ঢাকা, বুধবার, ১৪ ফাল্গুন ১৪৩০, ২৮ ফেব্রুয়ারি ২০২৪, ১৭ শাবান ১৪৪৫

ফিচার

মস্কোতে বাংলাদেশি তরুণের প্রেজেন্টেশন

স্টাফ করেসপন্ডেন্ট | বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম
আপডেট: ১৫৩৯ ঘণ্টা, নভেম্বর ১৯, ২০২৩
মস্কোতে বাংলাদেশি তরুণের প্রেজেন্টেশন রাশিয়ার মস্কোতে হোসাইন মোহাম্মদ সাগরের প্রেজেন্টেশন

ঢাকা: বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কমের স্টাফ করেসপন্ডেন্ট হোসাইন মোহাম্মদ সাগর রাশিয়ার ‘নিউ জেনারেশন প্রোগ্রামে’ অংশগ্রহণের সুযোগে মস্কোতে একটি প্রেজেন্টেশন দিয়েছেন। নিউ জেনারেশন প্রোগ্রামটি কীভাবে আরও সুন্দর করা যায় এবং তরুণদের জন্য আরও আকর্ষণীয় করা যায়, সাগর ও তার দল সেই বিষয়গুলো তুলে ধরেন।

সাগরের সঙ্গে তার গ্রুপ মেম্বার হিসেবে প্রেজেন্টেশনে অংশ নেন বাংলাদেশের ইউনাইটেড নিউজ অব বাংলাদেশের (ইউএনবি) প্রতিনিধি শফিকুল ইসলাম, চ্যানেল টুয়েন্টিফোরের সংবাদকর্মী শরাবান তহুরা জিনিয়া, ভারতের ইতিহাস বিষয়ক পিএইচডি গবেষক রাজীব হরিনারায়ণ, চীনের জাদুঘর বিষয়ক গবেষক লিন ঝাঁও, সার্বিয়ার শিক্ষক প্রতিনিধি জোভানা স্টোকিচ, সার্বিয়ার সাইকোলজিস্ট আদিত সান্দোর ভেরেস এবং শিক্ষার্থী মানোভিটসাকিয়া ভ্যালেরিয়া। গ্রুপ মডারেটর হিসেবে কাজ করেন নিউ জেনারেশন প্রোগ্রামের কো-অর্ডিনেটর আনা সালনিকোভা।

প্রেজেন্টেশনে সাগর ও তার দল প্রোগ্রামটির সময়সীমা বাড়ানো; আরও বেশি অংশগ্রহণকারী ও আরও বেশি কর্মসূচি অন্তর্ভুক্ত করা; রাশিয়ার মস্কোর পাশাপাশি অন্যান্য বিভিন্ন শহর পরিদর্শন; রাশিয়ার সংস্কৃতি ও ইতিহাস সম্পর্কে শিক্ষাদান এবং রাশিয়ান কর্মকর্তাদের সঙ্গে মতবিনিময়ের সুযোগ আরও বৃদ্ধি করা; রাশিয়ান তরুণ নেতাদের সঙ্গে মতবিনিময়ের সুযোগ; রাশিয়ান সংস্কৃতির সঙ্গে পরিচিত হওয়ার জন্য বিভিন্ন কর্মসূচি, যেমন—রাশিয়ান নৃত্য, সংগীত, চলচ্চিত্র, সাহিত্য ইত্যাদি সম্পর্কে জানানোর ব্যবস্থা বৃদ্ধি; রাশিয়ার প্রেসিডেন্ট ভ্লাদিমির পুতিনের সঙ্গে সাক্ষাৎসহ বিভিন্ন বিষয় তুলে ধরেন।

এছাড়া গ্রুপ প্রেজেন্টেশনের পর সাগর সবার কাছে বাংলাদেশের কৃষি, জলবায়ু ও সাংবাদিকতা পরিস্থিতি নিয়ে আলোচনা করেন। তিনি বলেন, বাংলাদেশ একটি কৃষিপ্রধান দেশ। আমাদের দেশের মানুষের প্রধান জীবিকা কৃষি। কিন্তু জলবায়ু পরিবর্তনের প্রভাবে আমাদের দেশের কৃষিক্ষেত্রে নানা ধরনের সমস্যা দেখা দিয়েছে। আমরা এই সমস্যাগুলো সমাধানের জন্য বিভিন্ন উদ্যোগ গ্রহণ করছি।


সাগর ও তার দলের প্রেজেন্টেশন

সাংবাদিকতা নিয়ে হোসাইন মোহাম্মদ সাগর বলেন, বাংলাদেশের সাংবাদিকতা ক্রমশ এগিয়ে যাচ্ছে। স্বাধীনতার পর থেকেই বাংলাদেশের সাংবাদিকতা অনেক উন্নতি করেছে। বর্তমানে বাংলাদেশের সাংবাদিকরা বিশ্বদরবারে নিজেদের নাম উজ্জ্বল করছেন বিভিন্নভাবে। তারা বিভিন্ন আন্তর্জাতিক পুরস্কার ও স্বীকৃতি অর্জন করছেন। তারা বিভিন্ন গুরুত্বপূর্ণ বিষয়ে অনুসন্ধানী প্রতিবেদন প্রকাশ করছেন এবং নিজেদের কাজের মাধ্যমে সামাজিক ও রাজনৈতিক অঙ্গনে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করছেন।

