ঢাকা, সোমবার, ১৩ আষাঢ় ১৪২৯, ২৭ জুন ২০২২, ২৭ জিলকদ ১৪৪৩

বিএনপি

খালেদা জিয়ার পক্ষে পঞ্চম দিনের যুক্তিতর্ক চলছে

| বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম
আপডেট: ০৬০৩ ঘণ্টা, ডিসেম্বর ২৮, ২০১৭
খালেদা জিয়ার পক্ষে পঞ্চম দিনের যুক্তিতর্ক চলছে  বক্সীবাজারের বিশেষ আদালতে বিএনপি চেয়ারপারসন খালেদা জিয়া। ছবি:সুমন শেখ

ঢাকা: জিয়া অরফানেজ ট্রাস্ট দুর্নীতি মামলার প্রধান আসামি খালেদা জিয়ার পক্ষে পঞ্চম দিনের যুক্তিতর্ক শুরু হয়েছে। বৃহস্পতিবার (২৮ ডিসেম্বর) বেলা পৌনে ১২টার দিকে বক্সীবাজারের বিশেষ আদালতে এই শুনানি শুরু হয়। খালেদা জিয়ার পক্ষে অ্যাডভোকেট খন্দকার মাহবুব হোসেন শুনানি করছেন।

শুনানিতে অংশ নিতে খালেদা জিয়া বেলা সাড়ে ১১টার পর আদালতে পৌছান।

আগের দিন বুধবার অ্যাডভোকেট আব্দুর রেজ্জাক খান তার শুনানিতে খালেদা জিয়ার বিরুদ্ধে অভিযোগ প্রমাণ হয়নি বলে দাবি করেন।

আদালত মুলতবি হওয়ার আগে স্বল্প সময়ের যুক্তিতর্কে এই মামলাকে রাজনৈতিক আখ্যা দেন মাহবুব হোসেন।

গত ৪ দিন ধরে যুক্তিতর্ক তুলে ধরার ধারাবাহিকতায় আব্দুর রেজ্জাক খান দাবি করেন, রাষ্ট্রপক্ষ খালেদা জিয়ার বিরুদ্ধে আনীত অভিযোগ প্রমাণ করতে সম্পূর্ণরুপে ব্যর্থ হয়েছে। বিদেশ থেকে কে টাকা পাঠিয়েছে দুদক আদালতে তা উত্থাপন করতে পারেন নি।

রেজ্জাক খান বলেন, দণ্ডবিধির ৪০৯ ধারার অভিযোগ সমন্ধে কোন সাক্ষী খালেদা জিয়ার বিরুদ্ধে আদালতে বলেননি। মোস্তাফিজুর রহমান এ মামলার বিষয়বস্তুর সাথে অঙ্গাঙ্গীভাবে জড়িত। তাকে এ মামলায় আসামি করা হয়নি। মামলার বাদী ছাড়া আর কোন সাক্ষী বলেন নি যে খালেদা জিয়া একাউন্ট খুলেছেন।

বিশেষ আদালত এলাকায় নিরাপত্তা তল্লাশি।  ছবি:সুমন শেখ খালেদা জিয়ার অনুমোদনের কথা বলা হলেও অনুমোদনের নথি কেউ দেখেন নাই। তার বিরুদ্ধে আনীত অনুমোদনের অভিযোগ সত্য নয়।

এ সময় ‘রাষ্ট্রপক্ষ খালেদার বিরুদ্ধে আনীত অভিযোগ প্রমাণ করতে সম্পূর্ণরুপে ব্যর্থ হয়েছে’  দাবি করে খালেদা জিয়ার খালাস দাবি করেন তিনি।

আদালতে দুদকের পক্ষে উপস্থিত আছেন অ্যাডভোকেট মোশাররফ হোসেন কাজল, মহানগর পাবলিক প্রসিকিউটর আব্দুল্লাহ আবু, অ্যাডভোকেট মীর আব্দুস সালাম, অ্যাডভোকেট আমিন উদ্দিন মানিক প্রমুখ।

