ঢাকা, সোমবার, ২২ অগ্রহায়ণ ১৪২৮, ০৬ ডিসেম্বর ২০২১, ০১ জমাদিউল আউয়াল ১৪৪৩

চট্টগ্রাম প্রতিদিন

পূজামণ্ডপে হামলার চেষ্টা: প্রতিবাদে বিসর্জন স্থগিত সাড়ে ৩ ঘণ্টা

সিনিয়র করেসপন্ডেন্ট | বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম
আপডেট: ১৮২৯ ঘণ্টা, অক্টোবর ১৫, ২০২১
পূজামণ্ডপে হামলার চেষ্টা: প্রতিবাদে বিসর্জন স্থগিত সাড়ে ৩ ঘণ্টা জেএম সেন হলের পূজামণ্ডপে হামলার প্রতিবাদে তাৎক্ষণিক সমাবেশ

চট্টগ্রাম: নগরের জেএম সেন হলের পূজামণ্ডপে হামলার প্রতিবাদে নির্ধারিত সময়ে শুরু হয়নি প্রতিমা বিসর্জন।  শুক্রবার (১৫ অক্টোবর) দুপুরে একদল লোক জেএমসেন হল পূজামণ্ডপের গেইট ভেঙে ভেতরে ঢোকার চেষ্টা এবং সড়ক ও তোরণের ব্যানার ছিঁড়ে ফেলার পর তাৎক্ষণিক প্রতিমা বিসর্জন স্থগিতের ঘোষণা দেন মহানগর পূজা উদযাপন পরিষদের নেতারা।

 

এর ফলে বেলা আড়াইটা থেকে মহানগরের পূজামণ্ডপগুলোর প্রতিমা বিসর্জনের কর্মসূচি থাকলেও তা শুরু হয় সন্ধ্যা ৬টার দিকে। প্রশাসন, আইনশৃঙ্খলা বাহিনী, জনপ্রতিনিধি ও রাজনীতিকরা প্রতিমা বিসর্জনে নিরাপত্তা নিশ্চিতের বিষয়ে আশ্বস্ত করার পর এ সিদ্ধান্ত নেন পূজা উদযাপন পরিষদের নেতারা।  

চট্টগ্রামের জেএমসেন হলে এ পূজার আয়োজন করে মহানগর পূজা উদযাপন পরিষদ। হামলার পর পরিষদের নেতারা ‘নিরাপত্তা নিশ্চিত না করা পর্যন্ত’ প্রতিমা বিসর্জন না দেওয়ার সিদ্ধান্তের কথা জানান। এর ফলে মহানগরের ২৭৭টি মণ্ডপের প্রতিমা বিসর্জন থেকে বিরত থাকেন সংশ্লিষ্টরা। পরে নিরাপত্তা নিশ্চিতের বিষয়ে প্রশাসন ও জনপ্রতিনিধিরা আশ্বস্ত করার পর সন্ধ্যায় পতেঙ্গা, নেভাল-২ সহ বিভিন্ন স্থানে প্রতিমা বিসর্জন শুরু হয়।  

চট্টগ্রাম মহানগর পূজা উদযাপন পরিষদের সভাপতি আশীষ ভট্টাচার্য্য বাংলানিউজকে জানান, জেএম সেন হলের পূজামণ্ডপে হামলার ঘটনায় আমাদের প্রতিবাদ কর্মসূচি অব্যাহত থাকবে। পাশাপাশি প্রশাসন ও জনপ্রতিনিধিরা প্রতিমা বিসর্জনে নিরাপত্তার বিষয়টি নিশ্চিত করায় মহানগরের অধীন থানা পূজা কমিটিকে প্রতিমা বিসর্জন শুরু করার জন্য বলে দেওয়া হয়েছে। জেএম সেন হলের প্রতিমা বিসর্জন করা হবে নেভাল-২ এলাকায়।  
 
এর আগে হামলার খবর শুনে বিকেল ৩টার দিকে ঘটনাস্থলে ছুটে আসেন বাংলাদেশ হিন্দু বৌদ্ধ খ্রিস্টান ঐক্য পরিষদের সাধারণ সম্পাদক অ্যাডভোকেট রানা দাশগুপ্ত। তিনি পূজা উদযাপন পরিষদের দাবির সঙ্গে একাত্মতা ঘোষণা করেন।  

জেএমসেন হল মোড়ে টানা অবস্থান কর্মসূচি চালিয়ে যাওয়ার পাশাপাশি শনিবার বেলা ১২টা পর্যন্ত হরতালের ডাক দিয়ে তিনি বলেন, ‘কেউ এ কর্মসূচি প্রতিহত করতে চাইলে বুকের রক্তের বিনিময়ে হলেও প্রতিরোধ করা হবে। ’

নগর আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক আ জ ম নাছির উদ্দীনও বিকেল সাড়ে ৩টার দিকে জেএমসেন হলে এসে পূজা উদযাপন পরিষদের নেতাদের সঙ্গে বৈঠক করেন।  

জেলা পূজা উদযাপন কমিটির সভাপতি শ্যামল কুমার পালিত বাংলানিউজকে জানান, চট্টগ্রাম জেলায় ১ হাজার ৯৬৪টি পূজামণ্ডপে এবার দুর্গাপূজা হয়েছে। এর মধ্যে সর্বজনীন পূজা ১ হাজার ৫৫৩টি। পূর্বঘোষণা অনুযায়ী বিভিন্ন উপজেলায় সকালে এবং বাকিগুলোতে বিকেলে সুশৃঙ্খলভাবে প্রতিমা বিসর্জন সম্পন্ন হয়েছে।  

তিনি জানান, আমরা প্রতিবছরের মতো এবারও পূজামণ্ডপের কাছের পুকুর, দীঘি, জলাশয়, বড় খাল ও নদীতে প্রতিমা বিসর্জন করেছি।  

চট্টগ্রাম মেট্রোপলিটন পুলিশের এডিসি আবুল কালাম বাংলানিউজকে জানান, পতেঙ্গা সৈকতে প্রতিমা বিসর্জনের জন্য প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নেওয়া হয়েছে। যানজট নিরসন, প্রতিমা নিয়ে আসা ট্রাক চলাচল ও বিসর্জনে নিরাপত্তার জন্য পর্যাপ্ত আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর সদস্য মোতায়েন রয়েছে।  

বাংলাদেশ সময়: ১৮০৮ ঘণ্টা, অক্টোবর ১৫, ২০২১ 
এআর/টিসি

বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম'র প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।
Alexa