ঢাকা, বুধবার, ১৫ চৈত্র ১৪২৯, ২৯ মার্চ ২০২৩, ০৬ রমজান ১৪৪৪

জাতীয়

প্লেন মেরামতের জন্য আড়াই ঘণ্টা বন্ধ ছিল সিলেটের রানওয়ে

সিনিয়র করেসপন্ডেন্ট | বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম
আপডেট: ১৮৩৮ ঘণ্টা, ফেব্রুয়ারি ৩, ২০২৩
প্লেন মেরামতের জন্য আড়াই ঘণ্টা বন্ধ ছিল সিলেটের রানওয়ে

সিলেট: সিলেট ওসমানী আন্তর্জাতিক বিমানবন্দরে উড্ডয়নকালে প্লেনের চাকা বিস্ফোরণের ঘটনায় আড়াই ঘণ্টা বন্ধ ছিল রানওয়ে। এ কারণে ম্যানচেস্টার ফ্লাইট সময় মতো ছেড়ে যেতে পারেনি।

এছাড়া ইউএস-বাংলা ও নভোএয়ারের ফ্লাইট ঢাকা থেকে ওসমানী বিমানবন্দরের উদ্দেশ্যে ছেড়ে আসতে পারেনি।  

শুক্রবার (৩ ফেব্রুয়ারি) সিলেট ওসমানী আন্তর্জাতিক বিমানবন্দরের পরিচালক মো. হাফিজ আহমেদ বাংলানিউজকে এ তথ্য নিশ্চিত করেছেন।  

তিনি বলেন, শুক্রবার (৩ ফেব্রুয়ারি) বাংলাদেশ বিমানের ফ্লাইট (বিজি-৬০২) ১২টা ৫৫ মিনিটে ছেড়ে যাওয়ার কথা ছিল। এরপর ১টা ২০ মিনিটে মিনিটের দিকে বিমানটি উড্ডয়নের (টেকঅফ) জন্য রানওয়েতে নিয়ে যাওয়া হয়। ১৪৮ জন যাত্রী নিয়ে বিমানটি উড্ডয়নের কথা ছিল। চাকা ব্লাস্ট হয়ে যাওয়ায় পাইলট খুবই দক্ষতার সঙ্গে টেকঅফের এক হাজার মিটারের মধ্যে বিমানটি উড্ডয়ন না করে রানওয়েতে থামিয়ে দেন। পরে যাত্রীদের নিরাপদে নামিয়ে আনা হয়। এ কারণে দুই ঘণ্টা ২৭ মিনিট বিমানবন্দরের রানওয়ে বন্ধ থাকায় বিমান ওঠানামা করতে পারেনি।  

তিনি আরও বলেন, দুর্ঘটনার কবল থেকে রক্ষা পাওয়া যাত্রীদের পরবর্তীতে অন্য ফ্লাইটে গন্তব্যে পৌঁছানো হয়।  

তবে বিমানের চাকা বিস্ফোরণের বিষয়ে জানতে চেয়ে বাংলাদেশ বিমান সিলেটে স্টেশন ম্যানেজার আব্দুস সাত্তারের সঙ্গে যোগাযোগ করা হলেও তিনি ফোন রিসিভ করেননি।

এ বিষয়ে বিমানবন্দরের পরিচালক মো. হাফিজ আহমেদ বলেন, বিমানটি টেকঅফের আগে প্রকৌশলীরা ভালোভাবে খতিয়ে দেখেন। তবে প্রকৌশল শাখার গাফিলতি কিংবা দক্ষতার বিষয়টি দেখছেন না তিনি। কেননা, নতুন চাকাও বিস্ফোরণ ঘটে। তবে তাৎক্ষণিক ফ্লাইটটি রানওয়েতে আটকে দিতে পারায় ও যাত্রীরা অক্ষত থাকায় পাইলটের দক্ষতার ভূয়সী প্রশংসা করেন তিনি।

ওসমানী আন্তর্জাতিক বিমানবন্দরের সরকারী পরিচালক মো. শহিদুল ইসলাম বলেন, বিকেল সাড়ে ৫টা পর্যন্ত চাকা বিস্ফোরিত হওয়া বাংলাদেশ বিমানের একটি ফ্লাইট (বিজি-৬০২) মেরামতের কাজ চলেছে। তবে বর্তমানে বিমান বন্দরে প্লেন চলাচল করছে। বিকাল ৪টা ১০ মিনিটে বিজি-২০৮ ঢাকার উদ্দেশ্যে সিলেট ছেড়ে গেছে।  

তার জানা মতে, এমন ঘটনায় কোনো তদন্ত কমিটি হয়নি বলেও নিশ্চিত করেন এয়ারপোর্টের এ পরিচালক।

এদিকে, এমন ঘটনার জন্য বিমানের প্রকৌশল শাখার গাফিলতি থাকতে পারে বলে অভিযোগ যাত্রীদের। ঘটনাটি খতিয়ে দেখার জোর দাবি জানিয়েছেন তারা।

বাংলাদেশ সময়: ১৮৩৫ ঘণ্টা, ফেব্রুয়ারি ০৩, ২০২৩
এনইউ/এসআইএ

বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম'র প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।
Alexa