খালেদা জিয়ার পক্ষে আইনজীবীদের মধ্যে আরো উপস্থিত আছেন সুপ্রিমকোর্ট বারের সভাপতি অ্যাডভোকেট জয়নাল আবেদীন, সেক্রেটারি মাহবুব উদ্দিন খোকন, অ্যাডভোকেট সানাউল্লাহ মিয়া, মাসুদ আহমেদ তালুকদার প্রমুখ।

জিয়া চ্যারিটেবল ট্রাস্ট ও জিয়া অরফানেজ ট্রাস্টের অর্থ আত্মসাতের অভিযোগে দুর্নীতি দমন কমিশনের (দুদক) দায়ের করা দু’টি মামলারই প্রধান আসামি খালেদা জিয়া।

রাজধানীর বকশিবাজারে কারা অধিদফতরের প্যারেড মাঠে স্থাপিত ঢাকার বিশেষ জজ ড. মো. আখতারুজ্জামানের আদালতে এই দুই মামলার যু্ক্তিতর্ক চলছে।

চ্যারিটেবল ট্রাস্ট মামলায় মোট আসামি চারজন। খালেদা জিয়া ছাড়া অভিযুক্ত অপর তিন আসামি হলেন- খালেদার তৎকালীন রাজনৈতিক সচিব হারিছ চৌধুরী, হারিছ চৌধুরীর তৎকালীন একান্ত সচিব বর্তমানে বিআইডব্লিউটিএ’র নৌ-নিরাপত্তা ও ট্রাফিক বিভাগের ভারপ্রাপ্ত পরিচালক জিয়াউল ইসলাম মুন্না এবং ঢাকা সিটি কর্পোরেশনের সাবেক মেয়র সাদেক হোসেন খোকার একান্ত সচিব মনিরুল ইসলাম খান।

এ মামলায় সাক্ষ্য দিয়েছেন মোট ৩২ জন সাক্ষী। জামিনে থাকা অন্য দুই আসামি জিয়াউল ইসলাম মুন্না ও মনিরুল ইসলাম খান আত্মপক্ষ সমর্থন করে আদালতে লিখিত বক্তব্য জমা দিয়েছেন। হারিছ চৌধুরী মামলার শুরু থেকেই পলাতক।

অন্যদিকে অরফানেজ মামলায় খালেদা জিয়াসহ আসামি মোট ছয়জন। অন্য পাঁচ আসামি হলেন- বিএনপির সিনিয়র ভাইস চেয়ারম্যান ও খালেদার বড় ছেলে তারেক রহমান, মাগুরার সাবেক এমপি কাজী সালিমুল হক কামাল ওরফে ইকোনো কামাল, ব্যবসায়ী শরফুদ্দিন আহমেদ, সাবেক প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয়ের সাবেক সচিব ড. কামাল উদ্দিন সিদ্দিকী ও প্রয়াত রাষ্ট্রপতি জিয়াউর রহমানের ভাগ্নে মমিনুর রহমান।

আসামিদের মধ্যে ড. কামাল উদ্দিন সিদ্দিকী ও মমিনুর রহমান মামলার শুরু থেকেই পলাতক। বাকিরা জামিনে আছেন।

২০১০ সালের ৮ আগস্ট তেজগাঁও থানায় জিয়া চ্যারিটেবল ট্রাস্ট মামলা দায়ের করা হয়। জিয়া চ্যারিটেবল ট্রাস্টের নামে অবৈধভাবে ৩ কোটি ১৫ লাখ ৪৩ হাজার টাকা লেনদেনের অভিযোগ এনে এ মামলা দায়ের করা হয়।

অন্যদিকে ২০০৮ সালের ৩ জুলাই রমনা থানায় জিয়া অরফানেজ ট্রাস্ট দুর্নীতি মামলা দায়ের করে দুদক। এতিমদের সহায়তা করার উদ্দেশ্যে একটি বিদেশি ব্যাংক থেকে আসা ২ কোটি ১০ লাখ ৭১ হাজার ৬৭১ টাকা আত্মসাৎ করার অভিযোগ এনে এ মামলা দায়ের করা হয়।

বাংলাদেশ সময়: ১২০০ ঘণ্টা, ডিসেম্বর ২৮, ২০১৭
এএম/এমআই/জেডএম

বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম'র প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।
Alexa