ঢাকা, শনিবার, ১১ অগ্রহায়ণ ১৪২৯, ২৬ নভেম্বর ২০২২, ০১ জমাদিউল আউয়াল ১৪৪৪

নির্বাচন

চালনা পৌর নির্বাচনে নারী ভোটারদের দীর্ঘ লাইন

সিনিয়র করেসপন্ডেন্ট | বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম
আপডেট: ১০৪৫ ঘণ্টা, ডিসেম্বর ২৮, ২০২০
চালনা পৌর নির্বাচনে নারী ভোটারদের দীর্ঘ লাইন চালনা পৌর নির্বাচনে নারী ভোটারদের দীর্ঘ লাইন

খুলনা: পৌষের কনকনে শীত উপেক্ষা করে সকাল থেকেই ভোটারদের দীর্ঘ লাইন দেখা গেছে খুলনার দাকোপ উপজেলার চালনা পৌরসভা নির্বাচনে।

সোমবার (২৮ ডিসেম্বর) সকাল ৮টায় ভোটগ্রহণ শুরুর পর শিশু কানন প্রি ক্যাডেট স্কুল ও কেসি পাইলট স্কুল কেন্দ্রে দেখা গেছে পুরুষের চেয়ে নারী ভোটারদের লাইন দীর্ঘ।

নয়টি ভোটকেন্দ্রে ইলেকট্রনিক ভোটিং মেশিনের (ইভিএম) মাধ্যমে পদ্ধতিতে ভোটগ্রহণ হচ্ছে।

মাঠে ধান কাটতে ব্যস্ত কৃষকরা দুপুরের পর ভোটকেন্দ্রে আসবেন বলে জানা গেছে। নারী ভোটাররা জানান, সকাল সকাল ভোট দিয়ে বাড়ি গিয়ে গৃহস্থালির কাজ শুরু করবেন তারা।

চালনা পৌরসভায় এবার মোট ভোটার সংখ্যা ১২ হাজার ১শ’। এরমধ্যে পুরুষ ভোটার ৫ হাজার ৮৬৩ জন ও নারী ভোটার ৬ হাজার ২৩৭ জন। এখানে সাধারণ ৯টি আসনে ২৭ জন এবং সংরক্ষিত ৩টি আসনের বিপরীতে কাউন্সিলর প্রার্থী রয়েছেন ১০ জন। এবার প্রথমবারের মতো এ পৌরসভায় ইভিএম পদ্ধতিতে ভোটগ্রহণ হচ্ছে।

নির্বাচনে মেয়র পদে আওয়ামী লীগের সনত কুমার বিশ্বাস, বিএনপির মো. আবুল খয়ের খাঁন এবং স্বতন্ত্র অচিন্ত্য কুমার মণ্ডল ও গৌতম কুমার রায় প্রতিদ্বন্দ্বিতা করছেন।

এদিকে, ভোটের পরিবেশ সুষ্ঠু রাখতে আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীর ২০২ সদস্য মোতায়েন করা হয়েছে। এর মধ্যে পুলিশ, আনসার ও বিজিবি সদস্যরা রয়েছেন।

ভোটকেন্দ্র ও নির্বাচনী এলাকায় পুলিশ ও অন্য আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীর মোবাইল ও স্ট্রাইকিং ফোর্স ভোটকেন্দ্রে নিয়োজিত রয়েছে। এর মধ্যে প্রত্যেক কেন্দ্রে ৯ জন করে পুলিশ ও আনসার সদস্য এবং দুই প্লাটুন বিজিবি সদস্য ভোটের মাঠে নিয়োজিত রয়েছেন।

এছাড়া, নির্বাচনে ৯ জন নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট নিয়োজিত রয়েছেন। তারা আচরণবিধি প্রতিপালনসহ সার্বিক বিষয়ে দায়িত্ব পালন করবেন। নির্বাচন পরিচালনায় ৯ জন প্রিসাইডিং কর্মকর্তা, ৪৩ জন সহকারী প্রিসাইডিং কর্মকর্তা এবং ৮৬ জন পোলিং কর্মকর্তা নিয়োজিত রয়েছেন।

দাকোপ উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা (ইউএনও) মিন্টু বিশ্বাস নির্বাচন সুষ্ঠু হবে বলে আশা প্রকাশ করে ভোটারদের নির্ভয়ে ভোটকেন্দ্রে এসে ভোট দেওয়ার আহ্বান জানান।

নির্বাচনের সহকারি রিটার্নিং কর্মকর্তা কাজী মাহামুদ হোসেন বলেন, ‘সুষ্ঠু ও সুন্দর পরিবেশে ভোটগ্রহণ শুরু হয়েছে। আশা করি, শেষ পর্যন্ত পরিবেশ সুষ্ঠু থাকবে। ’

উল্লেখ্য, ২০০৪ সালের নভেম্বরে চালনা পৌরসভার যাত্রা শুরু প্রতিষ্ঠিত হয়। ওই সময়ে বিএনপি নেতা মো. আবুল খয়ের খান পৌর প্রশাসক হিসেবে দায়িত্ব পালন করেন। ২০১১ সালের নির্বাচনে সাবেক মেয়র অচিন্ত্য কুমার মণ্ডলের কাছে পরাজিত হন বর্তমান মেয়র সনত কুমার বিশ্বাস। সে বার এই তিন প্রার্থী নির্বাচনে অংশ নেন। ২০১৫ সালের নির্বাচনে এর উল্টো হয়। সনত বিশ্বাস আওয়ামী লীগের সমর্থন নিয়ে বিজয়ী হন এবং বিএনপি সমর্থিত প্রার্থী শেখ আব্দুল মান্নান তৃতীয় হন। ওই নির্বাচনে অচিন্ত্য মণ্ডল আওয়ামী লীগ মনোনীত প্রার্থীর কাছে পরাজিত হন।

বাংলাদেশ সময়: ১০৪৫ ঘণ্টা, ডিসেম্বর ২৮, ২০২০
এমআরএম/এফএম

বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম'র প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।
Alexa