ঢাকা, শনিবার, ১ কার্তিক ১৪২৮, ১৬ অক্টোবর ২০২১, ০৮ রবিউল আউয়াল ১৪৪৩

শিল্প-সাহিত্য

‘বঙ্গবন্ধু-বাপু ডিজিটাল প্রদর্শনী’র উদ্বোধন

স্টাফ করেসপন্ডেন্ট | বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম
আপডেট: ১৪২৩ ঘণ্টা, সেপ্টেম্বর ২৫, ২০২১
‘বঙ্গবন্ধু-বাপু ডিজিটাল প্রদর্শনী’র উদ্বোধন মঞ্চে শিক্ষামন্ত্রী ডা. দীপু মনিসহ অন্যরা। ছবি: জিএম মুজিবুর

ঢাকা: জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান ও ভারতের মহাত্মা গান্ধীর জীবনী-নির্ভর তথ্যচিত্র নিয়ে ‘বঙ্গবন্ধু-বাপু ডিজিটাল প্রদর্শনী’র উদ্বোধন করা হয়েছে।

শনিবার (২৫ সেপ্টেম্বর) সকালে রাজধানীর সেগুনবাগিচায় শিল্পকলা একাডেমিতে এ প্রদর্শনীর উদ্বোধন করেন শিক্ষামন্ত্রী ডা. দীপু মনি।



সংস্কৃতি সচিব মো. আবুল মনসুরের সভাপতিত্বে এ অনুষ্ঠানে বিশেষ অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন সংস্কৃতি প্রতিমন্ত্রী কে এম খালিদ ও ভারতীয় হাইকমিশনার বিক্রম দোরাইস্বামী।  

অনুষ্ঠানে স্বাগত বক্তব্য দেন বাংলাদেশ শিল্পকলা একাডেমির মহাপরিচালক লিয়াকত আলী লাকী। প্রদর্শনীর উদ্বোধন করে শিক্ষামন্ত্রী বলেন, দুই জন ভিন্ন সময়ের মানুষ, কিন্তু উভয়ই ইতিহাস রচনা করেছেন। নিজেদের জনগণের ভাগ্য পরিবর্তন করেছেন, দুই জনই আততায়ীর হাতে নিহত হয়েছেন। একজন অহিংসাকে অস্ত্র হিসেবে ব্যবহার করে ব্রিটিশ রাজত্বের ভিত নাড়িয়ে দিয়েছিলেন। অপরজন ভাষা ও সংস্কৃতিকে আঁকড়ে ধরে নিপীড়িত জনগণের অধিকার প্রতিষ্ঠায় সামরিক বাহিনীর বিরুদ্ধে প্রায় এককভাবে যুদ্ধ করেছেন। এক জন বাংলাদেশের স্থপতি, জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান এবং অপরজন ভারতের মহাত্মা গান্ধী বা বাপু। এই দুই কালজয়ী মানুষকে শ্রদ্ধা জানানোর জন্য একসঙ্গে তৈরি করা হয়েছে বঙ্গবন্ধু-বাপু প্রদর্শনী। ভারতীয় হাইকমিশনার বিক্রম দোরাইস্বামী বলেন, বঙ্গবন্ধু-বাপু ডিজিটাল প্রদর্শনী আমাদের দুই দেশের জাতির পিতা মহাত্মা গান্ধী এবং বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের জীবন ও উত্তরাধিকারের মতন অনন্য একটি বিষয়কে উদযাপন করছে। দুই দেশের সরকার মুজিববর্ষ স্মরণে এবং মহাত্মা গান্ধীর সার্ধশততম জন্মবার্ষিকী এবং ভারত-বাংলাদেশ দ্বিপক্ষীয় সম্পর্কের সুবর্ণজয়ন্তী উপলক্ষে প্রদর্শনীটি বিশেষভাবে তৈরি করা হয়েছে। তবে করোনার কারণে দেরিতে হলেও এই প্রদর্শনীটি যে হচ্ছে, এজন্য বাংলাদেশ সরকারের প্রতি কৃতজ্ঞতা।

সংস্কৃতি প্রতিমন্ত্রী কে এম খালিদ বলেন, স্বাধীনতার জন্য আমরা এক দেশ অন্য দেশের প্রতি কৃতজ্ঞ। বঙ্গবন্ধু-বাপু শীর্ষক এই প্রদর্শনীতে দুই নেতার বিভিন্ন উল্লেখযোগ্য সময়ের বর্ণনা সংবলিত ডিজিটাল উপস্থাপনা রয়েছে। বিশেষ করে দুই দেশের দুই মহান ব্যক্তিকে এই প্রদর্শনীতে সমৃদ্ধ এবং বিশেষায়িত প্রযুক্তিতে তুলে ধরে অন্তর্ভুক্ত করা হয়েছে। ঢাকাস্থ ভারতীয় হাইকমিশন, সংস্কৃতি বিষয়ক মন্ত্রণালয় এবং বাংলাদেশ শিল্পকলা একাডেমির যৌথ উদ্যোগে অনুষ্ঠিত হচ্ছে এই প্রদর্শনী।

মহাত্মা গান্ধী ডিজিটাল জাদুঘরের কিউরেটর শ্রী বিরাদ ইয়াগনিক দ্বারা বিশেষভাবে পরিচালিত এই অনন্য ডিজিটাল প্রদর্শনী আগামী ১১ অক্টোবর পর্যন্ত একাডেমির জাতীয় চিত্রশালার ৩ নম্বর গ্যালারিতে চলবে।  

এ প্রদর্শনী প্রতিদিন সকাল ১১টা থেকে রাত ৮টা পর্যন্ত স্বাস্থ্যবিধি মেনে সবার জন্য উন্মুক্ত থাকবে।

প্রদর্শনীতে উপমহাদেশের দুই বরেণ্য নেতা শেখ মুজিবুর রহমান এবং মহাত্মা গান্ধীর জীবনী নির্ভর ভ্রাম্যমাণ তথ্যচিত্রসহ দুই নেতার বিভিন্ন উল্লেখযোগ্য সময়ের বর্ণনা সংবলিত ডিজিটাল উপস্থাপনা রয়েছে।

বাংলাদেশ সময়: ১৪১৫ ঘণ্টা, সেপ্টেম্বর ২৫, ২০২১
এইচএমএস/এএটি

বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম'র প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।
Alexa