ঢাকা, শনিবার, ১৯ অগ্রহায়ণ ১৪২৯, ০৩ ডিসেম্বর ২০২২, ০৮ জমাদিউল আউয়াল ১৪৪৪

শিল্প-সাহিত্য

চিন্তার বহু পিঠ থাকে, প্রত্যেকটা পিঠ থেকে দ্যুতি বের হয়

স্টাফ করেসপন্ডেন্ট | বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম
আপডেট: ২২৫২ ঘণ্টা, সেপ্টেম্বর ২৪, ২০২২
চিন্তার বহু পিঠ থাকে, প্রত্যেকটা পিঠ থেকে দ্যুতি বের হয়

ঢাকা: অনুষ্ঠিত হলো জ্ঞানতাপস আব্দুর রাজ্জাক ফাউন্ডেশনের নতুন আয়োজন “গ্রন্থ আলাপন- লেখক ও বইয়ের মুখোমুখি” শীর্ষক আলোচন সভা। এ সভায় ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের বাংলা বিভাগের অধ্যাপক ড. মোহাম্মদ আজমের সম্প্রতি প্রকাশিত “সাংস্কৃতিক রাজনীতি ও বাংলাদেশ” বইটি ছিল আলোচ্য বই।

শনিবার (২৪ সেপ্টেম্বর) সন্ধ্যা ৬টায় রাজধানীর ধানমন্ডিস্থ বেঙ্গল শিল্পালয়ে অনুষ্ঠিত হয় এই আয়োজন। অনুষ্ঠানে সভাপতিত্ব করেন ইউল্যাবের ইংরেজি ও মানববিদ্যা বিভাগের অধ্যাপক ড. সৈয়দ মনজুরুল ইসলাম। অনুষ্ঠানে বহু তরুণ লেখক ও গবেষক উপস্থিত ছিলেন।

সভায় বইয়ের লেখক অধ্যাপক মোহাম্মদ আজম বলেন, “বাংলাদেশ উদযাপন” পর্যালোচনা উপলক্ষে এই বইয়ের লেখাগুলি বিবেচনায় নেওয়া যেতে পারে। “বাংলাদেশ উদযাপন” এখানে জাতি, কিংবা দেশপ্রেম বিবেচনায় নিয়ে আমি ব্যবহার করছি না। বাংলাদেশ রাষ্ট্র সংলাপময়তা হারিয়েছে। শাসকশ্রেণির মধ্যে ক্ষমতার স্থানান্তর স্বাভাবিকভাবে হচ্ছে না। বাংলাদেশে সাংস্কৃতিক উপনিবেশায়ন ঘটেছে। কলকাতায় উৎপাদিত চিন্তাভাবনা ঢাকায় বিচার-বিশ্লেষণ ছাড়া গ্রহণ করা হয়েছে।

লেখকের বক্তব্যের পর আলোচক হিসেবে বই নিয়ে পর্যালোচনা তুলে ধরেন ইউনিভার্সিটি অব লিবারেল আর্টস (ইউল্যাব)-এর গণমাধ্যম অধ্যয়ন ও সাংবাদিকতা বিভাগের অধ্যাপক ড. সুমন রহমান।

তিনি বলেন, বাংলাদেশে দ্বিধাবিভক্তি রাজনীতি প্রবল আকার ধারণ করে আছে। এ কারণে মোহাম্মদ আজম তার একটি প্রবন্ধে মুসলমান ও বাঙালির মধ্যে জল-অচল দূরত্ব আছে বলে মনে করেন। তাছাড়া সাংস্কৃতিক, কিংবা বুদ্ধিবৃত্তিকভাবে আমরা পশ্চিমা তৈরি বর্গগুলো নির্বিচারে গ্রহণ করি। আধুনিকতা, ধর্মনিরপেক্ষতা বর্গগুলো পর্যালোচনা না করে কলকাতা থেকে গ্রহণ করেছি।

অধ্যাপক ড. সৈয়দ মনজুরুল ইসলাম বলেন, আমরা চিন্তা করতে অভ্যস্ত নই, বিপরীত চিন্তাকে আমরা গ্রহণ করতে চাই না। অথচ চিন্তার বহু পিঠ থাকে। প্রত্যেকটা পিঠ থেকে দ্যুতি বের হয়। আমাদের শিক্ষা ব্যবস্থায় ক্রিটিক করার শিক্ষা দেওয়া হয়নি। বর্তমানে বুদ্ধিজীবী শব্দটি এখানে জীর্ণ হয়ে পড়েছে। আজমের বইয়ে সমাজ থেকে চিন্তা উঠে এসেছে।

ফাউন্ডেশনের মহাপরিচালক প্রফেসর ইমেরিটাস আহরার আহমদের স্বাগত আলাপের মধ্যদিয়ে অনুষ্ঠানের সূচনা হয়। সূচনা বক্তব্যে তিনি বলেন, জ্ঞানতাপস আব্দুর রাজ্জাক ফাউন্ডেশন দেশীয় লেখক, বুদ্ধিজীবীদের উৎসাহ প্রদানে বুদ্ধিবৃত্তিক বিচিত্র অনুষ্ঠানের আয়োজন করে থাকে। জ্ঞানের বাজারে আমরা এখনো বিদেশিদের ওপর নির্ভর করি, যা আমাদের কাম্য নয়।

ফাউন্ডেশনের নতুন আয়োজন নিয়ে তিনি বলেন, এর মাধ্যমে মুক্তচিন্তা, উদার ও প্রশ্নভিত্তিক চিন্তাচর্চাকে বহুগুণে উৎসাহ দেওয়া এবং একাডেমিক ও সুসংবদ্ধ আলোচনামুখী চিন্তাপদ্ধতি অবলম্বনে আগ্রহী করে তুলবে।

বাংলাদেশ সময়: ২২৪৯ ঘণ্টা, সেপ্টেম্বর ২৪, ২০২২

এইচএমএস/আরএ

 

বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম'র প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।
Alexa