ঢাকা, সোমবার, ২২ অগ্রহায়ণ ১৪২৮, ০৬ ডিসেম্বর ২০২১, ০১ জমাদিউল আউয়াল ১৪৪৩

নির্বাচন ও ইসি

ইউপি নির্বাচন: তানোরের সাতটিতে ২৭ মনোনয়ন দাখিল

সিনিয়র করেসপন্ডেন্ট | বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম
আপডেট: ১৬৫২ ঘণ্টা, অক্টোবর ১৭, ২০২১
ইউপি নির্বাচন: তানোরের সাতটিতে ২৭ মনোনয়ন দাখিল

রাজশাহী: রাজশাহীর তানোর উপজেলায় দ্বিতীয় দফার ইউনিয়ন পরিষদ (ইউপি) নির্বাচন অনুষ্ঠিত হতে যাচ্ছে আগামী ১১ নভেম্বর। দ্বিতীয় ধাপে অনুষ্ঠেয় নির্বাচনকে সামনে রেখে আজ তানোর উপজেলার সাত ইউনিয়নের ২৭ জন প্রার্থী তাদের মনোনয়নপত্র দাখিল করেছেন।

এ উপলক্ষে রোববার (১৭ অক্টোবর) সকাল থেকে দুপুর পর্যন্ত নির্বাচন কার্যালয়ে উৎসবমুখর পরিবেশ ছিল।

তানোর উপজেলার কলমা, বাধাইড়, পাঁচন্দর, সরনজাই, তালন্দ কামারগাঁ ও চাঁন্দুড়িয়া ইউনিয়ন পরিষদে ১১ নভেম্বর দ্বিতীয় ধাপের ভোটগ্রহণ অনুষ্ঠিত হবে।

তানোরের সাতটি ইউনিয়ন পরিষদ থেকে মোট ২৭ জন চেয়ারম্যান প্রার্থীর মধ্যে সাতজন আওয়ামী লীগ মনোনীত এবং নয়জন বিদ্রোহী প্রার্থী হয়েছেন। এগুলোর বেশ কয়েকটিতে আওয়ামী লীগের বিদ্রোহী প্রার্থীর ছড়াছড়ি। ক্ষমতাসীন দলের গলার কাঁটা হয়ে দাঁড়িয়েছেন এসব বিদ্রোহী প্রার্থী। অনেক দৌড়ঝাপের পর দলীয় মনোনয়ন না পেয়ে তারা ‘স্বতন্ত্র’ প্রার্থী হয়ে প্রতিদ্বন্দ্বিতায় নেমেছেন।

উপজেলার সাতটি ইউপিতে আওয়ামী লীগের প্রার্থীর ছড়াছড়ি। ১৬ জন আওয়ামী লীগ ও যুবলীগ চেয়ারম্যান প্রার্থী মনোনয়ন জমা দিয়েছেন। এর মধ্যে নয়জন বিদ্রোহী প্রার্থী।  

এরা হলেন- তানোর উপজেলার কলমা ইউপিতে আওয়ামী লীগ মনোনীত ইউনিয়ন আওয়ামী লীগ সভাপতি ও বর্তমান চেয়ারম্যান আহসানুল হক স্বপন ও বিদ্রোহী স্বতন্ত্র প্রার্থী সংসদ সদস্য ফারুক চৌধুরীর চাচাতো ভাই উপজেলা আওয়ামী লীগের সিনিয়র সহ-সভাপতি খাদেকুন্নবী বাবু চৌধুরী, বাঁধাইড় ইউপিতে আওয়ামী লীগ মনোনীত ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ও বর্তমান চেয়ারম্যান আতাউর রহমান। এখানে বিদ্রোহী স্বতন্ত্র প্রার্থী ইউনিয়ন আওয়ামী লীগ নেতা গোলাম মোস্তাফা ও যুবলীগ নেতা রফিকুল ইসলাম, পাঁচন্দর ইউপিতে আওয়ামী লীগ মনোনীত প্রার্থী ইউনিয়ন আওয়ামী লীগ সভাপতি ও বর্তমান চেয়ারম্যান আব্দুল মতিন। এখানেও বিদ্রোহী স্বতন্ত্র প্রার্থী উপজেলা আওয়ামী লীগ সভাপতি গোলাম রাব্বানীর ভাই সদ্য আওয়ামী লীগ থেকে বহিষ্কৃত ওর্য়ার্কাস পার্টির অন্যতম নেতা শরিফুল ইসলাম, সরনজাই ইউপিতে আওয়ামী লীগ মনোনীত ইউনিয়ন আওয়ামী লীগ সভাপতি ও বর্তমান চেয়ারম্যান আব্দুল মালেক। এখানেও বিদ্রোহী প্রার্থী উপজেলা আওয়ামী লীগের ক্রীড়া বিষয়ক সম্পাদক আবু সাইদ, তালন্দ ইউপিতে আওয়ামী লীগ মনোনীত বর্তমান চেয়ারম্যান ও উপজেলা আওয়ামী লীগের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক আবুল কাশেম, এখানেও বিদ্রোহী প্রার্থী ইউনিয়ন আওয়ামী লীগ সভাপতি নাজিম উদ্দিন বাবু ও ইউনিয়ন যুবলীগের সভাপতি রইস উদ্দিন বাচ্চু, কামারগাঁ ইউপিতে বিদ্রোহী প্রার্থী উপজেলা আওয়ামী লীগের ত্রাণ-সমাজ কল্যাণ বিষয়ক সম্পাদক ও বর্তমান চেয়ারম্যান মোসলেম উদ্দিন। তবে এখানে আওয়ামী লীগ মনোনীত প্রার্থী ইউনিয়ন আওয়ামী লীগ সভাপতি ফজলে রাব্বি ফরাদ ও চাঁন্দুড়িয়া ইউপিতে আওয়ামী লীগ মনোনীত প্রার্থী ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সভাপতি ও বর্তমান চেয়ারম্যান মজিবুর রহমান। এছাড়াও জেলা পরিষদ সদস্য ও উপজেলা আওয়ামী লীগের যুগ্ম-সাধারণ সম্পাদক আব্দুস সালাম চেয়ারম্যান প্রার্থী হিসেবে মনোনয়ন জমা দিয়েছেন।

