ঢাকা, শুক্রবার, ২৯ চৈত্র ১৪৩০, ১২ এপ্রিল ২০২৪, ০২ শাওয়াল ১৪৪৫

ক্রিকেট

জাকেরের বড় অনুপ্রেরণা বন্ধু জাকির

স্টাফ করেসপন্ডেন্ট, স্পোর্টস | বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম
আপডেট: ১৪৪৩ ঘণ্টা, জানুয়ারি ২৭, ২০২৩
জাকেরের বড় অনুপ্রেরণা বন্ধু জাকির ফাইল ছবি

সিলেট থেকে: দুইজন একই বিভাগের, বয়সভিত্তিক পর্যায়েও খেলেছেন একসঙ্গে। জাকের আলি ও জাকির হাসানের নামও প্রায় কাছাকাছি।

দীর্ঘ অপেক্ষার পর জাকির এখন এসেছেন পাদপ্রদীপের আলোয়। টেস্টে সেঞ্চুরির দেখা পেয়েছেন, ঢুকেছেন বিসিবির কেন্দ্রীয় চুক্তিতে।

জাকেরও অবশ্য নিয়মিত পারফর্ম করছেন ঘরোয়া লিগে। সর্বশেষ বাংলাদেশ ক্রিকেট লিগে (বিসিএল) টানা দুই সেঞ্চুরি হাঁকিয়েছিলেন। এবারের বিপিএলেও তিনি হাফ সেঞ্চুরির দেখা পেয়েছেন সিলেট স্ট্রাইকার্সের বিপক্ষে, খেলেছেন কয়েকটি ক্যামিও ইনিংস। জাতীয় দলের তীরে পা রাখতে জাকের অনুপ্রেরণা হিসেবে মানছেন বন্ধু জাকির হাসানকে।

শুক্রবার সিলেটে সংবাদ সম্মেলনে তিনি বলেন, ‘জাকিরকে আমি অনেক বড় অনুপ্রেরণা হিসেবে মানি। কারণ ও সবসময়ই নিজেকে পুশ করে ভালো খেলার জন্য। এমনকি আমিও ওর কাছ থেকে পরামর্শ নেই ওর কাছ থেকে। যেহেতু আমরা দীর্ঘদিন ধরে একসঙ্গে খেলতেছি। ও আমাকে অনেক কিছুতে সাহায্য করে, ভালো ভালো পরামর্শ দেয়। আমারও ইচ্ছে আছে, যদি আমি নিজেকে সামনে প্রমাণ করতে পারি...। ’

ঘরোয়া টুর্নামেন্টগুলো নিয়মিতই খেলছেন জাকের। এবার আলোর দেখা পেয়েছেন বিপিএলে এসে। বাকি টুর্নামেন্টের চেয়ে বিপিএলের আলাদা চ্যালেঞ্জটা কী? জানতে চাওয়া হয় জাকেরের কাছে। এত সমালোচনার পরও বিপিএল ক্রিকেটারদের কাছে কতটা জরুরি?

জাকের বলেন, ‘আমাদের মতো তরুণ ক্রিকেটারদের জন্য সবকিছুই চ্যালেঞ্জ। এনসিএলও চ্যালেঞ্জ, বিপিএলও চ্যালেঞ্জ। আমি সবসময়ই চ্যালেঞ্জ হিসেবে নেই। আমাদের জন্য অনেক সামনের দিকে এগিয়ে দেবে এই পারফরম্যান্সগুলো বিশেষ করে। ’

‘বিপিএল ক্রিকেটারদের জন্য অনেক গুরুত্বপূর্ণ। এখানে ভালো খেললে আত্মবিশ্বাস বেড়ে যায়। পারফরম্যান্স করলে সব জায়গাতেই আপনার লাইমলাইট হয়ে যাবে। আমার কাছে মনে হয় নিজের কাজটা ঠিকঠাক মতা করা গুরুত্বপূর্ণ। ’

বিপিএলে কুমিল্লা ভিক্টোরিয়ান্সের শুরুটা হয়েছিল একদমই বাজে। টানা তিন ম্যাচে হেরে গিয়েছিল তারা। এরপর ঘুরে দাঁড়ায় ডিফেন্ডিং চ্যাম্পিয়নরা। জিতেছে টানা চারটি ম্যাচ। কীভাবে সম্ভব হলো? জাকের বলছেন, ইতিবাচকতা খুঁজে বেড়িয়েছেন তারা হারের মধ্যেও।

জাকের বলেন, ‘মোমেন্টাম দেখেন হারের পরও আমরা একদমই ভেঙে পড়িনি। সবসময়ই চেষ্টা করছিলাম ইতিবাচক দিকগুলো। কোচ সবসময় বলছিল এই ম্যাচের এই পজিটিভ দিক, ওই ম্যাচের ওই পজিটিভ দিকগুলো। আসলে আমরা পজিটিভনেসগুলো ছেড়ে দেইনি হারের পরও। এগুলো সামনের দিকে এগিয়ে যাওয়ার জন্য খুব সাহায্য করেছে। ’

দলের পাকিস্তানি তারকা মোহাম্মদ রিজওয়ানকে নিয়েও প্রশংসায় পঞ্চমুখ ছিলেন জাকের, ‘রিজওয়ান ভাই অনেক ভালো একজন মানুষ। উনি নিজে থেকে আসেন সবকিছুতে সাহায্য করতে। ম্যাচের আগে নিজে থেকে এসে নক করে...। উনি আসার পর থেকে দলের সবাইকে অনেক সাহায্য করে। বোলিং মিটিংয়ে যান..। ’

বাংলাদেশ সময়: ১৪৪২ ঘণ্টা, জানুয়ারি ২৭, ২০২৩
এমএইচবি/আরইউ

বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম'র প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।