ঢাকা, রবিবার, ১ বৈশাখ ১৪৩১, ১৪ এপ্রিল ২০২৪, ০৪ শাওয়াল ১৪৪৫

এভিয়াট্যুর

মাত্র ১০ মিনিটে যাত্রীদের লাগেজ ডেলিভারি দিচ্ছে ইউএস-বাংলা

স্টাফ করেসপন্ডেন্ট | বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম
আপডেট: ০৫০২ ঘণ্টা, নভেম্বর ১৬, ২০১৬
মাত্র ১০ মিনিটে যাত্রীদের লাগেজ ডেলিভারি দিচ্ছে ইউএস-বাংলা ফাইল ফটো

বিদেশ থেকে আসা যাত্রীদের ঢাকার হযরত শাহজালাল আন্তর্জাতিক বিমানবন্দর ও চট্টগ্রামের হযরত শাহ আমানত আন্তর্জাতিক বিমানবন্দরে মাত্র ১০ মিনিটে লাগেজ ডেলিভারি দিচ্ছে ইউএস-বাংলা এয়ারলাইন্স। যা ইতোমধ্যে বাংলাদেশের এভিয়েশন শিল্পের ইতিহাসে অনন্য নজির স্থাপন করেছে।

ঢাকা: বিদেশ থেকে আসা যাত্রীদের ঢাকার হযরত শাহজালাল আন্তর্জাতিক বিমানবন্দর ও চট্টগ্রামের হযরত শাহ আমানত আন্তর্জাতিক বিমানবন্দরে মাত্র ১০ মিনিটে লাগেজ ডেলিভারি দিচ্ছে ইউএস-বাংলা এয়ারলাইন্স। যা ইতোমধ্যে বাংলাদেশের এভিয়েশন শিল্পের ইতিহাসে অনন্য নজির স্থাপন করেছে।

২০১৪ সালের ১৭ জুলাই প্রতিষ্ঠার পর মাত্র ২ বছর ৪ মাস অতিক্রম করেছে ইউএস-বাংলা এয়ারলাইন্স। এই অল্প সময়ের মধ্যেই ইউএস-বাংলা অভ্যন্তরীণ রুটে সাধারণ যাত্রীদের গ্রহণযোগ্যতা অর্জনে সক্ষম হয়েছে। ৯৮.৭ শতাংশ অন-টাইম ফ্লাইট অপারেশন ও ইন-ফ্লাইট সার্ভিসের জন্য ইউএস-বাংলা এয়ারলাইন্স ২০১৫ সালে অভ্যন্তরীণ সেক্টরে ‘বেস্ট এয়ারলাইন্স’ হওয়ার গৌরব অর্জন করেছে।

প্রতিষ্ঠার দু’বছরের মধ্যেই দেশের গণ্ডি পেরিয়ে হিমালয় কন্যা খ্যাত নেপালের রাজধানী কাঠমান্ডুতে ফ্লাইট পরিচালনার মাধ্যমে আন্তর্জাতিক রুটে ডানা মেলেছে।

ইতোমধ্যে গত ১১ নভেম্বর থেকে ঢাকা ও চট্টগ্রাম থেকে মধ্যপ্রাচ্যের অন্যতম গন্তব্য মাস্কাটে ফ্লাইট পরিচালনা শুরু করেছে। এছাড়া আগামী ০১  ডিসেম্বর থেকে ঢাকা-কলকাতা রুটে ফ্লাইট পরিচালনা শুরু করতে যাচ্ছে।  

লাগেজ নিয়ে বিড়ম্বনা বাংলাদেশের সকল বিমানবন্দরে নিত্যদিনের ঘটনা। বিদেশ থেকে দীর্ঘ ভ্রমণ ক্লান্তির পর প্রবাসী কিংবা দেশি-বিদেশি পর্যটকদের বিভিন্ন বিমানবন্দরে ইমিগ্রেশন শেষ করে লাগেজের জন্য দীর্ঘক্ষণ অপেক্ষা করতে হয়। এ ধরনের নানা বিড়ম্বনার পর লাগেজ প্রাপ্তি একটি নিত্য নৈমিত্তিক ঘটনা। একই ঘটনার পূনরাবৃত্তি ঘটছে প্রতিদিন।

ঠিক সেই সময়ে বিদেশ থেকে আসা যাত্রীদের মাত্র ১০ মিনিটে লাগেজ ডেলিভারি দিচ্ছে ইউ এস-বাংলা, যা বিমানবন্দরে আন্তর্জাতিক রুটের যাত্রীদের মাঝে আলোড়ন সৃষ্টি করেছে।

ইউএস-বাংলা এয়ারলাইন্সের মাত্র ৬ মাসের আন্তর্জাতিক ফ্লাইট পরিচালনার অভিজ্ঞতা রয়েছে। এ স্বল্প সময়ের মধ্যেই দ্রুততম সময়ে লাগেজ ডেলিভারি দিতে প্রবাসী যাত্রীদের সেবার কথা বিবেচনা করে পর্যাপ্ত সংখ্যক লোকবল, অত্যাধুনিক গ্রাউন্ড সার্ভিস ইক্যুইপমেন্টস্‌সহ সকল রকমের সাপোর্ট রয়েছে ইউএস-বাংলা’র।

ইউএস-বাংলা এয়ারলাইন্সের বিমানবহরে মোট পাঁচটি এয়ারক্রাফট রয়েছে, যার মধ্যে দু’টি বোয়িং ৭৩৭-৮০০ এবং তিনটি ড্যাশ৮-কিউ৪০০ এয়ারক্রাফট। ডিসেম্বরের শেষ সপ্তাহে আরো একটি বোয়িং ৭৩৭-৮০০ এয়ারক্রাফট ইউএস-বাংলা’র বিমানবহরে যুক্ত হবে।

বর্তমানে ইউএস-বাংলা এয়ারলাইন্স ঢাকা থেকে অভ্যন্তরীণ সকল রুটে ফ্লাইট পরিচালনা করছে। ব্যবসা সম্প্রসারণের লক্ষ্যে খুব শিগগিরই ঢাকা থেকে সিঙ্গাপুর, কুয়ালালামপুর, ব্যাংকক, গুয়াংজু, দোহা, দাম্মাম, পারো ফ্লাইট পরিচালনা করার পরিকল্পনা করছে বেসরকারি উড়োজাহাজ সংস্থাটি।

** ইউএস-বাংলার মাস্কাট ফ্লাইট ডানা মেলবে শুক্রবার

বাংলাদেশ সময়: ১১০০ ঘণ্টা, নভেম্বর ১৬, ২০১৬
এএসআর

 

বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম'র প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।