ঢাকা, বুধবার, ১৩ আশ্বিন ১৪২৯, ২৮ সেপ্টেম্বর ২০২২, ০১ রবিউল আউয়াল ১৪৪৪

শিক্ষা

হৃদয়বিদারক স্মৃতি নিয়ে বুলবুলকে বিদায় দিলেন সহপাঠীরা

শাবিপ্রবি করেসপন্ডেন্ট | বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম
আপডেট: ১৭৩৭ ঘণ্টা, জুলাই ২৬, ২০২২
হৃদয়বিদারক স্মৃতি নিয়ে বুলবুলকে বিদায় দিলেন সহপাঠীরা

শাবিপ্রবি, (সিলেট): হৃদয়বিদারক স্মৃতি নিয়ে দুর্বৃত্তদের ছুরিকাঘাতে নিহত শাহজালাল বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ের (শাবিপ্রবি) শিক্ষার্থী বুলবুল আহমেদকে শেষ বিদায় দিয়েছেন তার সহপাঠীরা। বুলবুল বিশ্ববিদ্যালয়ের লোকপ্রশাসন বিভাগের তৃতীয় বর্ষের শিক্ষার্থী ছিলেন।



মঙ্গলবার (২৬ জুলাই) দুপুরে সিলেট এমএজি ওসমানী মেডিক্যাল হাসপাতালে ময়নাতদন্ত শেষে কেন্দ্রীয় মাঠে জানাজা নামাজ অনুষ্ঠিত হয়। পরে হৃদয়বিদারক স্মৃতি নিয়ে চিরতরে বুলবুলকে বিদায় দেন সহপাঠীরা।

সরেজমিনে দেখা যায়, বুলবুলের মরদেহ ক্যাম্পাসে নিয়ে আসতে লাশবাহী গাড়ির পেছন পেছন ছুটেন তার সহপাঠীরা। এ সময় প্রশাসনের কাছে হাতজোড় করে মিনতি করেন সহপাঠীরা। কিন্তু তাদের মিনতি উপেক্ষা করে মরদেহ নরসিংদীর উদ্দেশ্য নিয়ে যাওয়া হয়। এতে অনেকে কান্নায় ভেঙে পড়েন।

এ সময় আসাদুল্লাহ আল গালিব নামের এক শিক্ষার্থী ক্ষোভ প্রকাশ করে বলেন, বুলবুলের মরদেহ ক্যাম্পাসে নিয়ে যেতে প্রশাসন ভয় পায়। তাই তাকে নিয়ে যেতে দেওয়া হচ্ছে না। বুলবুল যেহেতু ক্যাম্পাসে নিহত হয়েছে অনেকে তাকে শেষবারের মতো দেখতে চেয়েছে। তাই তার মরদেহ ক্যাম্পাসে নিয়ে যেতে চাইছিলাম। এদিকে বুলবুল হত্যার প্রতিবাদে এবং হামলায় জড়িতদের দ্রুত গ্রেফতার করে শাস্তির আওতায় আনতে ২৪ ঘণ্টার আল্টিমেটাম দিয়েছেন শিক্ষার্থীরা। এতে প্রশাসনের প্রতি ৪ দফা দাবি জানান তারা।
এর আগে মঙ্গলবার (২৬ জুলাই) সকালে বিশ্ববিদ্যালয়ের কেন্দ্রীয় গ্রন্থাগার ভবনের সামনে মানববন্ধন কর্মসূচি পালন করেন লোকপ্রশাসন বিভাগের শিক্ষক-শিক্ষার্থীরা।

শিক্ষার্থীদের ৪ দফা দাবিগুলোর মধ্যে রয়েছে, ২৪ ঘণ্টার ভেতরে খুনিদের গ্রেফতার করে দ্রুত আইনের আওতায় এনে সর্বোচ্চ শাস্তি মৃত্যুদণ্ড কার্যকর করতে হবে, নিহতের পরিবারকে অতিদ্রুত সর্বোচ্চ ক্ষতিপূরণ নিশ্চিত করতে হবে এবং ক্ষতিপূরণের পরিমাণ এবং প্রদানের উপায় সুস্পষ্টভাবে উল্লেখ করতে হবে, ক্যাম্পাসের সর্বোচ্চ নিরাপত্তা নিশ্চিত করতে হবে, বুলবুলের স্মৃতি রক্ষার্থে বুলবুল হত্যার স্থানে স্মৃতিস্তম্ভ নির্মাণ এবং বুলবুল চত্বর ঘোষণা করতে হবে।

বুলবুল নিহত হওয়ার ঘটনায় বিশ্ববিদ্যালয়ের রেজিস্ট্রার মুহম্মদ ইশফাকুল ইসলাম বাদী হয়ে সিলেট মেট্রোপলিটন পুলিশের জালালাবাদ থানায় হত্যা মামলা দায়ের করেন। এতে হত্যার ঘটনায় জড়িত এমন সন্দেহভাজন ৩ জন বহিরাগতকে জিজ্ঞাসাবাদ করা হচ্ছে বলে জানান পুলিশের উপ-কমিশনার (মিড়িয়া) বি এম আশরাফ আলী তাহের। তিনি জানান, সাবির শিক্ষার্থীর ঘটনায় তিনজন ও ছাত্রকে প্রাথমিক জিজ্ঞাসাবাদের জন্য আনা হয়েছে, তাদের জিজ্ঞাসাবাদ চলছে। ক্যাম্পাসের আশেপাশে যারা মাদকাসক্ত, নেশাগ্রস্ত এবং অন্যান্য অপকর্মের সঙ্গে জড়িত আছে তাদেরকে আটক করার চেষ্টা চলছে।

জানা যায়, সোমবার (২৫ জুলাই) সন্ধ্যায় এক সহপাঠীর সঙ্গে বিশ্ববিদ্যালয়ের অভ্যন্তরে অবস্থিত গাজী কালুর টিলায় ঘুরতে যায় বুলবুল। পরে সেখানে অবস্থানকালীন ছিনতাইকারীর ছুরিকাঘাতে আহত হন তিনি। পরে তাকে উদ্ধার করে সিলেট এমএজি ওসমানী মেডিক্যাল হাসপাতালে নিলে চিকিৎসক মৃত ঘোষণা করেন।

প্রসঙ্গত, বুলবুল আহমেদ শাবিপ্রবির লোকপ্রশাসন বিভাগের তৃতীয় (২০১৮-১৯ সেশন) বর্ষের শিক্ষার্থী। তিনি বিশ্ববিদ্যালয়ের শাহপরাণ হলের ২১৮ নম্বর থাকতেন এবং ছাত্রলীগের রাজনীতির সঙ্গে জড়িত ছিলেন। তিনি নরসিংদী সদরের চিনিশপুরম থানার নন্দিপাড়ার বাসিন্দা মো. ওহাব মিয়ার ছেলে।

বাংলাদেশ সময়: ১৭৩০ ঘণ্টা, জুলাই ২৬, ২০২২
এএটি

বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম'র প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।
Alexa