ঢাকা, বুধবার, ৪ কার্তিক ১৪২৮, ২০ অক্টোবর ২০২১, ১২ রবিউল আউয়াল ১৪৪৩

স্বাস্থ্য

আয়ুর্বেদকে কৃষিশিল্পের স্বীকৃতি দাবি

সিনিয়র করেসপন্ডেন্ট | বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম
আপডেট: ১৫৫৯ ঘণ্টা, আগস্ট ১৮, ২০১৩
আয়ুর্বেদকে কৃষিশিল্পের স্বীকৃতি দাবি

ঢাকা: জাতীয় শিল্পনীতিতে আয়ুর্বেদিক ওষুধ শিল্পকে কৃষি ভিত্তিক শিল্প খাত হিসেবে বলা হলেও তা গুরুত্ব পাচ্ছে না। সরকারিভাবে অগ্রাধিকার খাতে থাকলেও ঋণসহ সব ধরনের পৃষ্ঠপোষকতা থেকে বঞ্চিত সম্ভাবনাময় এই খাত।



রোববার দুপুরে অর্থমন্ত্রী আবুল মাল আবদুল মুহিতের সঙ্গে দেখা করে এই খাতকে প্রকৃত অর্থে শিল্প হিসেবে স্বীকৃতি দেওয়ার দাবি করেছেন সংশ্লিষ্ট খাতের ব্যক্তিরা।

বাংলাদেশ আয়ুর্বেদিক মেডিসিন উৎপাদন অ্যাসোসিয়েশন সভাপতি এএফএম ফখরুল ইসলামের নেতৃত্বে একটি প্রতিনিধি দল অর্থমন্ত্রীর সঙ্গে সচিবালয়ে তার দপ্তরে দেখা করে এই দাবি করেন।

অর্থমন্ত্রী আবুল মাল আবদুল মুহিত তাদের দাবি বিবেচনার আশ্বাস দিলেও বলছেন, এখন তার তেমন কিছু করার নেই। সরকারের শেষ সময়। বাজেট প্রণয়নের আগে হলে হয়তো তিনি কিছু করতে পারতেন।

তবে পরবর্তী সরকারের বিষয়টি বিবেচনা করা উচিত বলে মত দেন তিনি।

এ সময় সংগঠনের পক্ষে দাবি করা হয়, আয়ুর্বেদিক শিল্পের বিকাশে এই খাতে কর অবকাশ সুবিধা থাকা উচিত। এমনকি তাদের কাঁচামাল আমদানিতে শুল্কমুক্ত সুবিধার দাবি করা হয়।

এএফএম ফখরুল ইসলাম বলেন, ‘বাংলাদেশে মানুষ ১১ শতাংশ চিকিৎসা সেবা পাচ্ছে এই আয়ুর্বেদিক থেকে। অথচ এই খাতটি সরকারের সুনজরে নেই। সরকারি পৃষ্ঠপোষকতা পেলে এই শিল্প আরো বিকাশ লাভ করবে। সেই পরিমাণ দক্ষ ও যোগ্য মানব সম্পদ ইতোমধ্যে তৈরি হয়েছে। ’

সংগঠনের পক্ষে দেশের বিভিন্ন স্থানে থাকা ১৭টি আয়ুর্বেদিক কলেজকে এমপিও ভুক্তির দাবি করা হলেও মুহিত বলেন, ‘আমরা কোন ধরনের শিল্প প্রতিষ্ঠানকে আর এমপিও ভুক্ত করব না। এই পদ্ধতি থেকে বেরিয়ে আসছি। ’

বাংলাদেশ সময়: ১৫৪৪ ঘণ্টা, আগস্ট ১৮, ২০১৩
এসএআর/এমআইপি, এসএস/ আরকে

বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম'র প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।
Alexa