ঢাকা, রবিবার, ১ বৈশাখ ১৪৩১, ১৪ এপ্রিল ২০২৪, ০৪ শাওয়াল ১৪৪৫

বিনোদন

নগরের গল্প নিয়ে আসছে ‘আন্তঃনগর’

প্রতিদিন সিএনজি চালাতে হয়েছে শ্যামলকে

বিনোদন ডেস্ক | বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম
আপডেট: ১৭৩১ ঘণ্টা, ফেব্রুয়ারি ৮, ২০২৩
প্রতিদিন সিএনজি চালাতে হয়েছে শ্যামলকে শ্যামল মওলা

‘প্রতিদিন সিএনজি চালাতে হয়েছে। সিএনজি চালাতে চালাতে হাতে ফোসকা পরে গেছে।

’ এমন কষ্টের কথাই জানালেন অভিনেতা শ্যামল মওলা। পর্দায় একজন অভিনয়শিল্পীকে যতোটা সহজে দেখা মেলে, সেই কাজটি ফুটিয়ে তুলতে যে কতোটা কষ্ট করতে হয় তারই জানান দিলেন তিনি।  

শিগগিরই শ্যামলকে দেখা যাবে ‘আন্তঃনগর’ নামের ওয়েব ফিল্মে। গৌতম কৈরী পরিচালিত এই সিনেমায় একজন সিএনজি চালকের ভূমিকায় অভিনয় করেছেন শ্যামল। আর চরিত্রটি পর্দায় যথার্থভাবে তুলে ধরতেই প্রতিদিন সিএনজি চালাতে হয়েছে তাকে।  

মূলত, নগরের ইট-পাথরে মিশে আছে কত বেদনা আর ভালোবাসার উষ্ণ গল্প। তেমনই হরেক রকম গল্প থেকে ছেঁকে নেওয়া কিছু গল্পের সমাহারে নির্মিত হয়েছে ‘আন্তঃনগর’।  

পরিচালক গৌতম কৈরী নৈপুণ্যের সঙ্গেই গল্প লেখা ও পরিচালনার কাজটি করেছেন। শ্যামল মাওলা, রুনা খান, সোহেল মন্ডল, শবনম ফারিয়া, আশীষ খন্দকার, প্রান্তর দস্তিদার, নিদ্রা নেহাসহ অনেককেই দেখা যাবে এই সিনেমায়।

এতে নিজের চরিত্রের প্রসঙ্গে শ্যামল বলেন, আন্তঃনগর-এ কাজ অভিনয় করাটা একটু কঠিন ছিল আমার জন্য। কেননা, প্রতিদিন সিএনজি চালাতে হয়েছে। সিএনজি চালাতে চালাতে হাতে ফোসকা পরে গেছে। সেই সঙ্গে অভিনয়; সব মিলিয়ে একটা মিশ্র পরিস্থিতি।

শ্যামলের বিপরীতে দেখা যাবে রুনা খানকে। তার বিষয়ে ও কাজটি নিয়ে শ্যামলের বক্তব্য এমন- সহশিল্পী হিসেবে রুনা আপুর সঙ্গে কাজ করতে ভালোলাগে। এই সিনেমার গল্প বলার থেকে দেখতে বেশি ভালো লাগবে। কারণ কাজটা বেশ মৌলিক।

কাজটি প্রসঙ্গে রুনা খান বলেন, সিনেমায় আমার সহশিল্পী ছিলেন শ্যামল ও জয় রাজদা। তারা দুজনেই গুণী অভিনেতা। প্রতিটি সিনেমার পরিচালক নিজের মতো করে তাদের গল্প দেখানোর চেষ্টা করেন। সেদিক থেকে আন্তঃনগরের বলার ধরণ এক ভিন্ন রকম ছিল। আশা করছি দর্শকরা এটা দারুণভাবে উপভোগ করতে পারবে।

পরিচালক গৌতম কৈরি বলেন, আমার প্রথম সিনেমা আন্তঃনগর। মিশ্র এক অনুভূতির মধ্য দিয়েই যেতে হয়েছে আমাদের। আন্তঃনগর-এ সকল অভিনয়শিল্পী নিজেদের সর্বোচ্চটুকু দিয়েই কাজটি করেছে। এখানে দুইজন নতুন অভিনয়শিল্পীর সঙ্গে দর্শক পরিচিত হবে। তাদের ডেডিকেশন লেভেলের প্রশংসা করতেই হবে।

সিনেমার গল্প নিয়ে জানতে চাইলে পরিচালক বলেন, এক শহর থেকে অন্য শহরে ভ্রমণ করাই তো আন্তঃনগর। আমরা প্রবেশ করেছি এক শহর থেকে অন্য শহরে, এক জীবন থেকে অন্য জীবনে। আন্তঃনগর অভিজ্ঞতা দর্শকদের নতুন কিছুর স্বাদ দেবে।

ইতোমধ্যে শুটিং শেষ হয়েছে সিনেমাটির। গৌরিপুর, মোহাম্মদপুর, পুরান ঢাকা থেকে শুরু করে বিভিন্ন স্থানে হয়েছে ‘আন্তঃনগর’-এর শুটিং হয়েছে। সিনেমাটি শিগগিরই একটি ওটিটি প্ল্যাটফর্মে মুক্তি পাবে।  

বাংলাদেশ সময়: ১৭৩১ ঘণ্টা, ফেব্রুয়ারি ০৮, ২০২৩
এনএটি 

বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম'র প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।