সাগর তার প্রেজেন্টেশনে কৃষিবিষয়ক স্বেচ্ছাসেবী সংগঠন কৃষকের বাতিঘরের কার্যক্রমের কথাও তুলে ধরেন। তিনি বলেন, কৃষকের বাতিঘর একটি সামাজিক সংগঠন। আমরা আমাদের সংগঠনের মাধ্যমে কৃষিক্ষেত্রে প্রযুক্তিগত সহায়তা প্রদান করছি। পাশাপাশি, আমরা কৃষকদের বিভিন্ন প্রশিক্ষণ প্রদান করছি।

সাগরের প্রেজেন্টেশনে উপস্থিত রাশিয়ান কর্মকর্তারা এবং অংশগ্রহণকারী তরুণ নেতারা মুগ্ধ হন। তারা সাগরের কাজের প্রশংসা করেন।

সাগর বলেন, আমি আমার প্রেজেন্টেশনের মাধ্যমে রাশিয়ানদের বাংলাদেশের কৃষি-জলবায়ু ও সাংবাদিকতা সম্পর্কে জানতে সাহায্য করতে পেরেছি। আমি আশা করি, এটি বাংলাদেশ ও রাশিয়ার বন্ধুপ্রতিম সম্পর্কে গুরুত্বপূর্ণ ইতিবাচক ভূমিকা রাখবে।


মস্কোতে প্রেজেন্টেশেনর সময় বিশ্বের ১২টি দেশের তরুণ নেতারা

রাশিয়ার নিউ জেনারেশন প্রোগ্রামটি রাশিয়ার পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের অধীনে পরিচালিত একটি কর্মসূচি। এই কর্মসূচির মাধ্যমে বিশ্বের বিভিন্ন দেশের তরুণ নেতাদের রাশিয়ায় আমন্ত্রণ জানানো হয়। প্রোগ্রামটিতে অংশগ্রহণকারীরা রাশিয়ার বিভিন্ন শহর পরিদর্শন করেন এবং রাশিয়ার সংস্কৃতি, ইতিহাস ও অর্থনীতি সম্পর্কে জানতে পারেন।

প্রসঙ্গত, হোসাইন মোহাম্মদ সাগর ২০১৭ সাল থেকে বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কমে কর্মরত। ছোটবেলা থেকেই তিনি সৃজনশীল লেখালেখি এবং সামাজিক কাজের সঙ্গেও দারুণভাবে সম্পৃক্ত। এর আগে তিনি ২০২১ সালে ইস্পাহানি মির্জাপুর চা আয়োজিত গল্প লেখা প্রতিযোগিতায় বিজয়ী হন। ২০১৯ সালে রাজধানীর স্ট্যামফোর্ড ইউনিভার্সিটি থেকে সাংবাদিকতা বিভাগে স্নাতক সম্পন্ন করা সাগরের লেখা তার নিজের ভার্সিটির ক্লাসেই পড়ানো হয় তিনি শিক্ষার্থী থাকা অবস্থাতেই। সাগর সংবাদিকতায় ২০১১ এবং ২০১২ সালে অর্জন করেন ইউনিসেফের মীনা মিডিয়া অ্যাওয়ার্ড। ২০২২ সালেও তার রিপোর্ট মীনা মিডিয়া অ্যাওয়ার্ডের জন্য মনোনীত হয়। ‘কাঙাল হরনিাথ মজুমদার সম্মাননাও পেয়েছেন সাগর। তার সম্পাদনায় কুষ্টিয়া থেকে প্রকাশতি হয় সাহিত্যের কাগজ ‘তিথিয়া’। আর বর্তমানে দেশের কৃষি ও জলবায়ু বিষয়ক সংগঠনগুলোর মধ্যে অন্যতম সামাজিক সংগঠন ‘কৃষকের বাতিঘর’ এর উদ্যোক্তা এবং প্রতিষ্ঠাতা হোসাইন মোহাম্মদ সাগর। সংগঠনটি সম্প্রতি যুক্তরাষ্ট্রের ‘কমিউনিটি সলিউশন প্রোগ্রামে’ বিশ্বের ৯৫টি দেশের সাত হাজার ৮৯২টি সংগঠনের কার্যক্রমের মধ্যে প্রথম ৪০০তম স্থান পেয়েছে।

বাংলাদেশ সময়: ১৫৩০ ঘণ্টা, নভেম্বর ১৯, ২০২৩
এইচএমএস/এমজেএফ

বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম'র প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।