ঢাকা, মঙ্গলবার, ২০ শ্রাবণ ১৪২৭, ০৪ আগস্ট ২০২০, ১৩ জিলহজ ১৪৪১

জাতীয়

ঈদের জামাতে করোনামুক্তির প্রার্থনা

সিনিয়র করেসপন্ডেন্ট | বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম
আপডেট: ২০২০-০৮-০১ ০১:০৩:৩২ পিএম
ঈদের জামাতে করোনামুক্তির প্রার্থনা ঈদজামাত/ছবি: শাকিল আহমেদ

ঢাকা: মহামারি করোনার সংক্রমণ থেকে রক্ষা পেতে জাতীয় মসজিদ বায়তুল মোকাররমে স্বাস্থ্যবিধি অনুসরণ করে ঈদুল আজহার ছয়টি জামাত অনুষ্ঠিত হয়েছে। প্রতিটি জামাত শেষে করোনা ভাইরাস থেকে বাংলাদেশসহ বিশ্বকে মুক্ত এবং আক্রান্ত ও মৃতদের জন্য দোয়া প্রার্থনা করা হয়েছে।

 

শনিবার (০১ আগস্ট) সকাল ৭টা থেকে শুরু করে বেলা সাড়ে ১১টা পর্যন্ত এই ছয়টি জামাতে দেশ-জাতির মঙ্গল কামনায় আল্লাহর কাছে প্রার্থনা করা হয়।

দোয়া প্রার্থনায় জাতীয় মসজিদের পেশ ইমামরা বলেন, আল্লাহ যারা ভাইরাসে আক্রান্ত হয়ে ইন্তেকাল করেছেন, তাদের আপনি শাহাদাতের মর্যাদা দান করে দিন। হে আল্লাহ, যারা অসুস্থ আছেন, দয়া করে তাদের শেফা দান করেন। এই মহামারি ও রোগ ব্যাধি থেকে আমাদের সবাইকে হেফাজত করে দিন। এই মহামারি থেকে বাংলাদেশসহ সারা বিশ্বকে আপনি মুক্তি দিন। এছাড়াও আগস্ট মাস উপলক্ষে বঙ্গবন্ধু ও তার পরিবারের জন্য দোয়া করা হয়।

নামাজ শেষে মুসল্লিরা জানান, পবিত্র ঈদের দিনে আমরা আল্লাহর কাছে দোয়া করেছি বিশ্ব যেন করোনামুক্ত হয়। এছাড়া আল্লাহপাক সব দুর্যোগ থেকে যেন আমাদের রক্ষা করেন এই প্রার্থনা করা হয়েছে। করোনার কারণে নামাজ শেষে ধর্মপ্রাণ মুসল্লিরা কোলাকুলি থেকে বিরত থাকলেও পরস্পরে ঈদের শুভেচ্ছা বিনিময় করেন।

এর আগে জাতীয় মসজিদে ঈদের নামাজ আদায় করতে রাজধানীর বিভিন্ন প্রান্ত থেকে মুসল্লিরা ছুটে আসেন। প্রতিটি জামাতে দেশের বরেণ্য ব্যক্তিরাও অংশ নেয়।

এদিকে সকাল ৭টায় বায়তুল মোকাররমে প্রথম জামাত অনুষ্ঠিত হয়। এতে ইমামতি করবেন বায়তুল মোকাররমের সিনিয়র পেশ ইমাম হাফেজ মুফতি মওলানা মো. মিজানুর রহমান।  এ সময় মুকাব্বির হিসেবে ছিলেন মসজিদের মুয়াজ্জিন হাফেজ ক্বারী কাজী মাসুদুর রহমান।

দ্বিতীয় জামাত সকাল ৭ টা ৫০ মিনিটে অনুষ্ঠিত হয়। দ্বিতীয় জামাতে ইমামতি করেন জাতীয় মসজিদের পেশ ইমাম হাফেজ মুফতি মুহিব্বুল্লাহিল বাকী নদভী। মুকাব্বির হিসেবে ছিলেন মসজিদের মুয়াজ্জিন হাফেজ ক্বারী হাবিবুর রহমান মেশকাত।
 
ঈদের তৃতীয় জামাত অনুষ্ঠিত হয় সকাল ৮টা ৪৫ মিনিটে। এতে ইমামতি করেন জাতীয় মসজিদের পেশ ইমাম হাফেজ মওলানা এহসানুল হক। মুকাব্বির হিসেবে ছিলেন মসজিদের মুয়াজ্জিন মওলানা ইসহাক।

ঈদের নামাজের চতুর্থ জামাত সকাল ৯টা ৩৫ মিনিটে। এতে ইমামতি করেন জাতীয় মসজিদের পেশ ইমাম মওলানা মহিউদ্দিন কাসেম। মুকাব্বির হিসেবে ছিলেন জাতীয় মসজিদের চিফ খাদেম মো. শহীদুল্লাহ। পঞ্চম জামাত অনুষ্ঠিত হয় সকাল সাড়ে ১০টায়। এ জামাতে ইমামতি করেন ইসলামিক ফাউন্ডেশনের মুহাদ্দিস হাফেজ মওলানা ওয়ালিয়ূর রহমান খান। মুকাব্বির হিসেবে ছিলেন জাতীয় মসজিদের খাদেম হাফেজ মো. আব্দুল মান্নান।

ঈদুল আজহার ষষ্ঠ ও সর্বশেষ জামাত অনুষ্ঠিত হয় বেলা ১১টা ১০ মিনিটে। এতে ইমামতি করেন ইসলামিক ফাউন্ডেশনের সাবেক উপ-পরিচালক মওলানা মুহাম্মদ আব্দুর রব মিয়া। মুকাব্বির হিসেবে জাতীয় মসজিদের খাদেম হাফেজ মো. আব্দুর রাজ্জাক উপস্থিত ছিলেন।

অপরদিকে ঈদের জামাতে সবাইকে নিজ নিজ জায়নামাজ নিয়ে এবং যথাযথ স্বাস্থ্যবিধি মেনে মসজিদে এসে নামাজ আদায়ের জন্য ইসলামিক ফাউন্ডেশনের পক্ষ থেকে বলা হয়।

বাংলাদেশ সময়: ১২৫৯ ঘণ্টা, আগস্ট ০১, ২০২০
এসএমএকে/এএটি

বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম'র প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।
Alexa