ঢাকা, শুক্রবার, ২৮ শ্রাবণ ১৪২৯, ১২ আগস্ট ২০২২, ১৩ মহররম ১৪৪৪

চট্টগ্রাম প্রতিদিন

নূতন সিংহ-বিনোদ বিহারীর নামে দুই বৃত্তি ইডিইউতে

নিউজ ডেস্ক | বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম
আপডেট: ১৫৩৪ ঘণ্টা, জুলাই ৭, ২০২২
নূতন সিংহ-বিনোদ বিহারীর নামে দুই বৃত্তি ইডিইউতে নূতন চন্দ্র সিংহ ও বিনোদ বিহারী চৌধুরী

চট্টগ্রাম: মুক্তিযুদ্ধে শহিদ নূতন চন্দ্র সিংহ ও বৃটিশবিরোধী আন্দোলনের অন্যতম বিপ্লবী বিনোদ বিহারী চৌধুরীকে শ্রদ্ধা জানিয়ে নতুন দুটো বৃত্তি চালু করেছে ইস্ট ডেল্টা ইউনিভার্সিটি (ইডিইউ)।  

বাংলাদেশে প্রথমবারের মতো শুরু হওয়া ডেটা এনালিটিক্স এন্ড ডিজাইন থিংকিং ফর বিজনেস এবং আধুনিকতম কারিকুলামে সাজানো এমএ ইন ইংলিশে ভর্তি হলেই শিক্ষার্থীরা এ দুই বৃত্তির অধীনে টিউশন ফি’তে ৭০ শতাংশ ছাড়।

বাংলাদেশের অন্যতম দুই কৃতি ব্যক্তিত্বকে সম্মান জানিয়ে গৃহিত এ উদ্যোগের জন্য ইডিইউকে স্বাগত জানিয়েছেন দেশের বিশিষ্টজনরা।

বাংলাদেশ হিন্দু-বৌদ্ধ-খৃষ্টান ঐক্য পরিষদের সাধারণ সম্পাদক অ্যাডভোকেট রাণা দাশগুপ্ত তার অনুভূতি ব্যক্ত করে বলেন, নিখাদ দেশপ্রেম ও মানবপ্রেমের সংকটের এ ক্রান্তিকালে ইস্ট ডেল্টা ইউনিভার্সিটি কর্তৃপক্ষ ঐতিহাসিক চট্টগ্রাম যুব বিদ্রোহের মহানায়ক মাস্টারদা সূর্য সেনের সহযোদ্ধা বিনোদ বিহারী চৌধুরী এবং নিঃস্বার্থ দেশপ্রেমিক সমাজসেবী শহিদ নূতন চন্দ্র সিংহের অমর স্মৃতিকে ভবিষ্যৎ প্রজন্মের কাছে চিরজাগরুক রাখার জন্য যে উদ্যোগ গ্রহণ করেছে তা শুধু প্রশংসনীয় নয়, অনন্যও বটে। কর্তৃপক্ষের এ উদ্যোগের সার্বিক সফলতা আন্তরিকতার সাথে কামনা করছি।

ইডিইউর এ উদ্যোগকে স্বাগত জানিয়ে বিশ্ববিদ্যালয় মঞ্জুরি কমিশনের (ইউজিসি) সদস্য অধ্যাপক ড. বিশ্বজিৎ চন্দ বলেন, বাংলাদেশের উচ্চশিক্ষা ক্ষেত্রে উল্লেখযোগ্য অবদান রেখে আসছে ইডিইউ। সম্প্রতি দেশের কৃতি ব্যক্তিত্বদের শ্রদ্ধা জানিয়ে শিক্ষার্থীদের বৃত্তি দেওয়ার যে উদ্যোগ তারা নিয়েছে, তা অত্যন্ত প্রশংসনীয়। এর মাধ্যমে শিক্ষার্থীরা আমাদের পূর্বসুরীদের অবদান সম্পর্কে জানতে পারবে এবং ভালো কাজের অনুপ্রেরণা পাবে।

বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রতিষ্ঠাতা ভাইস চেয়ারম্যান সাঈদ আল নোমান বলেন, বাংলার সুদীর্ঘ ইতিহাসের নানা সময়ে সমাজ ও দেশের প্রয়োজনে এগিয়ে এসেছেন, নেতৃত্বের ভার তুলে নিয়েছেন বিভিন্ন গুণী ব্যক্তিত্বরা। ভবিষ্যৎ প্রজন্মের কাছে তাদের অনেকেরই কৃতিত্বের কথা যথার্থভাবে তুলে ধরা প্রয়োজন। দেশ-জাতির প্রতি দায়িত্ববোধ থেকে ইডিইউ এমন কৃতি ব্যক্তিত্বদের নামে বিশেষ বৃত্তি এনেছে। নূতন চন্দ্র সিংহ ও বিনোদ বিহারীর সঙ্গে ব্যক্তিগত ঘনিষ্ঠতা ছিলো আমার বাবা, ইডিইউর প্রতিষ্ঠাতা ও চেয়ারম্যান আবদুল্লাহ আল নোমানের। তারই অনুপ্রেরণায় এ দুই কৃতি ব্যক্তিত্বের নামে বৃত্তির প্রস্তাব রাখি আমি। কেননা আমি মনে করি, প্রকৃত গুণীকে তার প্রাপ্য সম্মান না জানালে পরবর্তী প্রজন্মে এমন ব্যক্তিত্ব গড়ে ওঠার ধারাবাহিতা ও অনুপ্রেরণা তৈরি হয় না।

