ঢাকা, বৃহস্পতিবার, ১৬ জ্যৈষ্ঠ ১৪৩১, ৩০ মে ২০২৪, ২১ জিলকদ ১৪৪৫

ফিচার

বহির্জগতের অদ্ভুত গ্রহাণু ভাসছে সৌরজগতে!

| বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম
আপডেট: ২০৫৭ ঘণ্টা, নভেম্বর ২১, ২০১৭
বহির্জগতের অদ্ভুত গ্রহাণু ভাসছে সৌরজগতে! সংগৃহীত ছবি

ঢাকা: বহির্জগত থেকে আগত একটি বৃহদাকার গ্রহাণু বর্তমানে ভেসে বেড়াচ্ছে সৌরজগতে। বিজ্ঞানীরা বলছেন এটি সৌরজগতে এখন পর্যন্ত পাওয়া সবচেয়ে বড় গ্রহাণু।

চুরুট আকৃতির গ্রহাণুটির নাম ঔমুয়ামুয়া। এর দৈর্ঘ্য প্রায় চারশো মিটার।

দৈর্ঘ্য দশ গুণ বড়। এমন অদ্ভুত আকৃতিই বিস্মিত করেছে বিজ্ঞানীদের। সৌরজগতে আবিষ্কৃত অন্য গ্রহাণুর আকৃতি সাধারণত উপবৃত্তাকার হয়। সুতরাং, এটি সৌরজগতের গ্রহাণুর আকৃতি সম্পর্কিত ধারণায় নতুন তথ্য জানাবে বলে মনে করছেন বিজ্ঞানীরা।

গ্রহাণুটির গতিবিধি পর্যবেক্ষণ করেন হাওয়াইয়ের ইনস্টিটিউট ফর অ্যাস্ট্রোনমির বিজ্ঞানী ক্যারেন মিচ। জানা যায়, গ্রহাণুটির জন্ম এই সৌরজগতে নয়। এর গতিবিধি বলছে লিরা নক্ষত্রপুঞ্জ থেকে গ্রহাণুটি সৌরজগতে প্রবেশ করেছে।  

সংগৃহীত ছবিবিজ্ঞানীদের ধারণা, কোটি কোটি বছর আগে গ্রহাণুটি নিজের কক্ষপথ থেকে বিচ্যুত হয়ে মিল্কিওয়ে ছায়াপথে ভেসে বেড়াচ্ছিল। আমাদের সৌরজগতের গ্রহগুলোর অভিকর্ষের প্রভাবে এর যাত্রাপথের পরিবর্তন ঘটে। ফলে প্রবেশ করে সৌরজগতে।

ক্যারেন মিচ বলেন, গ্রহাণুটির রং কিছুটা লালচে এবং এটি নিষ্ক্রিয়। এর উপরিতলে হালকা বালুর স্তর রয়েছে।

ইউনিভার্সিটি অব ক্যালিফোর্নিয়ার বিজ্ঞানী ডেভিড জেইট বলেন, এমন আকৃতির গ্রহাণু আমরা কেউ আশা করিনি। এর আবির্ভাব যে সৌরজগতের বাইরে থেকে তা আমরা নিশ্চিত।

গ্রহাণুটি প্রথম আবিষ্কার হয় গত মাসে হাওয়াইয়ে স্থাপিত প্যান-স্টারস টেলিস্কোপের সাহায্যে। এর গতিবিধি ও বৈশিষ্ট্য সম্পর্কিত গবেষণাপত্রটি প্রকাশিত হয় ২০ নভেম্বর বিজ্ঞানসাময়িকী ন্যাচারে।

বাংলাদেশ সময়: ০২৫৭ ঘণ্টা, নভেম্বর ২২, ২০১৭
এনএইচটি/এএ
 

বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম'র প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।