ঢাকা, সোমবার, ৯ জ্যৈষ্ঠ ১৪২৯, ২৩ মে ২০২২, ২১ শাওয়াল ১৪৪৩

জলবায়ু ও পরিবেশ

পরিষ্কার-পরিচ্ছন্নতা এলাকার মর্যাদা বৃদ্ধি করে

স্টাফ করেসপন্ডেন্ট | বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম
আপডেট: ১৩৫৪ ঘণ্টা, ডিসেম্বর ৩১, ২০১৪
পরিষ্কার-পরিচ্ছন্নতা এলাকার মর্যাদা বৃদ্ধি করে ছবি: নাজমুল হাসান/বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম

ঢাকা: ‘আসুন ৩৪নং ওয়ার্ডকে পরিষ্কার-পরিচ্ছন্ন রাখি’ স্লোগান নিয়ে পরিবেশ বাঁচাও আন্দোলনের (পবা) পরিষ্কার-পরিচ্ছন্নতা অভিযান  রাজধানীর বায়েরবাজার এলাকায় অনুষ্ঠিত হয়েছে।

বুধবার (৩১ ডিসেম্বর) সকাল ১১টায় রায়েরবাজার বৈশাখী খেলার মাঠে ৩৪নং ওয়ার্ড (সাবেক ৪৭) এলাকাবাসীর সহায়তায় এ পরিষ্কার-পরিচ্ছন্নতা অভিযান পরিচালিত হয়।

অভিযানটির উদ্বোধন করেন পবার চেয়ারম্যান আবু নাছের খান।

অভিযানের আগে এক সংক্ষিপ্ত সমাবেশে  প্রধান অতিথির বক্তব্যে পবা’র চেয়ারম্যান বলেন, যত-তত্র ময়লা ফেলায় রোগের ঝুঁকি যেমন বাড়ে, তেমনি এলাকার সৌন্দর্যহানিও ঘটে। তাছাড়া পরিষ্কার-পরিচ্ছন্নতা একটি এলাকার মর্যাদা বৃদ্ধি করে। আমরা যদি এ অভিযানটিকে সাফল্যমণ্ডিত করতে পারি, তাহলে এক সময় আমাদের দেশটাও একটি পরিচ্ছন্ন দেশ হিসেবে বিশ্বের বুকে নতুনভাবে পরিচিতি লাভ করবে।

তিনি বলেন, আমাদের  গর্ব করার মতো অনেক ইতিহাস রয়েছে । আর সেই ইতিহাস এমনিতেই তৈরি হয় না। সেজন্য কাজ করতে হয়। ভাষার জন্য আমরা জীবন দিয়েছি, স্বাধীনতা অর্জন করেছি। বাংলাদেশ আমাদের, আমরা এখানকার গর্বিত নাগরিক। সময় এসেছে দেশটাকে সুন্দরভাবে গড়ে তোলার। তাই আসুন, ভবিষ্যত প্রজন্মকে একটি সুন্দর, পরিষ্কার-পরিচ্ছন্ন দেশ উপহার দিতে  সকলে মিলে একসঙ্গে কাজ করি।
 
আবু নাছের খান বলেন, আমাদের কাজ হবে মানুষকে সচেতন করে তোলা। যাতে তারা যেখানে সেখানে ময়লা-আবর্জনা না ফেলে একটি নির্দিষ্ট জায়গায় ফেলেন। শুধুমাত্র পরিচ্ছন্নতাকর্মীদের দোষ দিলে হবে না। তারা এককভাবে  কোনোদিন এ সমস্যার সমাধান করতে পারবেন না। সেজন্য আমাদের সকলকে সচেতন হতে হবে। নিজের এলাকার সৌন্দর্য আমাদের নিজেদের হাতে, এ বিষয়টিকেই মাথায় রাখতে হবে। তাহলেই একটা সমাধান সম্ভব তা না হলে কোনো দিন সম্ভব হবে না।

পরিষ্কার-পরিচ্ছন্ন রাখতে  সরকারের ভূমিকাও খুবই গুরত্বপূর্ণ  উল্লেখ করে তিনি বলেন, ১০০ মিটার পর পর দৃষ্টিগোচর হয় এমন স্থানে ময়লার পাত্র ব্যবহার ও যত্র-তত্র ময়লা-আবর্জনা ফেলা বন্ধে সচেতনতার জন্য সাইনবোর্ড স্থাপন করতে হবে। সেই সঙ্গে যেখানে সেখানে ময়লা ফেলা বন্ধ করতে পুলিশের মাধ্যমে জরিমানা আদায়ের ব্যবস্থাও করতে হবে।

তিনি বলেন, প্রত্যেকে আমরা যদি আমাদের নিজেদের এলাকা পরিস্কার-পরিচ্ছন্নতা রাখতে পারি, তাহলে এক সময় পুরো দেশটাই পরিস্কার-পরিচ্ছন্ন হবে।

সমাবেশ শেষে পরিষ্কার-পরিচ্ছন্নতা অভিযানের অংশ হিসেবে এলাকার বৈশাখী খেলার মাঠ সবাই মিলে ঝাড়ু দেন। অভিযানটিতে এলাকার বিভিন্ন সামাজিক সংগঠন সহযোগিতা করে।

সমাজসেবক মনজুর হাসান দিলুর সভাপতিত্বে অভিযানে ডব্লিউবিবি ট্রাস্টের  পরিচালক অ্যাডভোকেট সৈয়দ মাহবুবুল আলম, প্রজেক্ট অফিসার জিয়াউর রহমান লিটু, ধানমণ্ডি কচিকণ্ঠ স্কুলের প্রিন্সিপাল নুরুল ইসলামসহ ৩৪নং ওয়ার্ডের বাসিন্দারা  উপস্থিত ছিলেন।  

বাংলাদেশ সময়: ১৩৫২ ঘণ্টা, ডিসেম্বর ৩১, ২০১৪

বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম'র প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।
Alexa