শ্লথ গতির। আর এতেই চটেছেন ভলোদিমির। রাশিয়ার সঙ্গে খেলা বন্ধ করে ইউক্রেনে যুদ্ধের অবসান ঘটাতে পশ্চিমা দেশগুলোর প্রতি আহ্বান জানিয়েছেন তিনি।

শুক্রবার (২৭ মে) বার্তা সংস্থা রয়টার্স’র এক প্রতিবেদন থেকে এ তথ্য পাওয়া গেছে। খবরে বলা হয়েছে, নিজ দেশে রাশিয়ার ‘কারণহীন যুদ্ধের’ সমাপ্তি ঘটাতে কঠোর নিষেধাজ্ঞা চাইছেন ভলোদিমির।

ইউক্রেনের প্রেসিডেন্ট বলেছেন, তার দেশ স্বাধীন থাকবে। কিন্তু প্রশ্ন হচ্ছে আর কত মূল্য দেওয়ার পর সেটি হবে।

খবরে আরও বলা হয়, ইউক্রেনে তিন দিক চলা রাশিয়ার সর্বাত্মক হামলা চতুর্থ মাসে গড়িয়েছে। সম্প্রতি পূর্বাঞ্চলীয় শহর সিভিয়ারোডোনেটস্ক এবং লিসিচানস্ক দখলে নিতে জোর প্রচেষ্টা চালাচ্ছে রুশ বাহিনী। হাজার হাজার সেনা অঞ্চল দুটিতে হামলা চালাতে তোড়জোড় শুরু করেছে। এর মধ্যে মস্কোর বিরুদ্ধে তেল নিষেধাজ্ঞা আরোপের ব্যাপারে ইইউ’র শ্লথ গতি দেখে পশ্চিমের দিকে সমালোচনা বেড়েছে ভলোদিমির জেলেনস্কির।

বৃহস্পতিবার গভীর রাতে দেওয়া এক ভাষণে ভলোদিমির বলেন, ইউক্রেন সবসময় একটি স্বাধীন রাষ্ট্র এবং এটি ভাঙার নয়। প্রশ্ন হলো- আমাদের জনগণকে তাদের স্বাধীনতার জন্য কি মূল্য দিতে হবে। আমাদের বিরুদ্ধে এই অর্থহীন যুদ্ধের জন্য রাশিয়াকে কি মূল্য দিতে হবে।

তিনি আরও বলেন, বিপর্যয়কর সঙ্কট এখনই শেষ করা যেতে পারে, যদি ইউক্রেনের পরিস্থিতিকে বিশ্ব নিজেদের পরিস্থিতি বলে মনে করে। শক্তিধর দেশগুলো রাশিয়ার সঙ্গে খেলা বন্ধ করে যুদ্ধ শেষ করতে যদি মস্কোকে সত্যিকার অর্থে চাপ দেয়, তবে এসব পরিস্থিতির পরিবর্তন সম্ভব।

রাশিয়ার তেল আমদানিতে নিষেধাজ্ঞাসহ দেশটির বিরুদ্ধে ষষ্ঠ দফায় শাস্তিমূলক ব্যবস্থা নেওয়া নিয়ে আলোচনা করছে ইইউ। এ ব্যাপারে সদস্য দেশগুলোর একমত হওয়া প্রয়োজন। কিন্তু প্রচণ্ড অর্থনৈতিক ক্ষতির আশঙ্কায় এ নিষেধাজ্ঞা আরোপের প্রস্তাবে ভেটো দিয়েছে হাঙ্গেরি। এ বিষয়টি নিয়েই মূলত রাগ ইউক্রেনীয় প্রেসিডেন্টের।

ভলোদিমির বলেন, রাশিয়া জ্বালানি সরবরাহ করে ২৭টি দেশ থেকে প্রতিদিন এক বিলিয়ন ইউরো পাচ্ছে। ইইউ ষষ্ঠ প্যাকেজে একমত হতে আর কত সপ্তাহ চেষ্টা করবে? রাশিয়ার উপর চাপ আক্ষরিক অর্থে জীবন বাঁচানোর বিষয়। প্রতিদিন বিভিন্ন কারণে ইউক্রেনীয়দের হত্যা করা হচ্ছে।

ভাষণে ইইউর দেশগুলোর মধ্যকার মতবিরোধ নিয়েও প্রশ্ন তোলেন তিনি। কিছু দেশ কেন মস্কোর বিরুদ্ধে নিষেধাজ্ঞা আরোপের পরিকল্পনা আটকে দিতে চায়, প্রশ্ন করেন তিনি।

সূত্র: রয়টার্স

বাংলাদেশ সময়: ১৪৪৫ ঘণ্টা, মে ২৭, ২০২২
এমজে

বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম'র প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।
Alexa