ঢাকা, মঙ্গলবার, ৬ জ্যৈষ্ঠ ১৪৩১, ২১ মে ২০২৪, ১২ জিলকদ ১৪৪৫

এভিয়াট্যুর

বিমানবন্দরে ইউনাইটেড যাত্রীদের দুর্ভোগ

স্টাফ করেসপন্ডেন্ট | বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম
আপডেট: ০৪৪০ ঘণ্টা, সেপ্টেম্বর ২৫, ২০১৪
বিমানবন্দরে ইউনাইটেড যাত্রীদের দুর্ভোগ ছবি: জি এম মুজিবুর / বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম

ঢাকা: অভ্যন্তরীণ সমস্যার কারণে বৃহস্পতিবার থেকে বন্ধ হয়ে যাচ্ছে ইউনাইটেড এয়ারওয়েজের সব ফ্লাইট অপারেশন কার্যক্রম।

এতে ঢাকার হয়রত শাহজালাল আন্তর্জাতিক বিমানবন্দরে আটকা পড়েছেন বেসরকারি এ এয়ারলাইন্সের শতাধিক যাত্রী।

রাতেও তাদের পোহাতে হচ্ছে অসহনীয় দুর্ভোগ।  

বুধবার দিবাগত রাত ২টার দিকে সরেজমিনে বিমানবন্দরে গিয়ে দেখা যায়, শতাধিক যাত্রী বিমানের জন্য অপেক্ষা করছেন। ইউনাইটেড কর্তৃপক্ষের দেওয়া ঘোষণা তারা শুনেছেন। কিন্তু সঠিক সময়ে গন্তব্যে পৌঁছানোর জন্য তারা বসে আছেন। তাদের আশা যদি ইউনাইটেড কর্তৃপক্ষ বিমান ছাড়ার ঘোষণা দেয়।

তবে ইউনাইটেড এয়ারওয়েজের বিভিন্ন ফ্লাইটের যাত্রীদের অনেকেই ইতোমধ্যে বিমানবন্দর থেকে চলে গিয়েছেন। যারা টার্মিনালের ভেতরে অবস্থান করছেন,  তাদের যাওয়ার কোনো বিকল্প নেই। তাই বাধ্য হয়ে বিমানবন্দরেই অপেক্ষা করছেন। প্রহর গুণছেন ফ্লাইটের নতুন সিডিউল ও সে অনুযায়ী নির্দিষ্ট গন্তব্যে পৌঁছানোর।

টার্মিনালের ভেতরে ফ্লাইটের জন্য অপেক্ষা করছেন এমন তিনজন নোয়াখালীর সেনবাগের মফিজ উদ্দিন, ফেনীর ছাগলনাইয়ার মো. ইব্রাহীম ও মুন্সিগঞ্জের গজারিয়ার তৈয়ব আলী। তারা কাতারের আলিজারা ট্যাক্সি কোম্পানির অধীনে চাকরি করার জন্য প্রত্যেকে দুই লাখ টাকা খরচ করে যাচ্ছেন।

তাদের ফ্লাইটের সময় ছিল বুধবার রাত ১০টা ৪৫ মিনিটে। নির্দিষ্ট সময়ের আগেই তারা বিমানবন্দরে পৌঁছেন। কিন্তু ফ্লাইটের খোঁজ নিয়ে ইউনাইটেড এয়ারওয়েজের কাউকেই পাননি। পরে বিমানবন্দর কর্তৃপক্ষের সঙ্গে যোগাযোগ করলে তাদের ফ্লাইট বন্ধ ঘোষণার কথা জানিয়ে দেওয়া হয়।

বাংলানিউজকে তারা জানান, ইউনাইটেড কর্তৃপক্ষের এমন অন্যায় আচরণের জন্য তাদের অনেক সমস্যায় পড়তে হয়েছে। বিশেষ করে সময়মত না পৌঁছাতে না পারলে নিয়োগকারী প্রতিষ্ঠানে তাদের সমস্যা হতে পারে।

একই ঘটনায় দুর্ভোগের শিকার আরেক যাত্রী লক্ষ্মীপুরের আমেনা বেগম। তিনি জানান, রাত ১০টার ফ্লাইটে তাকে গৃহকর্মী হিসেবে ওমান যাওয়ার কথা। কিন্তু ফ্লাইট বন্ধ ঘোষণার কারণে বিপাকে পড়েছেন তিনি।

বিমানবন্দরের নিরাপত্তার দায়িত্বে থাকা সহকারী পুলিশ সুপার মোতাজ্জের বলেন, ইউনাইটেডের ফ্লাইট বন্ধ ঘোষণার ফলে অনেক যাত্রী বিপাকে পড়েছেন। অনেকেই চলে গিয়েছেন, আবার অনেকেই নিরুপায় হয়ে টার্মিনালে অবস্থান করছেন।

এর আগে উড়োজাহাজের জ্বালানি ও ইনফ্লাইট খাবার না থাকাসহ নানা কারণে বৃহস্পতিবার থেকে আর কোনো ফ্লাইট পরিচালনা করা সম্ভব হবে না বলে বুধবার সন্ধ্যায় উত্তরায় এয়ারওয়েজের প্রধান কার্যালয়ে আয়োজিত এক সংবাদ সম্মেলনে ঘোষণা দেন ইউনাইটেড এয়ারওয়েজের কর্মীরা।  

চলমান পরিস্থিতি সামাল দিতে না পেরে এরই মধ্যে এয়ারওয়েজের দুই ডিরেক্টর পদত্যাগ করেছেন।

ইউনাইটেড এয়ারওয়েজের চেয়ারম্যান ও ব্যবস্থাপনা পরিচালক ক্যাপ্টেন তাসবিরুল আহমেদ চৌধুরীর পদত্যাগের জের ধরে এয়ারলাইন্সের চরম অব্যবস্থাপনা তৈরি হয়েছে।

বাংলাদেশ সময়: ০৪৩৫ ঘণ্টা, সেপ্টেম্বর ২৫, ২০১৪

বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম'র প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।