এদিকে বিএনপির হাইকমান্ড ইউপি নির্বাচন বর্জনের ঘোষণা দিলেও দলটি থেকে সাতটি ইউপিতে ১১ জন ‘স্বতন্ত্র’ চেয়ারম্যান প্রার্থী হিসেবে আজ মনোনয়নপত্র জমা দিয়েছেন। এরা হলেন- কলমা ইউপিতে থানা কৃষকদলের সাধারণ সম্পাদক আব্দুল মালেক ও যুবদলের অন্যতম সদস্য রায়হান আলী, বাঁধাইড় ইউপিতে ইউনিয়ন বিএনপির সহ-সভাপতি মোয়াজ্জেম হোসেন ও সাবেক সিনিয়র সহ-সভাপতি চেয়ারম্যান কামরুজ্জামান হেনা, পাঁচন্দর ইউপিতে সাবেক ইউনিয়ন বিএনপির সভাপতি ও চেয়ারম্যান মোমিনুল হক মমিন, সরনজাই ইউপিতে থানা বিএনপির সাবেক সভাপতি চেয়ারম্যান মোজাম্মেল হক ও ইউনিয়ন বিএনপির সাধারণ সম্পাদক মতিউর রহমান, তালন্দ ইউপিতে প্রার্থী না থাকলেও সেখানে বিএনপি সমর্থিত চেয়ারম্যান প্রার্থী জামায়াত নেতা আক্কাছ আলী, কামারগাঁ ইউপিতে ইউনিয়ন বিএনপির সভাপতি দলিল লেখক খলিলুর রহমান।

অপর গ্রুপের সভাপতি প্রভাষক জাইদুর রহমান জাহিদ ও যুবদল নেতা আলমগীর হোসেন এবং চাঁন্দুড়িয়া ইউপিতে থানা বিএনপির সাবেক সাধারণ সম্পাদক চেয়ারম্যান মাফিজ উদ্দিনের ছেলে যুবদল নেতা মাহফুজুর রহমান রিমন। তবে এবারে জাপা থেকে কেউই প্রার্থী হননি।

এছাড়া তানোর উপজেলার সাতটি ইউনিয়ন পরিষদে সংরক্ষিত নারী সদস্য পদে ৫২৫ জন ও সাধারণ সদস্য পদে ৬৭৫ জন প্রার্থী তাদের মনোনয়ন জমা দিয়েছেন।  

রাজশাহীর তানোর উপজেলা নির্বাচন কর্মকর্তা (অতি.) গোলাম মোস্তফা জানান, সুষ্ঠু ও শান্তিপূর্ণ পরিবেশে অবাধ ও নিরপেক্ষ নির্বাচন করতে তারা বদ্ধপরিকর। এরইমধ্যে নির্বাচনী প্রক্রিয়া শুরু হয়ে গেছে। ঘোষিত তফসিল অনুযায়ী ১৭ অক্টোবর মনোনায়নপত্র জমা দেওয়ার শেষ দিন। মনোনয়নপত্র যাচাই-বাছাই করা হবে আগামী ২০ অক্টোবর। বাছাইয়ের পর সিদ্ধান্তের বিরুদ্ধে আপিল দায়ের ২১ ও ২৩ অক্টোবর। আর আপিল নিষ্পত্তি ২৪ ও ২৫ অক্টোবর। তবে প্রার্থিতা প্রত্যাহার করা যাবে ২৬ অক্টোবর। ২৭ অক্টোবর প্রতীক বরাদ্দ। ভোটগ্রহণ অনুষ্ঠিত হবে ১১ নভেম্বর।

বাংলাদেশ সময়: ১৬৫১ ঘণ্টা, অক্টোবর ১৭, ২০২১
এসএস/আরবি

বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম'র প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।
Alexa