ঢাকা, শনিবার, ১১ অগ্রহায়ণ ১৪২৯, ২৬ নভেম্বর ২০২২, ০১ জমাদিউল আউয়াল ১৪৪৪

রাজনীতি

সব অ্যাম্বাসেডর মিলে বললেও তত্ত্বাবধায়ক সরকারের অধীনে নির্বাচন হবে না

ডিস্ট্রিক্ট করেসপন্ডেন্ট | বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম
আপডেট: ১৫৫৪ ঘণ্টা, সেপ্টেম্বর ২৯, ২০২২
সব অ্যাম্বাসেডর মিলে বললেও তত্ত্বাবধায়ক সরকারের অধীনে নির্বাচন হবে না

টাঙ্গাইল: আওয়ামী লীগের প্রেসিডিয়াম সদস্য কৃষিমন্ত্রী ড. মো. আব্দুর রাজ্জাক বলেছেন, আমেরিকার অ্যাম্বাসেডর বা অন্য কোনো দেশের অ্যাম্বাসেডর বা সব দেশের অ্যাম্বাসেডর মিলে বললেও তত্ত্বাবধায়ক সরকারের অধীনে নির্বাচন হবে না।   

তিনি বলেন, আমরা চাই, বিএনপিসহ ছোট বড় সব দলই নির্বাচনে অংশ গ্রহণ করুক।

সব দলের অংশগ্রহণ নিশ্চিত করতে শেষ দিন পর্যন্ত আমরা চেষ্টা করে যাবো।

বৃহস্পতিবার (২৯ সেপ্টেম্বর) দুপুরে টাঙ্গাইল জেলা আওয়ামী লীগের বর্ধিত সভায় প্রধান অতিথির বক্তব্যে তিনি এসব কথা বলেন।  

টাঙ্গাইল প্রেসক্লাবের বঙ্গবন্ধু অডিটোরিয়ামে আয়োজিত সভায় ড. আব্দুর রাজ্জাক বলেন, বিএনপি বলছে, তত্ত্বাবধায়ক সরকার না হলে নির্বাচনে যাবে না। সংবিধান অনুযায়ী বাংলাদেশে আর কোনো তত্ত্বাবধায়ক সরকার হবে না। সংবিধানে স্পষ্ট লেখা রয়েছে, নির্বাচন কমিশন নির্বাচন পরিচালনা করবে। সরকার নির্বাচন কমিশনকে সর্বাত্মক সহযোগিতা করবে। আজ বিএনপি যে মহড়া দিচ্ছে, লাঠির মধ্যে বাংলাদেশের পতাকা লাগিয়ে মিছিল ও সমাবেশ করছে, সব মিলিয়ে তারা সন্ত্রাসের দিকে যাচ্ছে। ২০১৩-১৫ সাল পর্যন্ত যেভাবে মোকাবিলা করেছি, আগামীতেও ঠিক একই ভাবে মোকাবিলা করবো ইনশাআল্লাহ।  

তিনি আরও বলেন, আমরা বিএনপিকে অনুমতি দিয়েছিলাম সভা করার জন্য। সরকারের সমালোচনা করুক। দেশে গণমাধ্যম রয়েছে। কোথাও কোনো বাধা নেই। তাদের তো কোনো সমস্যা নেই। তারপরও তারা কেন এ পরিস্থিতি সৃষ্টি করছে? এ পরিস্থিতি আমরা কোনোভাবেই হতে দেবো না। মানুষের জান-মালের নিরাপত্তা এবং দেশের উন্নয়নকে অব্যাহত রাখার জন্য আমাদের আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনী যা করা দরকার, তাই করবে।

মন্ত্রী বলেন, আমরা দেশে শান্তি চাই। আমরা চাই, দেশে সুষ্ঠু, সুন্দর ও গ্রহণযোগ্য নির্বাচন। এটি করার জন্য প্রধানমন্ত্রী প্রতিশ্রুতিবদ্ধ। আগে যাই হয়ে থাক, পরিস্থিতির কারণে হয়েছে। আমরা চেষ্টা করেছি, সুন্দর পরিবেশ রাখার জন্য। বিএনপির বাড়াবাড়ির জন্য সম্ভব হয়নি। আগামীতে আমরা চেষ্টা করবো, ছোট খাটো যেসব ঘটনা ঘটেছে, তা বিএনপির উসকানিমূলক বক্তব্যের কারণে। তারা পুলিশের ওপর ঝাঁপিয়ে পড়েছে। পুলিশ আত্মরক্ষার জন্য চেষ্টা করেছে। আমি মনে করি, বিএনপির মধ্যে শুভ বুদ্ধির উদয় হবে। তারা এ পথ থেকে নিবৃত হবে।

জেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি ফজলুর রহমান খান ফারুকের সভাপতিত্বে সভায় বক্তব্য দেন জেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক বীর মুক্তিযোদ্ধা সংসদ সদস্য জোয়াহেরুল ইসলাম (ভিপি জোয়াহের), সংসদ সদস্য ছানোয়ার হোসেন, সংসদ সদস্য আতোয়ার রহমান খান, সংসদ সদস্য তানভীর হাসান ছোট মনির, জেলা আওয়ামী লীগের সহ-সভাপতি আলমগীর খান মেনু ও শামসুল হক, যুগ্মসাধারণ সম্পাদক খন্দকার আশরাফউজ্জামান স্মৃতি ও শাহজাহান আনছারী, টাঙ্গাইল পৌরসভার মেয়র এসএম সিরাজুল হক আলমগীর।

জেলা আওয়ামী লীগের কার্যনির্বাহী পরিষদের সদস্য, উপজেলা ও সদর পৌরসভা আওয়ামী লীগের সভাপতি ও সাধারণ সম্পাদকরা বর্ধিত সভায় অংশ নেন।

বাংলাদেশ সময়: ১৫৪৮ ঘণ্টা, সেপ্টেম্বর ২৯, ২০২২
এসআই

বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম'র প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।
Alexa