ঢাকা, শনিবার, ২৯ শ্রাবণ ১৪২৯, ১৩ আগস্ট ২০২২, ১৪ মহররম ১৪৪৪

ফুটবল

কান্নাভেজা চোখে রিয়ালকে বিদায় বললেন মার্সেলো

স্পোর্টস ডেস্ক | বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম
আপডেট: ২১৫৮ ঘণ্টা, জুন ১৩, ২০২২
কান্নাভেজা চোখে রিয়ালকে বিদায় বললেন মার্সেলো

দীর্ঘ ১৬ বছরের বন্ধন ছিন্ন করে রিয়াল মাদ্রিদ ছাড়লেন মার্সেলো। বিদায়বেলায় নিজেকে ক্লাবের কিংবদন্তিদের তালিকায় রেখে গেলেন তিনি।

তবে এত প্রাপ্তি সত্ত্বেও প্রিয় ক্লাব ছাড়ার সময় চোখের জল থামাতে পারলেন না ব্রাজিলিয়ান লেফট-ব্যাক।

ক্লাবের ইতিহাসের সবচেয়ে বেশি শিরোপাজয়ী মার্সেলোকে বিদায় জানাতে সংবাদ সম্মেলনের আয়োজন করেছিল রিয়াল মাদ্রিদ। সান্তিয়াগো বার্নাব্যু, যেখানে কেটেছে তার ক্যারিয়ারের অধিকাংশ সময়, সেখানে দাঁড়িয়েই বিদায় বললেন তিনি। লস ব্ল্যাঙ্কোসদের জার্সিতে সবচেয়ে বেশি শিরোপা জেতার রেকর্ডধারী (২৫) এই তারকার বিদায়ে কেঁদেছেন ক্লাবের আরেক কিংবদন্তি রাউল গঞ্জালেস থেকে শুরু করে বর্তমান কোচ কার্লো আনচেলত্তিও।  

গত মৌসুমের শেষদিকেই নিশ্চিত হয়ে গিয়েছিল মার্সেলোর বিদায়। রিয়ালের চ্যাম্পিয়নস লিগ শিরোপা উৎসবের রাতেই ইঙ্গিতটা দিয়ে রেখেছিলেন তিনি নিজেই। তার সঙ্গে চুক্তি নবায়নের আগ্রহ দেখায়নি রিয়াল। এ নিয়ে সতীর্থদের কাছে ক্ষোভ প্রকাশ করেছিলেন তিনি। তবে বিদায়বেলায় সেসব ভুলে রিয়ালকে 'বিশ্বের সেরা' ক্লাব হিসেবে অভিহিত করলেন সদ্য সাবেক অধিনায়ক। তিনি বলেন, 'আমি বিশ্বের সেরা ক্লাবের হয়ে খেলেছি। '

বিদায়ী ভাষণে মার্সেলো নিজের স্ত্রী ক্ল্যারিসের প্রতি কৃতজ্ঞতা প্রকাশ করেন। তিনি বলেন, 'আমি আমার স্ত্রী ক্ল্যারিসকে ধন্যবাদ জানাতে চাই, সে ছাড়া আমি এ পর্যন্ত আসতে পারতাম না। আমি আমার সন্তানদের কথাও বলবো, যারা তাদের বাবাকে বিশ্বের সেরা ক্লাবের হয়ে খেলতে দেখেছে। '

নিজের বক্তব্যে সাবেক রিয়াল অধিনায়ক রাউলের প্রশংসা করেন মার্সেলো। ২০০৬ সালে ব্রাজিলিয়ান তারকা যখন রিয়ালে যোগ দেন, রাউলের তখন ক্যারিয়ারের গোধুলিবেলা চলছে। কিন্তু তরুণ মার্সেলোর ওপর তার প্রভাব যে বেশ ভালোভাবেই পড়েছিল তা ওই বক্ত্যবেই স্পষ্ট, 'আমার অধিনায়ক ও আমার উদাহরণ হওয়ার জন্য রাউলকে ধন্যবাদ। আমি আগে কখনো বলিনি, কিন্তু তুমি আমার রোল মডেল। '

সাবেক সতীর্থের কাছ থেকে এমন আবেগী বক্তব্য শুনে রাউলও যেন কিছুটা নস্টালজিয়ায় ডুবে গেলেন। পুরো রুম তখন আবেগের রেশ টের পাচ্ছে। এরপরই মার্সেলো জানিয়ে দেন, 'এখানেই শেষ নয়। কারণ আমি রিয়াল মাদ্রিদ ছেড়ে যাচ্ছি বলে মনেই হচ্ছে না। ' এ পর্যায়ে কোচ আনচেলত্তিও কেঁদে ফেলেন। দুই দফায় শিষ্য হিসেবে মার্সেলোকে পেয়েছিলেন তিনি। ফলে তার আবেগী হওয়াটা স্বাভাবিকই।  

মার্সেলোর বক্তব্যের আগে রিয়াল প্রেসেডেন্ট ফ্লোরেন্তিনো পেরেজ বলেন, 'আজ আমাদের মহান অধিনায়ককে ধন্যবাদ জানাই, আমাদের অন্যতম কিংবদন্তি। রিয়াল মাদ্রিদের ইতিহাসে সবচেয়ে বেশি শিরোপাধারী খেলোয়াড়। ফুটবল এবং রিয়াল মাদ্রিদের ইতিহাসের অন্যতম সেরা লেফট ব্যাক। প্রিয় মারসেলো, ১৮ বছর বয়সে যখন এখানে আসো এরপর তোমার যত স্বপ্ন ছিল সব পূরণ করেছ। ২৫টি শিরোপা, ৫৬৪ ম্যাচ এবং ৩৮ গোল। রিয়াল মাদ্রিদ সর্বদা তোমার বাড়ি। '

মার্সেলো রিয়াল ছাড়লেও এখনই ফুটবল ছাড়ছেন না বলে জানিয়ে দিয়েছেন। ফ্রি ট্রান্সফারে যোগ দেবেন অন্য কোনো ক্লাবে। অবশ্য কোন ক্লাবে যাবেন সেটা এখনো চূড়ান্ত হয়নি।

বাংলাদেশ সময়: ২১৫৭ ঘণ্টা, জুন ১৩, ২০২২
এমএইচএম

বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম'র প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।
Alexa