ঢাকা, বুধবার, ২৪ অগ্রহায়ণ ১৪২৮, ০৮ ডিসেম্বর ২০২১, ০৩ জমাদিউল আউয়াল ১৪৪৩

খেলা

সিরিজ নির্ধারণী ম্যাচে ইংল্যান্ডের কাছে বাংলাদেশের ১৪৪ রানে হার

স্পোর্টস ডেস্ক | বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম
আপডেট: ০৫৩৪ ঘণ্টা, জুলাই ১২, ২০১০
সিরিজ নির্ধারণী ম্যাচে ইংল্যান্ডের কাছে বাংলাদেশের ১৪৪ রানে হার

বার্মিংহ্যাম: ন্যাটওয়েস্ট সিরিজ নির্ধারণী ম্যাচে ইংল্যান্ডের কাছে ১৪৪ রানে হেরেছে  বাংলাদেশ। জয়ের জন্য ৩৪৮ রানের লক্ষ্যে ব্যাট করতে নেমে বাংলাদেশ ৪৫ ওভারে ২০৩ রান করে অল-আউট হয়ে যায়।

ফলে ২-১ ব্যবধানে সিরিজ জিতে নেয় স্বাগতিক ইংল্যান্ড।

এজবাস্টনে সিরিজের তৃতীয় একদিনের ম্যাচে ইংলিশদের বিশাল ইনিংস তাড়া করতে গিয়ে মাত্র ২৪ রানেই বিদায় নেন দুই উদ্বোধনী ব্যাটসম্যান তামিম ইকবাল ও ইমরুল কায়েস।

লুক রাইটের হাতে ধরা পড়েন তামিম। অন্যদিকে উইকেট রক্ষক কিসওয়েটারের তালুবন্দি হন ইমরুল। দুটি উইকেটই নেন আজমল শাহজাদ।

তৃতীয় উইকেট জুটিতে জুনায়েদ সিদ্দিকী ও জহুরুল ইসলাম দেখেশুনে খেলতে থাকেন। কিন্তু দলীয় ৬৪ রানে ব্রেসনানের বলে দুর্দান্ত ক্যাচ নিয়ে জুনায়েদকে সাজ ঘরে পাঠান লুক রাইট। পতন হওয়া পরবর্তী উইকেটগুলোর মধ্যে জহুরুল ২৭, সাকিব ৬, আশরাফুল ১৩ ও মাশরাফি ১৪ রান করেন।

এর আগে প্রথমে ব্যাট করে উদ্বোধনী ব্যাটসম্যান অ্যান্ড্রু স্ট্রাউস ও জনাথন ট্রটের শতকের সুবাদে নির্ধারিত ৫০ ওভারে সাত উইকেট হারিয়ে ৩৪৭ রান তোলে ইংলিশরা।

টস হেরে ব্যাট করতে নামে ইংল্যান্ড। শুরুতেই স্বাগতিকদের ব্যাটিং লাইনে আঘাত হানে সফরকারীরা। মাত্র ১ রানেই উদ্বোধনী ব্যাটসম্যান ক্রেগ কিসওয়েটারকে বোল্ড করে সাজ ঘরে ফেরান বাংলাদেশ দলপতি মাশরাফি বিন মর্তুজা। এরপর ধীরেই এগোতে থাকে স্বাগতিকদের ইনিংস।  

ওয়ান ডাউনে ব্যাটিংয়ে নামা ট্রটকে সঙ্গে নিয়ে দেখে শুনে খেলতে থাকেন অপর উদ্বোধনী ব্যাটসম্যান স্ট্রাউস। তবে ২৫ ওভার যেতেই মারমুখী ভূমিকায় অবতীর্ণ হন তারা। এই দুই ব্যাটসম্যান ৪০ ওভার অবিচ্ছিন্ন থেকে ২৫০ রানের জুটি গড়ে তোলেন। দলীয় ২৫১ রানে আরো দুটি উইকেট হারায় ইংলিশরা। মাশরাফির শিকার হয়ে সাজঘরে ফেরেন ট্রট (১১০) ও লুক রাইট (০)।  

দ্রুত রান তুলতে গিয়ে এরপরে নিয়মিতই উইকেট হারাতে থাকে ইংল্যান্ড। ২৭২ রানে চতুর্থ উইকেট হারায়। কলিংউডকে আশরাফুলের ক্যাচে পরিণত করেন পেসার রুবেল হোসেন। আট রান বাদেই ইয়ন মর্গানের উইকেটটি নেন শফিউল ইসলাম। তাঁকে তালুবন্দি করেন তামিম।

দলীয় ২৮৩ রানে ফিরে যান স্ট্রাউসও। রুবেলের বলে ডিপ পয়েন্টে ক্যাপ দিলে সেটি লুফে নেন সাকিব আল হাসান। ইংলিশদের সপ্তম উইকেটের পতন ঘটে ২৯৭ রানে। শফিউলের বলে তামিমে হাতে ক্যাচ দিয়ে সাজঘরে ফেরেন টিম ব্রেসনান।

তবে মাইকেল ইয়ার্ডিকে সঙ্গে নিয়ে সফরকারী বোলারদের পেটাতে থাকেন রবি বোপারা। অষ্টম উইকেট জুটিতে আরো ৫০ রান যোগ করেন এই দুই ব্যাটসম্যান।

স্ট্রাউস ১৬টি চার ও পাঁচ ছক্কার সাহায্যে করেন ১৫৪ রান, ১৪০ বল খেলে। অন্যদিকে কোনো ওভার বাউন্ডারি ছাড়াই ১১০ রান করেন ট্রট। বলকে ১২ বার সীমানা ছাড়া করেন তাঁর ইনিংসে। এছাড়া মাত্র ১৬ বলে দু’টি চার ও ৪টি ছয়ের মারে ৪৫ রান করে অপরাজিত থাকেন রবি বোপারা।

বোলারদের রান খরচের দিনে একমাত্র সফল অধিনায়ক মাশরাফি। ৩১ রান দিয়ে তিনটি উইকেট তুলে নেন তিনি। এছাড়া ৬১ রান দিয়ে রুবেল হোসেন দুটি এবং ৯৭ রান খরচে শফিউল দুই উইকেট পান।

সিরিজের প্রথম ম্যাচে বাংলাদেশকে ৬ উইকেটে হারায় ইংল্যান্ড। তবে দ্বিতীয় ম্যাচে ৫ রানে জিতে ১-১ এ সমতায় ফেরে সফরকারীরা।

বাংলাদেশ সময়: ২১৫৫ ঘন্টা, জুলাই ১২, ২০১০

বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম'র প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।
Alexa