ডেটা অ্যানালিটিক্স এন্ড ডিজাইন থিংকিং ফর বিজনেস শীর্ষক বাংলাদেশের একমাত্র মাস্টার্স প্রোগ্রামে ভর্তি হলেই শিক্ষার্থীরা পাচ্ছে ‘নূতন চন্দ্র সিংহ স্কলারশিপ অ্যাওয়ার্ড’ এর অধীনে টিউশন ফি’তে ৭০ শতাংশ ছাড়। মুক্তিযুদ্ধে শহিদ নূতন চন্দ্র সিংহ চট্টগ্রামের রাউজানে সাধারণের সাহায্যার্থে প্রতিষ্ঠা করেছিলেন দাতব্য চিকিৎসালয়, স্কুল-কলেজ, যার সুবিধা এখনো পাচ্ছে জনসাধারণ। এছাড়াও তিনি বাংলাদেশের স্বাধীনতা সংগ্রামে রেখেছিলেন অতুলনীয় ও সাহসী ভূমিকা। তার এ অবদান বর্তমান প্রজন্মের কাছে তুলে ধরতে এবং শ্রদ্ধা জ্ঞাপনে এ বৃত্তির উদ্যোগ নিয়েছে ইডিইউ কর্তৃপক্ষ।

বৃটিশবিরোধী আন্দোলনের অন্যতম পুরোধা মাস্টারদা সূর্য সেনের বিপ্লবী বাহিনীর সদস্য হিসেবে কাজ করেছেন বিনোদ বিহারী চৌধুরী। চট্টগ্রামের জালালাবাদ যুদ্ধে বৃটিশ সৈনিকদের বিরুদ্ধে লড়াইয়ে অংশ নিয়েছিলেন বিনোদ বিহারী। এছাড়াও আজীবন, এমনকি বৃদ্ধ বয়সেও নানান রাজনৈতিক সংকটে, আন্দোলনে অংশ নিয়ে তরুণদের অনুপ্রাণিত করেছেন তিনি। তার সম্মানার্থে চালু হওয়া ‘বিপ্লবী বিনোদ বিহারী চৌধুরী স্কলারশিপ অ্যাওয়ার্ড’ এর অধীনে এমএ ইন ইংলিশে ভর্তি হওয়া নতুন শিক্ষার্থীরা পাচ্ছে টিউশন ফি’তে ৭০ শতাংশ ছাড়।

এ মহতি উদ্যোগের জন্য সাঈদ আল নোমান ও ইডিইউ পরিবারের প্রতি ধন্যবাদ জানিয়েছেন শহিদ নূতন চন্দ্র সিংহের দৌহিত্র রাজীব সিংহ। তিনি বলেন, ‘পারিবারিকভাবে আমরা নূতন চন্দ্র সিংহের স্মৃতি রক্ষার্থে নানা উদ্যোগ নিলেও, কোন প্রতিষ্ঠান এবারই প্রথম এমন উদ্যোগ। জাতির কৃতি ব্যক্তিদের আদর্শকে পরবর্তী প্রজন্মের মাঝে ছড়িয়ে দেয়ার এ অনন্য প্রচেষ্টার সার্থকতা কামনা করি। সাঈদ আল নোমানের সুনেতৃত্বে পরিচালিত ইস্ট ডেল্টা ইউনিভার্সিটি অন্যদের জন্য এক অনুসরণীয় দৃষ্টান্ত স্থাপন করেছে। ’

বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য অধ্যাপক মুহাম্মদ সিকান্দার খান বলেন, মুক্তিযোদ্ধা ও মুক্তিযোদ্ধার সন্তানের সমন্বয়ে গঠিত ইস্ট ডেল্টা ইউনিভার্সিটি ট্রাস্ট বিশ্ববিদ্যালয়কে পরিচালনা করছেন মুক্তিযুদ্ধের চেতনায়। তারা দেশপ্রেম ও স্বদেশের মঙ্গল কামনায় নানা রকম সুযোগ-সুবিধায় সমৃদ্ধ করেছেন বিশ্ববিদ্যালয়কে। ইডিইউ কর্তৃপক্ষের বাংলার ইতিহাসের কৃতি ব্যক্তিত্বদের সম্মানিত করার উদ্যোগ এবারই প্রথম নয়। এর আগে বাংলাদেশে প্রথমবারের শুরু হওয়া মাস্টার অব পাবলিক পলিসি অ্যান্ড লিডারশিপ প্রোগ্রামের শিক্ষার্থীদের জন্য ‘শের-ই-বাংলা এ কে ফজলুল হক স্কলারশিপ অ্যাওয়ার্ড’ দিয়েছে ইডিইউ।

বাংলাদেশ সময়: ১৫৩০ ঘণ্টা, জুলাই ৭, ২০২২
এসি/টিসি

বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম'র প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।
Alexa