ঢাকা, শনিবার, ১০ ফাল্গুন ১৪৩০, ২৪ ফেব্রুয়ারি ২০২৪, ১৩ শাবান ১৪৪৫

চট্টগ্রাম প্রতিদিন

‘কেউ দলীয় শৃঙ্খলার ঊর্ধ্বে নয়’

নিউজ ডেস্ক | বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম
আপডেট: ২২৪৬ ঘণ্টা, ডিসেম্বর ৬, ২০২৩
‘কেউ দলীয় শৃঙ্খলার ঊর্ধ্বে নয়’ ...

চট্টগ্রাম: চট্টগ্রাম-১১ আসনের এমপি এমএ লতিফের বিরুদ্ধে গণমাধ্যমে দলীয় আদর্শ ও নীতি নৈতিকতা লঙ্ঘনের অভিযোগ তুলে এর নিন্দা জানিয়েছে মহানগর আওয়ামী লীগ।  

বুধবার (৬ ডিসেম্বর) সন্ধ্যায় মহানগর আওয়ামী লীগের কার্যকরী কমিটির সভায় এর জন্য এমএ লতিফের কাছে  ব্যাখ্যা চাওয়ার বিষয়ে সিদ্ধান্ত গৃহীত হয়।

 

এসময়  মহানগর আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক সাবেক সিটি মেয়র আ জ ম নাছির উদ্দীন বলেন, একমাত্র মাননীয় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা ছাড়া যত বড় নেতাই হই না কেন আমরা কেউই দলের উর্ধ্বে নই। কেউ যদি দলীয় আদর্শ ও শৃঙ্খলা পরিপন্থি কাজ করেন তাকে কিছুতেই ছাড় দেয়া হবে না।

দ্বাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনকে সামনে রেখে দলীয় সভাপতি ও মাননীয় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা আমাদেরকে যে দিক নির্দেশনাগুলো দিয়েছেন তা থেকে তিল পরিমাণ বিচ্যুত হওয়ার কোন সুযোগ নেই। কেউ যদি এই ধরনের কাজ করেন তাহলে তার বিরুদ্ধে ব্যবস্থা গ্রহণের জন্য কেন্দ্রীয় নেতৃত্বকে অবহিত করা হবে এবং আশা করি কেন্দ্রীয় নেতৃত্ব অভিযুক্তের বিরুদ্ধে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নেবেন।  

তিনি আরও বলেন, মহানগর আওয়ামী লীগ দৃঢ়ভাবে প্রতিজ্ঞাবদ্ধ যে, মহানগর আওয়ামী লীগের তিনটি আসন এবং মহানগর সংশ্লিষ্ট আরো তিনটি আসনসহ ৬টি আসনে দলীয় সভাপতি ও প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা যাকে নৌকা প্রতীক দিয়েছেন তাকে অবশ্যই বিজয়ী করবো। কিন্তু বিতর্কিত কোন ব্যক্তিকে যদি নৌকা প্রতীক দেওয়া হয় তাহলে মহানগর আওয়ামী লীগের ঐ ব্যক্তি সম্পর্কে মতামত কেন্দ্রীয় নেতৃত্ব অবশ্যই বিবেচনা করবেন বলে প্রত্যাশা করি।  

সভাপতির বক্তব্যে চট্টগ্রাম মহানগর আওয়ামী লীগের সভাপতি মাহতাব উদ্দীন চৌধুরী বলেন, নৌকা প্রতীক নিয়ে চট্টগ্রাম মহানগরের অন্তর্ভূক্ত ও আওতাধীন ৬টি আসন থেকে যিনি নৌকা প্রতীক পেয়েছেন তাদেরকে অবশ্যই মহানগর আওয়ামী লীগের সিদ্ধান্ত ও মতামতের সাথে সামঞ্জস্য রেখে নির্বাচন করতে হবে। কেউ যদি বিচ্ছিন্নভাবে নিজের মতো করে নির্বাচন করেন তাহলে তা সংগঠনবিরোধী কার্যকলাপে পরিণত হবে এবং তা আমরা কিছুতেই হতে দিতে পারি না। বিগত কয়েকদিন ধরে এমএ লতিফ সভা সমাবেশ করে দলের পরীক্ষিত ও নিবেদিতপ্রাণ নেতাকর্মীদের ছিন্নমূল বলে অপবাদ দিয়েছেন। যা আমরা কিছুতেই বরদাস্ত করতে পারি না।  

এছাড়া সভায় আগামী ১৪ ডিসেম্বর বৃহস্পতিবার শহীদ বুদ্ধি দিবসে ফয়েজলেকস্থ বদ্ধভূমিতে সকাল ১০টায় শহীদের স্মরণে শ্রদ্ধাঞ্জলি নিবেদন; আগামী ১৫ ডিসেম্বর শুক্রবার চট্টগ্রাম মহানগর আওয়ামী লীগের সাবেক সভাপতি, বীর মুক্তিযোদ্ধা, সাবেক মেয়র এবিএম মহিউদ্দীন চৌধুরীর ৬ষ্ঠ মৃত্যুবার্ষিকীতে ১০টায় চশমা হিলস্থ জামে মসজিদে মরহুমের আত্মার মাগফেরাত কামনায় খতমে কোরআন, দোয়া ও মিলাদ মাহফিল শেষে কবর জিয়ারত এবং শ্রদ্ধাঞ্জলী অর্পণ করা হবে এবং বিকাল ৩টায় হোটেল সৈকত মিলনায়তনে স্মরণসভা অনুষ্ঠিত হবে; আগামী ১৬ ডিসেম্বর মহান বিজয় দিবসে সকালে জাতীয় পতাকা উত্তোলন, সকল শহীদের স্মরণে চট্টগ্রাম অস্থায়ী শহীদ মিনারে পুষ্পমাল্য অর্পণ কর্মসূচির সিদ্ধান্ত হয়।  

এ সময় উপস্থিত ছিলেন, মহানগর আওয়ামী লীগের সহ সভাপতি নঈম উদ্দীন চৌধুরী, অ্যাড. সুনীল কুমার সরকার, অ্যাড. ইব্রাহিম হোসেন চৌধুরী বাবুল, খোরশেদ আলম সুজন, আলতাফ হোসেন চৌধুরী বাচ্চু, সাংগঠনিক সম্পাদক নোমান আল মাহমুদ এমপি, চৌধুরী হাসান মাহমুদ হাসনী, সম্পাদক মন্ডলীর সদস্য শফিকুল ইসলাম ফারুক, সৈয়দ হাসান মাহমুদ শমসের, অ্যাড. শেখ ইফতেখার সাইমুল চৌধুরী, চন্দন ধর, মসিউর রহমান চৌধুরী, হাজী মো. হোসেন, ইঞ্জিনিয়ার মানস রক্ষিত, জোবাইরা নার্গিস খান, আবু তাহের, উপ প্রচার সম্পাদক শহিদুল আলম, নির্বাহী সদস্য আবুল মনছুর, সৈয়দ আমিনুল হক, কামরুল হাসান বুলু, বখতেয়ার উদ্দীন খান, সাইফুদ্দিন খালেদ বাহার, নজরুল ইসলাম বাহাদুর, আহমেদ ইলিয়াছ, মহব্বত আলী খান, রোটারিয়ান মো. ইলিয়াছ, ড. নিছার উদ্দীন আহমেদ মঞ্জু, মো. জাবেদ, মোর্শেদ আক্তার চৌধুরী প্রমুখ।

বাংলাদেশ সময়: ২২৩৫ ঘণ্টা, ডিসেম্বর ৬, ২০২৩
পিডি/টিসি

বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম'র প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।