ঢাকা, বৃহস্পতিবার, ১৭ আষাঢ় ১৪২৯, ৩০ জুন ২০২২, ০০ জিলহজ ১৪৪৩

চট্টগ্রাম প্রতিদিন

শিক্ষাবান্ধব স্বপ্ন নিয়ে রামুতে ‘স্বপ্নযাত্রা’ 

| বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম
আপডেট: ১৬৪৪ ঘণ্টা, ডিসেম্বর ৩১, ২০১৯
শিক্ষাবান্ধব স্বপ্ন নিয়ে রামুতে ‘স্বপ্নযাত্রা’  শিক্ষার্থীদের শিক্ষামূলক ভ্রমণে নিয়ে যাবে স্বপ্নযাত্রা

কক্সবাজার: প্রতি বুধবার কক্সবাজারের রামু উপজেলার ( ক্যাচমেন্ট এরিয়ার) নির্ধারিত দু’টি স্কুলে ক্লাস পরীক্ষার আয়োজন করা হবে। ক্লাস পরীক্ষায় প্রতি ক্লাস থেকে সর্বোচ্চ নম্বরধারী চারজন করে মোট ৪০ জন শিক্ষার্থীকে নিয়ে পরদিন বৃহস্পতিবার বাসটি যাত্রা করবে তাদের শিক্ষামূলক কোনো স্থান বা স্বপ্নের কোনো প্রতিষ্ঠানে।

যেখানে গেলে শিক্ষার্থীরা জ্ঞান অর্জন করতে পারবে। এ ছাড়াও বাসের ভেতরে চলবে বিনোদন ও শিক্ষামূলক বিভিন্ন চিত্র প্রদর্শনী।

তাই বাসটির নাম দেওয়া হয়েছে ‘স্বপ্নযাত্রা’। মেধাবী শিক্ষার্থীদের নিয়ে প্রতি সপ্তাহে নতুন কোনো স্বপ্নের জগতে যাত্রা করবে স্বপ্নযাত্রা।

সুশিক্ষিত মানুষ গড়ার স্বপ্ন নিয়ে সোমবার (৩০ ডিসেম্বর) বিকেলে কক্সবাজারের রামুতে ব্যতিক্রমী ‘স্বপ্নযাত্রা’ বাসটির উদ্বোধন করেন কক্সবাজার জেলা প্রশাসক মো. কামাল হোসেন।

রামু উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা প্রণয় চাকমা’র সভাপতিত্বে ‘অনুষ্ঠানে গেস্টে অব অনার’ হিসেবে বক্তৃতা দেন কক্সবাজার-৩০৮ সংরক্ষিত মহিলা আসনের সংসদ সদস্য কানিজ ফাতেমা আহমেদ। এ উদ্যোগ বাস্তবায়ন করেছে রামু উপজেলা প্রশাসন। এতে অন্যান্যের মধ্যে কক্সবাজার জেলা কমিউনিটি পুলিশিংয়ের সভাপতি অ্যাডভোকেট তোফায়েল আহমেদ, রামু উপজেলা শিক্ষা কর্মকর্তা গৌর চন্দ্র দে প্রমুখ বক্তব্য দেন।

জেলা প্রশাসক বলেন, শিক্ষার ক্ষেত্রে শিশুদের সঙ্গে আমরা যেন সব সময় থাকি। যে যে পেশায় আছি, আমরা যেন শিক্ষাবান্ধব হই।

তিনি বলেন, রামু উপজেলা প্রশাসনের মহতী ‘স্বপ্নযাত্রা’ শিক্ষার্থীদের মধ্যে শিক্ষার প্রতি আকর্ষণ বাড়িয়ে তুলবে। শিশুরা বিদ্যালয়মুখী হবে, ঝরে পড়া শিক্ষার্থীর হার কমবে।

শিক্ষার্থীদের মধ্যে বাস্তবভিত্তিক জ্ঞানের প্রসারতার পাশাপাশি গঠনমূলক এবং প্রতিদ্বন্দ্বিতামূলক মনোভাব তৈরি হবে। এ লক্ষ্যে রামুতে যাত্রা শুরু হলো শিক্ষাবান্ধব বাস ‘স্বপ্নযাত্রার’। যোগ করেন জেলা প্রশাসক।

‘স্বপ্নযাত্রা’র উদ্যোক্তা প্রণয় চাকমা বলেন, উপজেলা পর্যায়ে বাংলাদেশে প্রথমবারের মতো শিক্ষার্থীদের জন্য এ রকম উদ্যোগ নেওয়া হয়। মূলত শিক্ষার প্রসারের লক্ষ্যে এ প্রচেষ্টা।

তিনি বলেন, এটি স্কুল বা কলেজের শিক্ষার্থীদের যাতায়াতের কোনো বাহন নয়, জ্ঞানার্জনের উদ্দেশ্যে শুধু মেধাবী শিক্ষার্থীরা এ বাসে চড়ে যাবেন তাদের স্বপ্নের জায়গায়। যেখানে শিক্ষার্থীরা শিখতে পারবে, নতুন নতুন বিষয়ে জ্ঞানার্জন করতে পারবে।

অনুষ্ঠানে উপজেলা স্বাস্থ্য ও পরিবার পরিকল্পনা কর্মকর্তা ডা. নোবেল কুমার বড়ুয়া, রামু সরকারি কলেজের ভারপ্রাপ্ত অধ্যক্ষ আবদুল হক, সহকারী কমিশনার (ভূমি) চাইথোইলা চৌধূরী, উপজেলা ভাইস চেয়ারম্যান মোহাম্মদ সালাহ উদ্দিন, মহিলা ভাইস চেয়ারম্যান আফসানা জেসমিন পপি, রামু থানা ওসি (তদন্ত) এসএম মিজানুর রহমান, উপজেলা মুক্তিযোদ্ধা সংসদ কমান্ডের সাবেক কমন্ডার মুক্তিযোদ্ধা নুরুল হক অতিথি ছিলেন। অনুষ্ঠান সঞ্চালনায় ছিলেন সংস্কৃতিকর্মী মানসী বড়ুয়া।

এদিকে উপজেলা প্রশাসনের ব্যতিক্রমধর্মী এ উদ্যোগ রামুকে শিক্ষানগরী করার মহৎ উদ্যোগকে আরো এক ধাপ এগিয়ে নিয়ে যাবে বলে মনে করছেন রামুর শিক্ষানুরাগীরা।

রামুর প্রজন্ম ৯৫-এর সাধারণ সম্পাদক রেজাউল আমিন মোরশেদ বাংলানিউজকে বলেন, স্বপ্নযাত্রায় চড়ে মেধাবী শিক্ষার্থীরা জ্ঞানার্জনের জন্য যাবে তাদের স্বপ্নের জায়গায়। বিষয়টি ভাবতেই অনেক ভালো লাগছে। এটি অবশ্যই উপজেলা প্রশাসনের ব্যতিক্রমী এবং মহৎ উদ্যোগ। আশাকরি রামুবাসীর স্বপ্নপূরণে এই ‘স্বপ্নযাত্রা’ অবশ্যই ইতিবাচক ভূমিকা পালন করবে।

বাংলাদেশ সময়: ১১৪২ ঘণ্টা, ডিসেম্বর ৩১, ২০১৯
এসবি/এআর/টিসি

বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম'র প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।
Alexa