ঢাকা, মঙ্গলবার, ১ ভাদ্র ১৪২৯, ১৬ আগস্ট ২০২২, ১৭ মহররম ১৪৪৪

জাতীয়

গোবর-সোডা আর লাল সেমাইয়ে তৈরি হচ্ছিল সস

ডিস্ট্রিক্ট করেসপন্ডেন্ট | বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম
আপডেট: ১৬৫২ ঘণ্টা, জুলাই ৫, ২০২২
গোবর-সোডা আর লাল সেমাইয়ে তৈরি হচ্ছিল সস

সিরাজগঞ্জ: সিরাজগঞ্জের উল্লাপাড়া উপজেলার একটি মশলা কারখানায় গরুর গোবর, সোডা আর লাল সেমাইয়ের সঙ্গে সস পাউডার মিশিয়ে তৈরি করা হচ্ছিল খাবার সস। এছাড়া পঁচা-গলিত কাঁচা মরিচে কাপড়ে মেশানো লাল রঙ দিয়ে গুঁড়া মরিচ এবং একই রঙ দিয়ে গুঁড়া হলুদ তৈরি করা হচ্ছিল।

মঙ্গলবার (৫ জুলাই) জাতীয় ভোক্তা অধিকার সংরক্ষণ অধিদপ্তরের অভিযানে মেলে এমনই এক কারখানার খোঁজ। এসব অভিযোগে ওই প্রতিষ্ঠানকে সিলগালা করার পাশাপাশি ৫০ হাজার টাকা জরিমানা করেছেন ভোক্তা অধিকার সংরক্ষণ অধিদপ্তর।

সিরাজগঞ্জের সহকারী পরিচালক মাহমুদ হাসান রনির নেতৃত্বে উপজেলার সলঙ্গা থানাধীন পুরান বেড়া এলাকায় এ অভিযান চালানো হয়। অভিযানের বিষয়টি টের পেয়ে মালিক আব্দুল খালেক ও তার কর্মচারিরা পালিয়ে গেলেও স্থানীয় মুরুব্বীরা জরিমানার টাকা পরিশোধ করেন।

সহকারী পরিচালক মাহমুদ হাসান রনি বাংলানিউজকে বলেন, আসন্ন কোরবানি ঈদকে সামনে রেখে ভেজাল হলুদ-মরিচের গুঁড়া তৈরি করা হচ্ছিল এমন তথ্যের ভিত্তিতে ওই মশলা কারাখানায় অভিযান চালানো হয়। অভিযানের বিষয়টি টের পেয়ে কারখানার মালিক ও কর্মচারিরা পালিয়ে যায়। পরে সেখানে দেখা যায় পঁচা-গলিত কাঁচা মরিচের সঙ্গে কাপড়ে মেশানো লাল রঙ দিয়ে তৈরি করা হচ্ছিল মরিচের গুঁড়া। হলুদের গুঁড়াতেও একই রঙ মেশানো হচ্ছিল। সবচেয়ে দুঃখজনক বিষয় হচ্ছে তারা গরুর গোবর, সোডা, লাল রঙের সেমাইয়ে মেয়াদহীন সস পাউডার মিশিয়ে তৈরি করছিল খাবার সস।

তিনি আরও জানান, অভিযানে ওই কারখানাটি সিলগালা করা হয়েছে এবং প্রতিষ্ঠানের মালিককে ৫০ হাজার টাকা জরিমানা করা হয়। তবে সংশ্লিষ্টরা পালিয়ে যাওয়ায় গ্রামের মুরুব্বীরা জরিমানার টাকা পরিশোধ করেন। এছাড়া পঁচা মরিচসহ অস্বাস্থ্যকর সব কেমিক্যাল ঘটনাস্থলেই ধ্বংস করা হয়।

বাংলাদেশ সময়: ১৬৫১ ঘণ্টা, জুলাই ০৫, ২০২২
এফআর

বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম'র প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।
Alexa