ঢাকা, শুক্রবার, ১৫ আশ্বিন ১৪২৯, ৩০ সেপ্টেম্বর ২০২২, ০৩ রবিউল আউয়াল ১৪৪৪

স্বাস্থ্য

মৌলভীবাজারে বাড়ছে কোভিড সংক্রমণ

ডিভিশনাল সিনিয়র করেসপন্ডেন্ট | বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম
আপডেট: ০৭৫৮ ঘণ্টা, জুলাই ১৭, ২০২২
মৌলভীবাজারে বাড়ছে কোভিড সংক্রমণ মৌলভীবাজার হাসপাতাল। ছবি: বাংলানিউজ

মৌলভীবাজার: মৌলভীবাজারে ঘরে ঘরে বাড়ছে সর্দিজ্বরে আক্রান্ত রোগীর সংখ্যা। করোনা, নাকি ভাইরাস জ্বর, এ নিয়ে অনেকেই চিন্তিত রয়েছেন।

ফলে জ্বরে আক্রান্ত সাধারণ মানুষজন শুরুতেই রোগটির ধরণ বুঝতে পারছেন না। রয়েছে করোনা টেস্টে অনীহা। এ পরিস্থিতিতে অনেকটা কাবু হয়ে পড়েছেন জ্বরে আক্রান্তরা।

শনিবার (১৬ জুলাই) জেলা সিভিল সার্জন অফিসের কোভিড-১৯ সংক্রান্ত তথ্য মতে, ২৪ ঘণ্টায় ৩৫ জনের নমুনা পরীক্ষা করে ৫ জনের করোনা শনাক্ত হয়েছে। যেখানে শনাক্তের হার ১৪ দশমিক ৩ শতাংশ। এ নিয়ে জেলায় মোট আক্রান্ত নয় হাজার ৮৮৭ জন। যেখানে মৃত্যুবরণ করেন মোট ৭২ জন।

সচেতন মহলের ধারণা, অনেকেই সাধারণ ফ্লু মনে করে করোনা পরীক্ষা করাচ্ছেন না। বর্তমানে করোনার প্রকোপ চলমান। কারো যদি জ্বর, ঠান্ডা, কাশি লেগে থাকে তাহলে পরীক্ষা করানো উচিত। এতে যিনি আক্রান্ত হচ্ছেন তার থেকে অনেক মানুষের মধ্যে ছড়িয়ে পড়া বন্ধ করা যাবে। পরীক্ষা না করলে জানা যাবে না তিনি আক্রান্ত কিনা। আক্রান্ত হয়ে থাকলে তার চারপাশে অনেকেই আক্রান্ত হতে পারেন বলে তারা জানান।

জেলার বিভিন্ন এলাকায় খোঁজ নিয়ে জানা গেছে, অনেক বাসাবাড়িতে জ্বর, সর্দিকাশিতে আক্রান্ত হচ্ছেন পরিবারের সদস্যরা। এর মধ্যে শিশু ও বৃদ্ধদের সংখ্যা বেশি। আশঙ্কাজনক হারে জ্বরের রোগী বেড়ে যাওয়ায় জনসাধারণের মধ্যে করোনাভীতিও বিরাজ করছে।

এ নিয়ে জানতে চাইলে একাধিক চিকিৎসক বলেন, চলতি মৌসুমে নানা কারণে অনেকেই জ্বরে ভুগছেন। এর মধ্যে আছে করোনা, ডেঙ্গু এবং মৌসুমি ফ্লু। জ্বরের কারণে অনেকেরই মুখের রুচি চলে যাচ্ছে এবং তা স্বাভাবিক হতেও অনেক দিন সময় লাগছে। অতিরিক্ত ক্লান্তিবোধের পাশাপাশি মাথাব্যথাসহ সারা শরীরে ব্যথা হচ্ছে এবার জ্বরে। তাদের অবশ্যই চিকিৎসকে পরামর্শ নিতে হবে, বেশি তরল খাবার খেতে হবে এবং বিশ্রামে থাকতে হবে।

মৌলভীবাজার জেলার সিভিল সার্জন চৌধুরী জালাল উদ্দীন মোর্শেদ বাংলানিউজকে বলেন, করোনার এখন চতুর্থ ঢেউ চলছে। যেহেতু করোনা ভাইরাস ক্রমাগত রূপ পরিবর্তন করছে। কিন্ত জনগণ এ বিষয়ে পুরোপুরি উদাসীন। বিশেষ করে টিকা নেওয়ার পর অনেক ক্ষেত্রেই এই আগ্রহ এখন আর দেখা যাচ্ছে না।

স্বাস্থ্যবিধি মেনে চলাসহ মাস্ক পরা ও নিরাপদ দূরত্ব বজায় রাখা আবার বাধ্যতামূলক করতে হবে, তা আমাদের বিবেচনায় রয়েছে বলে তিনি জানান।

বাংলাদেশ সময়: ০৭৫৮ ঘণ্টা, জুলাই ১৭, ২০২২
বিবিবি/কেএআর

বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম'র প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।
Alexa