ঢাকা, শুক্রবার, ২০ মাঘ ১৪২৯, ০৩ ফেব্রুয়ারি ২০২৩, ১১ রজব ১৪৪৪

কৃষি

মন মজাতে বাজারে টসটসে লিচু

শরীফ সুমন, সিনিয়র করেসপন্ডেন্ট | বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম
আপডেট: ০৭৪৩ ঘণ্টা, মে ২২, ২০১৭
মন মজাতে বাজারে টসটসে লিচু রাজশাহী বাজারে টসটসে লাল বোম্বাই জাতের লিচু- বাংলানিউজ

রাজশাহী: কদিন আগেও লাল টসটসে লিচু শোভা ছড়াচ্ছিল গাছে। শরীরময় সিঁদুর ছিটানো লাল আবরণ, তার মধ্যে কমলা রঙের ছোপ। জ্যৈষ্ঠের কাঠফাটা রোদে সেই সৌন্দর্য হারানোর ভয়ে লালাভ লিচুগুলো আজই নেমেছে বাঁশের গোল গোল ঝুড়িতে।

মধুমাস জ্যৈষ্ঠের ১০ দিন আগেই বাজারে দেখা গিয়েছিল গুটি জাতের লিচু। তবে স্বাদে টক হওয়ায় ওই লিচুতে আগ্রহ ছিলো না ক্রেতাদের।

কেবল পরিবারে শিশুদের মুখে নতুন ফলের স্বাদ দিতেই কেনা। তবে জ্যৈষ্ঠের প্রথম সপ্তাহ শেষেই বাজারে হাজির বোম্বাই জাতের লিচু। অল্প হলেও আসতে শুরু করেছে মোজাফ্ফরপুরী ও বেদনা লিচুও। ফলে লিচুর জন্য বছরের অপেক্ষার অবসান ঘটেছে।

জ্যৈষ্ঠ শুরুর আগেই রাজশাহীর বাজারে লিচুর দেখা মিললেও তাতে মন ভোলেনি কারও। আজকের বাজারের বোম্বাই লিচুতেই মন মজেছে সবার। সকাল থেকে লিচুর বাজারে তাই ভিড় বাড়ছে সব শ্রেণীর ক্রেতার। অল্প সময় গাছে ও বাজারে থাকে বলে লিচুকে অতিথি ফল বলেন কৃষি বিজ্ঞানীরা। তাই সময়ের মধ্যেই রসালো এই মৌসুমী ফলের স্বাদ জিভে চাখতে উদগ্রীব হয়ে উঠেছেন ক্রেতারাও।
রাজশাহী বাজারে টসটসে লাল বোম্বাই জাতের লিচু- বাংলানিউজ
তবে রাজশাহীর পাইকারি ও খুচরা ব্যবসায়ীরা বলছেন, লিচুর আমদানি এবার গতবারের চেয়ে কম। এরই মধ্যে তিনদফা কালবৈশাখী ঝড় বয়ে গেছে। এর উপর টানা তাপদাহের কারণে অনেক লিচু শুকিয়ে পড়ে গেছে বাগানেই। তাই বোম্বাই জাতের লিচু একটু আগেই নামানো হচ্ছে। এতে দাম ও লাভের অঙ্ক দুটোই এবার কমে গেছে তাদের। তাই ক্রেতাদের একটু বেশি দামেই কিনতে হবে এই লিচু।

রাজশাহীর শালবাগান বাজার এলাকার ফল ব্যবসায়ী সিরাজুল ইসলাম বাংলানিউজকে বলেন, বোম্বাই জাতের লিচু ভাঙা হয়েছে। বাজারে তাই সকাল থেকেই কাক্ষিত এই ফল মিলছে। এই লিচু আকারে বড় ও স্বাদে মধুর মতোই মিষ্টি। আর বিচি ছোট হওয়ায় লিচুটি হয় অনেক বেশি মাংসল।

এজন্য ক্রেতাদের মধ্যে বছরজুড়ে অপেক্ষা থাকে বোম্বাই জাতের লিচুর জন্যই। তবে পরিমাণে কম হলেও বাজারে আসতে শুরু করেছে মোজাফ্ফরপুরী ও বেদনা জাতের লিচুও। আগামী সপ্তাহে এই জাতের আরও ভালো লিচু বাজারে নামবে।
রাজশাহী বাজারে টসটসে লাল বোম্বাই জাতের লিচু- বাংলানিউজ
সিরাজুল ইসলাম বলেন, বাজারে গুটিজাতের প্রতি একশ’ লিচু বিক্রি হচ্ছিল ২৮০ থেকে ৩০০ টাকায়। এখন বোম্বাই লিচু বিক্রি হচ্ছে সাড়ে ৩শ’ থেকে ৪শ’ টাকায়। এই দাম ক্রেতাদের কাছে একটু বেশি মনে হলেও ফলন কম হওয়ার ল‍াভ কিন্তু খুবই কম।

সাহেব বাজার এলাকার লিচু ব্যবসায়ী ফরিদ হোসেন বাংলানিউজকে বলেন, আবহাওয়া এতোটা রুক্ষ না হলে এবার রাজশাহীতে লিচুর বাম্পার ফলন হতো। রাজশাহী বাজারে সবেমাত্র বোম্বাই জাতের লিচু আসতে শুরু করেছে। এসব লিচু রাজশাহীর পার্শ্ববর্তী চারঘাট, বাঘা, পুঠিয়া ও নওহাটার এলাকারই বেশি। এছাড়া মহানগরীর ছোট বনগ্রাম, বড় বনগ্রাম, কাশিয়াডাঙ্গা, দামকুড়া, নওদাপাড়া, বায়া, রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয় এলাকাসহ শ্যামপুর, বুধপাড়া ও ফল গবেষণার পার্শ্বতবর্তী এলাকার লিচুও রয়েছে।

রজশাহী কৃষি সম্প্রসারণ অধিদফতরের উপ-পরিচালক (ডিডি) দেব দুলাল ঢালি বাংলানিউজকে বলেন, লিচু হজমের জন্য বেশ উপকারী। এছাড়া স্বাদে অতুলনীয় রসালো এই মৌসুমী ফলের আরও অনেক গুণ রয়েছে। এবছর রাজশাহীতে লিচু আবাদের লক্ষ্যমাত্রা ধরা হয়েছিল ৩শ’ ৯৫ হেক্টর জমিতে।

যার গড় ফলন প্রতি হেক্টরে ৮ মেট্রিক টন। কিন্তু এবারের আবহাওয়ায় লিচুর কিছুটা ক্ষতি হয়েছে। যে কারণে বাম্পার ফলন হয়তো হবে না। তবে যেটুকু হবে চাহিদা মিটিয়েও স্থানীয় কৃষকরা তা ঢাকাসহ বিভিন্ন স্থানে বাজারজাত করতে পারবেন বলে জানান কৃষি বিভাগের এই শীর্ষ কর্মকর্তা।

বাংলাদেশ সময়: ১৩৪২ ঘণ্টা, মে ২৮, ২০১৭
এসএস/জিপি/জেডএম

বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম'র প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।
Alexa