ঢাকা, বুধবার, ১১ কার্তিক ১৪২৮, ২৭ অক্টোবর ২০২১, ১৯ রবিউল আউয়াল ১৪৪৩

শিক্ষা

বিশ্ববিদ্যালয় খোলার দিন নির্দিষ্ট না হওয়ায় বিপাকে শিক্ষার্থীরা

সাজ্জাদুল কবির, ইউনিভার্সিটি করেসপন্ডেন্ট | বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম
আপডেট: ০৭৩৮ ঘণ্টা, সেপ্টেম্বর ৫, ২০২১
বিশ্ববিদ্যালয় খোলার দিন নির্দিষ্ট না হওয়ায় বিপাকে শিক্ষার্থীরা

ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়: করোনা সংক্রমণের কারণে ২০২০ সালের মার্চ মাসে বিশ্ববিদ্যালয়সহ সব শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান বন্ধের ঘোষণা আসে। পরবর্তীতে লকডাউন সীমিত হয়ে অফিস আদালত খুলে দেওয়া হলেও শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানের ছুটি বাড়তে থাকে।

বিভিন্ন সময় ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় খোলার তারিখ অ্যাকাডেমিক কাউন্সিলে আলোচনা হলেও পরবর্তীতে সেটি বাস্তবায়ন হয়নি।  

সবশেষ বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রভোস্ট স্ট্যান্ডিং কমিটির সভায় পরিস্থিতি পর্যবেক্ষণ করে অক্টোবর থেকে বিশ্ববিদ্যালয় খোলার কথা বলা হলেও নির্দিষ্ট হয়নি দিনক্ষণ। ফলে শিক্ষার্থীরা নানা বিষয়ে সিদ্ধান্তহীনতায় পড়েছেন।

হঠাৎ করে বৈশ্বিক অতিমারিতে পড়ায় শিক্ষার্থীদের জীবন আচারণেও ব্যাপক প্রভাব পড়ে। ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থীদের একটি অংশ ঢাকায় শিক্ষার্থীদের পড়িয়ে অর্থ উপার্জন করতেন। অনেকে সেই অর্থ পরিবারের কাছে পাঠাতেন।  

কিন্তু করোনায় সব বন্ধ হওয়ায় গ্রামে চলে যেতে বাধ্য হন শিক্ষার্থীরা। সেখানে অনেকে অর্থ উপার্জনের উৎস খুঁজে বের করেন। আবার অনেকে কিছু করতে না পেরে লকডাউন শিথিল হলে ঢাকায় এসে বাসা ভাড়া নিয়ে ঘুরে দাঁড়াতে চেষ্টা করেন। অনেকে উদ্যোক্তা হন। ব্যবসার পরিধি বাড়ান। অনেকে অস্থায়ী চাকরি করছেন।  

তবে আবাসিক হল খোলার সঙ্গে তাদের সকল কার্যক্রম নির্ভর করছে। নির্দিষ্ট তারিখ ঘোষণা না করায় বিপাকে পড়েছেন বিশ্ববিদ্যালয়ের অনেক শিক্ষার্থী।

এ বিষয়ে বিশ্ববিদ্যালয়ের চতুর্থ বর্ষের ছাত্র আবদুল্লাহ আল মাহমুদ বলেন, করোনায় টিউশন চলে যায়। পরবর্তীতে গ্রাম থেকে এসে টিউশন সংগ্রহ একটি মেসে সিট ভাড়া নিয়ে পড়াশোনা করছি। আমাদের বিশ্ববিদ্যালয়ে এখনো হলে থাকার সুযোগ আছে। এখন কবে হল খুলবে, সেটা নির্দিষ্ট না হওয়াতে আমরা বাসা ছাড়ার বিষয়ে সিদ্ধান্ত নিতে পারছি না। অধিকাংশ বাসায় সিট ছাড়ার ১-২ মাস আগে জানাতে হয়। এখন কী করব বুঝতেছি না। প্রশাসনের কথায় সব কিন্তু লুকানো।

আরেক শিক্ষার্থী সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমে লিখেছেন, যদি সত্যিই অক্টোবরের শুরুতে বিশ্ববিদ্যালয়ের হল খোলার পরিকল্পনা থাকে, তবে অক্টোবরের শুরুতে নয়, সেপ্টেম্বরের শেষ সপ্তাহ কিংবা তার পূর্বেই হল খুলে দেয়া উচিত। পাশাপাশি হল খোলার তারিখ সংক্রান্ত নির্দিষ্ট ঘোষণাটি আগামী তিন-চার দিনের মধ্যেই জানানো জরুরি। তাহলে ঢাকা কিংবা মফস্বল শহরের বিভিন্ন বাসা-বাড়িতে থাকা শিক্ষার্থীরা বাড়ির মালিকদেরকে আগামী মাস থেকে ভাড়া না থাকার ব্যাপারে জানিয়ে দিতে পারবে।  

সেপ্টেম্বরের ১০ তারিখের পূর্বে হল খোলার নির্দিষ্ট তারিখ জানিয়ে দিলে এবং সেপ্টেম্বরের ৩০ তারিখের পূর্বে হল খুলে দিলে অনেক শিক্ষার্থীর এক মাসের বাসা ভাড়া নষ্ট হবে না। এটি শিক্ষার্থীদের প্রতি অনেক বড় অনুগ্রহ হবে বলেও জানান ওই শিক্ষার্থী।

বিশ্ববিদ্যালয়ের মাস্টার্সের ছাত্র শামীম আনোয়ার বাংলানিউজকে বলেন, এই বন্ধে অনেকে অনলাইনে অনেক পরিশ্রম করে ক্ষুদ্র বিজনেস দাড় করিয়েছে। এখন বিশ্ববিদ্যালয় খুলে দিলে সেসব চালু রাখার জন্য নতুন করে পরিকল্পনা করতে হবে। কিন্তু অনির্দিষ্ট তারিখে সেব সম্ভব হচ্ছে না।

বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রক্টর অধ্যাপক ড. এ কে এম গোলাম রব্বানী বাংলানিউজকে বলেন, হল খোলার সঙ্গে কয়েকটি বিষয় জড়িত। সব কিছু বিবেচনায় নিয়ে চতুর্থ বর্ষ ও মাস্টার্সের শিক্ষার্থীদের জন্য খোলা হবে ধাপে ধাপে। নির্দিষ্ঠ তারিখ ঘোষণার বিষয়ে পরবর্তী সভায় সিদ্ধান্ত নেওয়া হবে।

উপাচার্য অধ্যাপক ড. মো. আখতারুজ্জামান বাংলানিউজকে বলেন, ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ই প্রথম আবাসিক হল খোলার জন্য রোডম্যাপ ঘোষণা করেছে। আমরা সে অনুযায়ী আগাব। ১৫ সেপ্টেম্বর পর্যন্ত শিক্ষার্থীদের টিকা গ্রহণের তথ্য ও পরিস্থিতি বিবেচনায় সিদ্ধান্ত নেওয়া হবে।

বাংলাদেশ সময়: ০৭৩৬ ঘণ্টা, সেপ্টেম্বর ০৫, ২০২১
এসকে/জেএইচটি

বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম'র প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।
Alexa