ঢাকা, মঙ্গলবার, ১৬ জ্যৈষ্ঠ ১৪৩০, ৩০ মে ২০২৩, ১০ জিলকদ ১৪৪৪

ক্রিকেট

মাহমু্দউল্লাহও বললেন ‘গেইল ঝড়’

স্পেশাল করেসপন্ডেন্ট | বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম
আপডেট: ১৩১৬ ঘণ্টা, ডিসেম্বর ৮, ২০১৭
মাহমু্দউল্লাহও বললেন ‘গেইল ঝড়’ ছবি: শোয়েব মিথুন / বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম

৫১ বলে অপরাজিত ১২৬ রানের প্রলয়ংকারী ইনিংস। যেখানে চারের চাইতে আধিক্য ছক্কারই। চার ৬টি আর ছক্কা ১৪টি! স্ট্রাইক রেট ২৪৭.০৫। এই ছিল বিপিএলের এলিমিনেটর ম্যাচে খুলনা টাইটান্সের বিপক্ষে রংপুর রাইডার্সের ‘ক্যারিবীয় ব্যাটিং দানব’ ক্রিস গেইলের চোখ ধাঁধানো ইনিংস। যা ম্যাচ শেষে মাশরাফিদের এনে দিয়েছে ৮ উইকেটের উড়ন্ত জয়।

অথচ জয়ের বন্দরে নোঙর ফেলতে লক্ষ্যটি কিন্তু মোটেও মামুলি ছিল না। কিন্তু গেইল যেদিন ব্যাট হাতে দাঁড়াবেন সেদিন ২০ ওভারে ১৬৮ রানও যে তুচ্ছ তার প্রমাণ আবার মিললো শের-ই-বাংলার এই সবুজ চত্বরে।

বলতে গেলে তিনি একাই রংপুরকে তুলে দিলেন বিপিএলের দ্বিতীয় কোয়ালিফায়ারে। মিরপুরে শুক্রবারের (৮ ডিসেম্বর) সন্ধ্যাটিকে করে তুললেন গেইলময়।

এমন দানবীয় ব্যাটিংয়ের পর ম্যাচ পরবর্তী সংবাদ সম্মেলনে খুলনা দলপতি মাহমুদউল্লাহ রিয়াদের কাছে প্রশ্ন ছিল, প্রচলিত বাংলায় গেইলের এমন ইনিংসকে আপনি কী নামে আখ্যা দেবেন? উত্তরের জন্য ভাবতে হয়নি রিয়াদকে।

কেননা এমন ব্যাটিংয়ের পর যে বিশেষণে তাকে বিশেষায়িত করা হয়ে এসেছে তার সঙ্গে রিয়াদের পরিচিতি অনেক আগেই, ‘সবাই জানি গেইল ঝড়। সত্যি কথা বলতে গেলে তিনি অসাধারণ ব্যাটিং করেছেন। ক্রিস গেইলের ঝড় যেদিন শুরু হয় থামানো কষ্ট। সেই প্রমাণ আজকেও আমরা পেলাম। ’

একই সাথে স্বীকার করে নিলেন নিজেদের দুর্বল বোলিংকেও, ‘আমার মনে হয় আমরা ভালো জায়গায় বল করিনি। কারণ সেট হয়ে গেলে তার শক্তি ও সামর্থ সম্পর্কে আমরা সবাই জানি। বোলিং এফোর্ট ভালো না হওয়ায় খেলা আর আমাদের হাতে আসেইনি। ’

ছবি: শোয়েব মিথুন / বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কমখুলনার বিপক্ষে এই ম্যাচের আগে গেইলের ব্যাটে এমন ঝড় উঠেনি। তাই ভক্ত থেকে শুরু করে টিম ম্যানেজমেন্টের কাছে বিষয়টি অনুমেয়ই ছিল হয়তো কোন এক ম্যাচে তার ব্যাট জ্বলে উঠবে। হলোও তাই। প্লে-অফে এসে মাহমুদউল্লাহদের বিপক্ষে। আর তাতেই কপাল পুড়লো খুলনার। বিদায় নিতে হলো টুর্নামেন্ট থেকে। তাই তাদের নিজেদের দুর্ভাগা ভাবাটাই স্বাভাবিক। কিন্তু টাইটান্স ক্যাপ্টেন মোটেও নিজেদের তেমন ভাবছেন না।

‘দুর্ভাগা বলবো না। কারণ আমরা জানি তিনি কতটা বড় মাপের প্লেয়ার। ভালো ইনিংস খেলার সামর্থ ওনার আছে। তো দ্রুত উইকেট না নিলে তার মতো প্লেয়ারদের আটকানো কঠিন। আমরা সেটা পারিনি বলেই আজকে আমাদের এই রেজাল্ট। ’

গেইলের মতো টি-টোয়েন্টি সেরা ব্যাটসম্যানের ব্যাটে হেরে গিয়ে রিয়াদ নিজেদের দুর্ভাগা না ভাবলেও একটি বিষয় তাকে হতাশ করেছে। আর সেটি হলো টানা দুইবার শেষচার থেকে বিদায়। কেননা গেল আসরেও এই শেষ চারে এসে টুর্নামেন্ট থেকে বিদায় নিয়েছিল খুলনা টাইটান্স। এবারও তার পুনরাবৃত্তি।

‘অবশ্যই বিষয়টি হতাশার। কারণ সবাই চায় ন্যূনতম টপ টু বা ফাইনাল খেলতে। হয়নি এখন এটা নিয়ে বসে থেকে আর লাভ নেই। ’

বাংলাদেশ সময়: ১৯১৫ ঘণ্টা, ৮ ডিসেম্বর, ২০১৭
এইচএল/এমআরএম

বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম'র প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।
Alexa