ঢাকা, বুধবার, ২৪ অগ্রহায়ণ ১৪২৮, ০৮ ডিসেম্বর ২০২১, ০৩ জমাদিউল আউয়াল ১৪৪৩

অর্থনীতি-ব্যবসা

গত এক বছরে রপ্তানি আয় বেড়েছে

স্টাফ করেসপন্ডেন্ট | বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম
আপডেট: ০৩৩৫ ঘণ্টা, জুলাই ২১, ২০১০

ঢাকা,  অর্থবছর  ২০০৮-৯ সময়ের তুলনায় অর্থবছর ২০০৯-১০ মোট রপ্তানি আয় বেড়েছে ৪.১১ শতাংশ। একক মাস হিসেবে ২০০৯ এর জুন থেকে ২০১০ জুনে রপ্তানি বেশি বেড়েছে ২১.২৪ শতাংশ।



সূত্র মতে, ২০০৯-১০ অর্থবছরের জুলাই-জুন সময়ের প্রকৃত রপ্তানি আয় হয়েছে ১৬২০৪.৬৫ মিলিয়ন মার্কিন ডলার। যা  ২০০৮-৯  অর্থবছরের  জুলাই-জুন সময়ের রপ্তানি আয় ১৫৫৬৫.১৯ মিলিয়ন মার্কিন ডলারের  তুলনায় ৪.১১ শতাংশ বেশী। তবে জুন ২০১০ মাসের রপ্তানি আয় ১৭২৩.৫২ মিলিয়ন মার্কিন ডলার, যা বিগত জুন ২০০৯ মাসের রপ্তানি আয় ১৪২১.৫৫ মিলিয়ন মার্কিন ডলার চেয়ে ২১.২ শতাংশ বেশি ।

এদিকে ওভেন গার্মেন্টস, নিটওয়্যার ও হোম টেক্সটাইলসহ বেশ কিছু পণ্যে গত বছরের একই সময়ের তুলনায় রপ্তানি আয় কমেছে বলে বাণিজ্য মন্ত্রণালয় সূত্রে জানাগেছে

বেশি হারে যেসব পণ্যে প্রবৃদ্ধি কমেছে সেগুলো হচ্ছে; চা  ৫৫.৯৪ শতাংশ, রাসায়নিক সার ৬৭.০৯ শতাংশ, ক্যামেরা পার্টস ৩৬.৪০,  ফ্রোজেন ফুড ১৫.৬৫ শতাংশ, সিরামিক প্রোডাক্টস ১১.৪১ শতাংশ, টেক্সটাইল ফেব্রিক্স ১২.৫৬ শতাংশ এবং হোম টেক্সটাইল ১৩.৩৪ শতাংশ  ।

মূল্যের বিবেচনায় গত বছরের একই সময়ের তুলনায় জুলাই-মার্চ মাসে মোট রপ্তানি আয় কমেছে ১ দশমিক ৩০ শতাংশ এবং পরিমাণগত দিক দিয়ে রপ্তানি বেড়েছে ০ দশমিক ৫০ শতাংশ। পরিমাণগত দিক দিয়ে প্রাথমিক পণ্যে আয় বেড়েছে ৬.৪৮ শতাংশ এবং মূল্যের বিবেচনায় প্রাথমিক পণ্যে আয় কমেছে ৫ দশমিক ৯০ শতাংশ। তৈরী পণ্যে পরিমাণগত দিক দিয়ে রপ্তানি বেড়েছে ০ দশমিক ১৬ শতাংশ এবং মূল্যের বিবেচনায় রপ্তানি কমেছে ১.০৪ শতাংশ।

এ সময়ে যে সব খাতে আগের অর্থবছরের চেয়ে বেশি আয় হয়েছে সেগুলো হচ্ছে; জুট গুডস ১৯৯.২১ মিলিয়ন মার্কিন ডলার, টেরি টাওয়েল ৯৮.০৪, পাট (র’ জুট) ১০২.৮৪, বাইসাইকেল ৬১.৮৪, এগ্রোপ্রসেসড ফুড ৩৪.২৬, ফার্মাসিউটিক্যালস ২৭.৭২, কাট ফাওয়ার ২৪.৩৬, কম্পিউটার সার্ভিসেস ২১.৮৫, চামড়ার ব্যাগ ১২.৮৩, ইলেক্ট্রনিক্স ১.০০ এবং আয়রন চেইন ১.২৩ মিলিয়ন মার্কিন ডলার।

যে সমস্ত পণ্যে গত বছরের একই সময়ের তুলনায় রপ্তানি প্রবৃদ্ধি বেশি হয়েছে সেগুলো হচ্ছে; আয়রন চেইন ২৬৯.১১শতাংশ, মেলামাইন টেবিলওয়্যার ১৯২.৫০ শতাংশ, পেট্রোলিয়আম বাই প্রোডাক্টস ৮৫.৮২শতাংশ,পাট ৫১.২৩ শতাংশ, জুট গুডস ৬০.৮১ শতাংশ, বাইসাইকেল ৩২.১৮ শতাংশ, ইলেকট্রনিক্স ৩৪.০০ শতাংশ, অন্যান্য প্রাথমিক পণ্য ৫.২১ শতাংশ, অ্যাগ্রো-প্রসেসড ফুড ২২.৪৫ শতাংশ, লেদার ব্যাগস ১৬.৬৮ শতাংশ, টেরি টাওয়েল ২২.১৭ শতাংশ এবং কাট ফাওয়ার ১৩.৩০শতাংশ ।

বাংলাদেম সময় ২০২৮ ঘন্টা, জুলাই ২০, ২০১০।

বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম'র প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।
Alexa