ঢাকা, শুক্রবার, ১০ জ্যৈষ্ঠ ১৪৩১, ২৪ মে ২০২৪, ১৫ জিলকদ ১৪৪৫

স্বাস্থ্য

ভিটামিন ‘এ’র ঘাটতি পূরণ হলে শিশুমৃত্যু হার ২৪ শতাংশ কমবে

স্টাফ করেসপন্ডেন্ট | বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম
আপডেট: ০২০৫ ঘণ্টা, জানুয়ারি ৯, ২০২০
ভিটামিন ‘এ’র ঘাটতি পূরণ হলে শিশুমৃত্যু হার ২৪ শতাংশ কমবে

ঢাকা: ভিটামিন ‘এ’ এর ঘাটতি পূরণ হলে শিশুদের সব ধরনের মৃত্যুহার ২৪ শতাংশ কমে যায়। আর ডায়রিয়াজনিত মৃত্যুহার কমে ৩৩ শতাংশ। 

বুধবার (৮ জানুয়ারি) প্রেস ইনস্টিটিউট অব বাংলাদেশে (পিআইবি) আয়োজিত এক অবহিতকরণ সভায় এ তথ্য জানানো হয়। আগামী ১১ জানুয়ারি অনুষ্ঠেয় জাতীয় ভিটামিন ‘এ’ প্লাস ক্যাম্পেইন উপলক্ষে ঢাকা জেলা সিভিল সার্জন কার্যালয়ের পক্ষ থেকে এই সভা অনুষ্ঠিত হয়।

সভায় মূল প্রবন্ধ উপস্থাপন করেন ঢাকা জেলা সিভিল সার্জন কার্যালয়ের মেডিক্যাল অফিসার ডা. কে এম মামুন।  

তিনি বলেন, শুধু ভিটামিন ‘এ’র অভবে রাতকানা, কনজাঙ্কাটিভার স্পট (চোখে স্থায়ী সাদা দাগ), চোখের শুষ্কতা, বিটট স্পট, কর্নিয়া শুষ্কতা, কর্নিয়ার শিরা শুকিয়ে যাওয়া, কর্নিয়ায় স্থায়ী দাগসহ বিভিন্ন ধরনের সমস্যার সৃষ্টি হয়। এমনকী চোখ অন্ধ হয়ে যেতে পারে। এছাড়া ভিটামিন ‘এ’র অভাবে শিশুদের ঘন ঘন ডায়রিয়া হয়। ডায়রিয়া হলে শিশুর সুস্থ হতে সময় লাগে। এসব শিশুদের হামসহ বিভিন্ন সংক্রামক রোগ হওয়ার আশংকা অনেক বেশি থাকে, এমনকী একাধিকবারও হতে পারে। এছাড়া ভিটামিন ‘এ’র অভাবে শিশুদের স্বাভাবিক বৃদ্ধি ব্যাহত হয়, ত্বক শুষ্ক ও মলিন হয়ে যায়।

সভায় আরো উপস্থিত ছিলেন পিআইবির মহাপরিচালক জাফর ওয়াজেদ, ঢাকা জেলার ডেপুটি সিভিল সার্জন ডা. মো. বিল্লাহ হোসেন, পিআইবির উপ-পরিচালক পারভিন সুলতানা রাব্বী প্রমুখ।

বক্তারা বলেন, শিশুদের এসব সমস্যা থেকে নিরাপদে রাখতে জন্মের পর মায়ের বুকের শাল দুধসহ ছয়মাস পর্যন্ত মায়ের বুকের দুধ খাওয়াতে হবে। পাশপাশি ভিটামিন ‘এ’ সমৃদ্ধ পুষ্টিকর শাক-সবজি ও ফলমূল খাওয়াতে হবে। তাছাড়া ভিটামিন ‘এ’ প্লাস ক্যাম্পেইনে ৬ মাস থেকে ১১ মাস বয়সী শিশুকে একটি নীল রঙের ক্যাপসুল ও ১২ মাস থেকে ৫৯ মাস বয়সী শিশুকে একটি লাল রঙের ক্যাপসুল খাওয়াতে হবে। এই ক্যাপসুলে কোনো পার্শ্বপ্রতিক্রিয়া নেই। আগামী ১১ জানুয়ারি সকাল ৮টা থেকে বিকেল ৪টা পর্যন্ত সারাদেশের সব কেন্দ্র একযোগে এটি খাওয়ানো হবে।

বাংলাদেশ সময়: ২০৫০ ঘণ্টা, জানুয়ারি ০৮, ২০২০
এমএএম/এএ

বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম'র প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।