ঢাকা, মঙ্গলবার, ৭ জ্যৈষ্ঠ ১৪৩১, ২১ মে ২০২৪, ১২ জিলকদ ১৪৪৫

পরিবেশ ও জীববৈচিত্র্য

এবারো চুয়াডাঙ্গায় ভুট্টাক্ষেতে ‘ফল আর্মিওয়ার্মের আক্রমণ’

| বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম
আপডেট: ১২০৫ ঘণ্টা, ডিসেম্বর ৫, ২০১৯
এবারো চুয়াডাঙ্গায় ভুট্টাক্ষেতে ‘ফল আর্মিওয়ার্মের আক্রমণ’ পোকার আক্রমণে নষ্ট হচ্ছে ফসল

চুয়াডাঙ্গা: চুয়াডাঙ্গার ভুট্টা ক্ষেতগুলোতে এবারো আঘাত হেনেছে ফসলের জন্য ক্ষতিকারক পোকা ‘ফল আর্মিওয়ার্ম’। গত বছরের চেয়ে কয়েকগুণ বেশি শক্তি নিয়ে প্রতিদিনই জেলার বিস্তীর্ণ জমির ভুট্টাক্ষেতে ছড়িয়ে পড়ছে পোকাটির অস্তিত্ব। পোকার আক্রমণে ক্ষেতেই শুকিয়ে বির্বণ হয়ে নষ্ট হয়ে যাচ্ছে গাছের কাণ্ড। 

কৃষকরা বলছেন, পোকা দমনে বিভিন্ন কীটনাশক ব্যবহার করেও মিলছে না প্রতিকার। ফলে চুয়াডাঙ্গার হাজার হাজার ভুট্টা চাষির লালিত স্বপ্ন দুঃস্বপ্নে পরিণত হচ্ছে।

 

ফসলের জন্য ক্ষতিকারক পোকা ফল আর্মিওয়ার্ম আমেরিকা থেকে আফ্রিকা ও ভারত হয়ে বাংলাদেশে প্রবেশ করে ভয়ানক পরিস্থিতি সৃষ্টি করছে।

ভুট্টাসহ প্রায় ৮০ ধরনের ফসলের জন্য ক্ষতিকর পোকা ফল আর্মিওয়ার্মের অস্তিত্ব ধরা পড়ে গত বছর চুয়াডাঙ্গার দামুড়হুদার কয়েকটি ভুট্টাক্ষেতে। গত মৌসুমে শীতের তীব্রতা বেশি থাকায় তখন খুব একটা ক্ষতি করতে পারেনি পোকাটি। তবে চলতি মৌসুমে অনেকটা আগে ভাগেই ভুট্টাক্ষেতে ভয়ানক আকারে আক্রমণ চালাচ্ছে পোকাটি। যার কারণে এবার চাষিরা লক্ষ্য পূরণসহ ফলন বিপর্যয়ের মুখে পড়েছেন।

চুয়াডাঙ্গা সদর ও দামুড়হুদা উপজেলার বিভিন্ন ভুট্টাক্ষেত ঘুরে দেখা গেছে, প্রতিটি গাছে কম বেশি বিধ্বংসী এ পোকার আক্রমণ রয়েছে। নষ্ট হয়ে যাচ্ছে হেক্টরের পর হেক্টর জমির উঠতি ফসল।

চুয়াডাঙ্গার কুলচারা গ্রামের কৃষক আব্দুল হালিম বাংলানিউজকে জানান, বিধ্বংসী পোকা প্রথমে গাছের মূল কেটে দিচ্ছে, এরপর গাছের কাণ্ডে অবস্থান করে খেয়ে ফেলছে কচি পাতা। এতে করে ক্ষেতেই বিবর্ণ হয়ে নষ্ট হচ্ছে ভুট্টাগাছ।  

কলাবাড়ী এলাকার কৃষক নাসির উদ্দীন বাংলানিউজকে জানান, গত বছরের চেয়ে কয়েকগুণ বেশি শক্তি নিয়ে আঘাত হানছে পোকাটি। প্রতিদিনই এক ক্ষেত থেকে অন্য ক্ষেতে পোকার বংশ বিস্তার ঘটছে বাতাসের বেগে।

পোকার আক্রমণে নষ্ট হচ্ছে ফসলঅপর কৃষক নাদের মন্ডল বাংলানিউজকে জানান, আক্রান্ত ক্ষেতে নামিদামি বিভিন্ন কোম্পানির কীটনাশক ব্যবহারেও মিলছে না প্রতিকার। তাই প্রাকৃতিক উপায়ে হাত বাছাইয়ের মাধ্যমে পোকা নিধন করা হচ্ছে।  

চুয়াডাঙ্গা কৃষি সম্প্রসারণ অধিদপ্তরের অতিরিক্ত উপ-পরিচালক সুফী রফিকুজ্জামান বাংলানিউজকে জানান, গতবছরের ৩০ নভেম্বর দামুড়হুদা উপজেলার গোবিন্দহুদা গ্রামে কয়েকটি ভুট্টাক্ষেতে প্রথম আক্রমণ করে ফল আর্মিওয়ার্ম। প্রথমবারের মতো ও আবহাওয়ার বিপরীতমুখি অবস্থানে গত মৌসুমে খুব একটা আঘাত হানতে পারেনি এ পোকা। তবে এবছর ভুট্টাগাছ ছোট থাকা অবস্থা থেকেই পোকার অস্তিত্ব পাওয়া গেছে। তাই এবার আশঙ্কাও বেশি। তবে স্থানীয় কৃষি বিভাগ পোকার আক্রামণ দমনে দিন রাত মাঠে কাজ করার পাশাপাশি পোকার আক্রমণ থেকে রক্ষা পেতে কৃষকদের বিভিন্ন ধরনের পরামর্শ দিচ্ছে।

চলতি মৌসুমে ৫০ হাজার লক্ষ্যমাত্রার হেক্টরের মধ্যে এরইমধ্যে ৪০ হাজার হেক্টর জমিতে ভুট্টার আবাদ হয়েছে বলেও জানান তিনি।

বাংলাদেশ সময়: ০৭০৩ ঘণ্টা, ডিসেম্বর ০৫, ২০১৯
জেডএস

বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম'র প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।