ঢাকা, শনিবার, ১১ ফাল্গুন ১৪৩০, ২৪ ফেব্রুয়ারি ২০২৪, ১৩ শাবান ১৪৪৫

জাতীয়

সম্পত্তি ‘লিখে নিয়ে’ পালালেন ছেলে, বাবার মরদেহ দাফনে বাধা ৫ মেয়ের

সিনিয়র করেসপন্ডেন্ট  | বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম
আপডেট: ২০০২ ঘণ্টা, নভেম্বর ৩০, ২০২৩
সম্পত্তি ‘লিখে নিয়ে’ পালালেন ছেলে, বাবার মরদেহ দাফনে বাধা ৫ মেয়ের

খুলনা: সম্পত্তির জন্য খুলনার পাইকগাছা উপজেলার গদাইপুর ইউনিয়নের সাকাত গাজীর (৭০) নামে এক ব্যক্তির মরদেহ দাফনে বাধা দিয়েছিলেন তার পাঁচ মেয়ে। অবশেষে বৃহস্পতিবার (৩০ নভেম্বর) দুপুরে পুলিশের হস্তক্ষেপে সাকাত গাজীর মরদেহ দাফন করা হয়।

খুলনার পাইকগাছা উপজেলার গদাইপুর ইউনিয়নের ঘোষাল গ্রামে ছেলের নামে সম্পত্তি লিখে দেওয়ায় বাবার মরদেহ দাফন করতে পাঁচ মেয়ের বাধা দেন বলে জানা গেছে। এ ঘটনায় ছেলে মামুন মরদেহ বাড়িতে রেখে স্ত্রী-সন্তানকে নিয়ে পালিয়েছেন।

জানা গেছে, সাকাত গাজী কিডনিজনিত রোগে আক্রান্ত হয়ে অসুস্থ হয়ে পড়লে ছেলে মামুন গাজী তাকে খুলনা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে ভর্তি করেন। সাকাত গাজী হাসপাতালে থাকাকালে কৌশলে সম্পত্তি লিখে নেন মামুন।

গত মঙ্গলবার (২৮ নভেম্বর) ভোর ৪টায় খুলনা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে মারা যান সাকাত গাজী। মরদেহ বুধবার (২৯ নভেম্বর) সকাল ৮টায় বাড়িতে নিয়ে আসা হয়। গোসলের সময় সাকাত গাজীর হাতের বুড়ো আঙুলে টিপ দেওয়ার ছাপ পাওয়া যায়। তখন দাফনে বাধা দেন সাকাতের মেয়েরা। খবর পেয়ে বুধবার সন্ধ্যায় পুলিশ এলে মামুন তার পরিবার নিয়ে পালিয়ে যান।

এ বিষয়ে সাকাত গাজীর মেয়ে লাবনী আক্তার বলেন, আমার ভাই আব্বার অসুস্থতার সুযোগে সম্পত্তি লিখে নিয়েছেন।

এলাকাবাসী জানান, ছেলেকে সম্পত্তি লিখে দেওয়ায় সাকাত গাজীর পাঁচ মেয়ে ক্ষুব্ধ হয়ে বাবার মরদেহ দাফনে বাধা দেন। এমনকি সম্পত্তির সুরাহা না হওয়া পর্যন্ত মরদেহ দাফন করতে দেবেন না বলে জানান মেয়েরা।

পাইকগাছা থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মো. রফিকুল ইসলাম বলেন, মেয়েদের বুঝিয়ে বৃহস্পতিবার দুপুরেই বাবার দাফনের ব্যবস্থা করা হয়েছে। ছেলে যদি প্রতারণা করে কোনো কিছু করে থাকেন, তাহলে আইনগতভাবে সাহায্য করার আশ্বাস দিয়েছি। ছেলেকে আমরা খুঁজছি ঘটনাটা কী ঘটলো জানার জন্য। যতদূর শুনেছি, আরও তিন মাস আগে তিনি বাবার কাছ থেকে সম্পত্তি লিখে নিয়েছেন। তবে তার ভাষ্য, বাবাই নাকি তাকে দিয়েছেন। জমি বেশি না, তবে বাজারের পাশে বলে মূল্য বেশি।

বাংলাদেশ সময়: ১৯৪৭ ঘণ্টা, নভেম্বর ৩০, ২০২৩
এমআরএম/এইচএ/

বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম'র প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।