ঢাকা, সোমবার, ১ বৈশাখ ১৪৩১, ১৫ এপ্রিল ২০২৪, ০৫ শাওয়াল ১৪৪৫

শিক্ষা

বেরোবিতে হল প্রভোস্ট অবরুদ্ধ 

| বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম
আপডেট: ২১০৮ ঘণ্টা, নভেম্বর ৩০, ২০১৮
বেরোবিতে হল প্রভোস্ট অবরুদ্ধ  হল প্রভোস্টকে অবরুদ্ধ করে রেখেছেন শিক্ষার্থীরা। ছবি: বাংলানিউজ

রংপুর: ভর্তি পরীক্ষা উপলক্ষে বেগম রোকেয়া বিশ্ববিদ্যালয়ের (বেরোবি) আবাসিক হলগুলো বন্ধ রাখার সিদ্ধান্তের প্রতিবাদে শহীদ মুখতার ইলাহী হলের প্রভোস্ট ও চার সহকারী প্রভোস্টকে অবরুদ্ধ করে রেখেছেন হলের আবাসিক শিক্ষার্থীরা। 

শুক্রবার (৩০ নভেম্বর) সকাল ১১টার দিকে হল সিলগালা করতে এলে বিক্ষুব্ধ শিক্ষার্থীরা প্রভোস্ট কক্ষে তাদের অবরুদ্ধ করে অবস্থান নেন। এ প্রতিবেদন লেখা পর্যন্ত তারা ওই কক্ষেই অবরুদ্ধ রয়েছেন।

সংশ্লিষ্ট সূত্রে জানা যায়, আগামী ২ থেকে ৫ ডিসেম্বর বিশ্ববিদ্যালয়ের ২০১৮-১৯ শিক্ষাবর্ষের ভর্তি পরীক্ষা অনুষ্ঠিত হবে। ভর্তি পরীক্ষায় শৃঙ্খলার অজুহাতে ৩০ নভেম্বর থেকে ৬ ডিসেম্বর পর্যন্ত আবাসিক হলসমূহ বন্ধ রাখার সিদ্ধান্ত নেয় বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসন। ওই সিদ্ধান্তের আলোকে শুক্রবার সকাল ১০টার মধ্যেই আবাসিক শিক্ষার্থীদের হল ছাড়ার নোটিশ দেয় সংশ্লিষ্ট হল প্রশাসন।

এরই ধারাবাহিকতায় সকাল ১১টার দিকে হল সিলগালা করতে এলে শহীদ মুখতার ইলাহী হলের প্রভোস্ট ফেরদৌস রহমান, সহকারী প্রভোস্ট আলী রায়হান সরকার, ড. আল হেলাল, হান্নান মিয়া এবং কাজী সাজ্জাত হোসেনকে অবরুদ্ধ করেন হলের শিক্ষার্থীরা। এর আগে সকাল থেকেই অন্যান্য হলগুলোতে অবস্থান নেন শিক্ষার্থীরা।

শিক্ষার্থীরা জানান, তাদের কথা চিন্তা না করেই হল বন্ধ রাখার সিদ্ধান্ত নিয়েছে প্রশাসন। এতে তারা বিপাকে পড়েছেন। তাদের থাকার জায়গা নেই। আর অনেকের পরিচিত আত্মীয়-স্বজন বিশ্ববিদ্যালয়ে পরীক্ষা দিতে আসবেন। এমতাবস্থায় নিজেদের থাকার জায়গা হারাচ্ছে তারা। তাই হল ছাড়তে চাইছেন না শিক্ষার্থীরা।

এ বিষয়ে কয়েকজন শিক্ষার্থী বলেন, ভর্তি পরীক্ষায় নিরাপত্তার অজুহাতে হল বন্ধ রাখার সিদ্ধান্তে আমরা অবাক হয়েছি। তিন হলে প্রায় দেড় হাজার শিক্ষার্থী অবস্থান করছেন। তাদের আবাসনের কথা চিন্তা না করেই এ সিদ্ধান্ত নেয়া হয়েছে। হল বন্ধ হলে তারা কোথায় যাবেন? অনেকের বাড়ি থেকে পরিচিত শিক্ষার্থীরা পরীক্ষা দিতে আসবেন, তাদের কোথায় রাখবেন? 

তারা আরো বলেন, বিগত ভর্তি পরীক্ষাগুলোতে বিশ্ববিদ্যালয়ের কোনো শিক্ষার্থী অনিয়ম করেনি। অনিয়মের সঙ্গে শিক্ষক ও কর্মকর্তারা জড়িত ছিল। কিন্তু তাদের ডরমেটরি খোলা রেখে হল বন্ধ করে দেওয়া হচ্ছে। এটা অযৌক্তিক। শিক্ষার্থীরা এ সিদ্ধান্ত মানবে না। তাই তারা সব হলে অবস্থান কর্মসূচি পালন করছেন।

এ বিষয়ে শহীদ মুখতার ইলাহী হলের প্রভোস্ট (চলতি দায়িত্ব) মো. ফেরদৌস রহমান বাংলানিউজকে বলেন, হল বন্ধ রাখার সিদ্ধান্ত কেন্দ্রীয় ভর্তি কমিটির। আমরা ভর্তি কমিটিকে শিক্ষার্থীদের দাবির ব্যাপারে জানিয়েছি।  

এদিকে, শহীদ মুখতার ইলাহী হলের প্রভোস্ট ফেরদৌস রহমানের অবরুদ্ধ হওয়ার সংবাদে অন্য হলগুলোর প্রভোস্ট বডি ও প্রক্টর ঘটনাস্থলে আসেনি বলে শিক্ষার্থীরা জানান।

এ ব্যাপারে বিশ্ববিদ্যালয়ের ভিসি অধ্যাপক ড. নাজমুল আহসান কলমউল্লাহকে একাধিকবার ফোন দিলেও তিনি রিসিভ করেননি।

বাংলাদেশ সময়: ১৬০৪ ঘণ্টা, নভেম্বর ৩০, ২০১৮
আরবি/

বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম'র প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।