ঢাকা, রবিবার, ২১ অগ্রহায়ণ ১৪২৮, ০৫ ডিসেম্বর ২০২১, ০০ জমাদিউল আউয়াল ১৪৪৩

শিল্প

এখনও সেই টাকা ফেরত পাননি এক-এগারোর নির্যাতিত ব্যবসায়ীরা

সিনিয়র করেসপন্ডেন্ট | বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম
আপডেট: ০৭০০ ঘণ্টা, মে ৭, ২০১৮
এখনও সেই টাকা ফেরত পাননি এক-এগারোর নির্যাতিত ব্যবসায়ীরা

ঢাকা: ওয়ান-ইলেভেনের সময় ব্যবসায়ীদের কাছ থেকে নেওয়া ১ হাজার ২৩২ কোটি টাকা গ্রহণকারী সেই সেনা কর্মকর্তাদের কারও বিচার হয়নি। সংশ্লিষ্টরা বলছেন, সরকারের উচিত ছিল অবৈধভাবে যে সব খলনায়ক অর্থ নিয়েছেন, তাদের বিচার করা। এটা না করায় ভবিষ্যতে যে কোনো সময় এ ধরনের ঘটনার পুনরাবৃত্তি ঘটতে পারে। 

সূত্রমতে, যেসব প্রতিষ্ঠান থেকে অর্থ নেওয়া হয়েছিল, তাদের অনেকগুলো আর্থিকভাবে হুমকির মুখে। কারণ ব্যাংক থেকে যে ঋণ নিয়েছিলেন, তার সুদ অনেক প্রতিষ্ঠানকে এখনো গুনতে হচ্ছে।

আবার পাবলিক লিমিটেড কোম্পানিগুলোতে শেয়ারহোল্ডাররা বঞ্চিত হয়েছেন তাদের মুনাফা থেকে, যার বিরূপ প্রভাব পড়েছে শেয়ারবাজারে। যদিও ২০১৭ সালের ১৬ মার্চ দেশের সর্বোচ্চ আদালত আপিল বিভাগের রায়ে তিন মাসের মধ্যে ব্যবসায়ীদের টাকা ফেরতের নির্দেশনা দেওয়া হয়েছে।  

সংশ্লিষ্ট সূত্র জানায়, ব্যাপক দমন-পীড়ন, গ্রেফতার ও নির্যাতনের মাধ্যমে মইনুদ্দিন-ফখরুদ্দীনের বিতর্কিত ওয়ান-ইলেভেনের অগণতান্ত্রিক তত্ত্বাবধায়ক সরকারের আমলে নেওয়া সেই ১ হাজার ২৩২ কোটি টাকা বিগত ১০ বছরেও ফেরত পাননি ব্যবসায়ী-শিল্পপতিরা। যদিও ওয়ান-ইলেভেনের সময় হয়রানির শিকার ব্যবসায়ীদের বিরুদ্ধে আজও কোনো অভিযোগ দুর্নীতি দমন কমিশনে (দুদক) প্রমাণিত হয়নি।  

বরং বারবার  প্রমাণিত হয়েছে, ব্যবসায়ীদের বিরুদ্ধে আনীত অভিযোগ ভুল ছিল। সেই সময় ব্যবসায়ীরা মিথ্যা প্রচারণার শিকার ছিলেন। শুধু হয়রানি ও অর্থ আদায় করতে মামলা করা হয় ব্যবসায়ীদের বিরুদ্ধে। ওই টাকা ফেরত না দিয়ে সরকার প্রতিশ্রুতির বরখেলাপ করেছে। ওই টাকা ফেরতে আদালতের রায়ের বাস্তবায়ন চায় ব্যবসায়ী-শিল্পপতিদের শীর্ষ সংগঠন বাংলাদেশ শিল্প ও বণিক সমিতি ফেডারেশন (এফবিসিসিআই)।

এ প্রসঙ্গে এফবিসিসিআইর সভাপতি শফিউল ইসলাম মহিউদ্দিন বলেন, ওয়ান-ইলেভেনের সময় ব্যবসায়ীদের কাছ থেকে অন্যায়ভাবে জুলুম করে নেওয়া টাকা ফেরত দিতে হবে। এ টাকা ফেরত দেওয়া উচিত। টাকা ফেরতে আদালতের রায়ে সবার আস্থা রাখা উচিত। ওয়ান-ইলেভেনের সময় যেসব কর্মকর্তা ব্যবসায়ীদের কাছ থেকে টাকা অন্যায়ভাবে নিয়েছেন, তার প্রতিকার হওয়া উচিত। ভুক্তভোগীদের প্রতিকার পাওয়ার সেই অধিকার আছে।  

ন্যায বিচার পাওয়ার অধিকার সবার আছে। বাংলাদেশ অর্থনীতি সমিতির সাধারণ সম্পাদক ড. জামাল উদ্দিন আহমেদ বলেন, ওয়ান-ইলেভেনের সরকার অন্যায়ভাবে আইন ও সংবিধানের পরিপন্থী প্রক্রিয়ায় টাকাগুলো ব্যবসায়ীদের কাছ থেকে নিয়েছে। ব্যবসায়ীদের ওই টাকা ফেরত দিয়ে সরকারের উচিত আদালতের নির্দেশনা মানা। একই সঙ্গে যারা টাকা নিয়েছে, তাদের বিচার হওয়া উচিত।

সংশ্লিষ্ট সূত্রের তথ্যমতে, জোরজবরদস্তি ও ভয় দেখিয়ে নেওয়া সেই ১ হাজার ২৩২ কোটি টাকা ফেরত দেওয়ার পক্ষে মত দিয়েছেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। আওয়ামী লীগের নেতৃত্বাধীন মহাজোট সরকার গত মেয়াদে দায়িত্ব গ্রহণের পর থেকে ওই টাকা ফেরত চেয়ে আসছেন সে সময়ের নির্যাতিত ব্যবসায়ীরা। এরপর দীর্ঘ ১০ বছরেও ওই টাকা ফেরত না পেয়ে হতাশ তারা।

ব্যবসায়ীরাও মনে করেন, অর্থ মন্ত্রণালয়ের উচিত হবে আপিল বিভাগের নির্দেশনা মোতাবেক টাকাগুলো প্রকৃত মালিকদের ফেরত দেওয়া। কিন্তু সরকার সেটা না করে সুপ্রিম কোর্টে আপিল করেছে। সর্বশেষ আপিল বিভাগও ব্যবসায়ীদের টাকা ফেরত দেওয়ার পক্ষে রায় দিয়েছে। তারা বলেন, দায়িত্ব গ্রহণের পর প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা নিজেও ওই টাকা ফেরত দেওয়ার পক্ষে মত দিয়েছিলেন।

জানা গেছে, ২০০৭ সালের এপ্রিল থেকে ২০০৮ সালের নভেম্বর পর্যন্ত একটি গোয়েন্দা সংস্থা এবং তৎকালীন টাস্কফোর্স ইন্টেলিজেন্টস (টিএফআই) কর্মকর্তারা প্রায় ৪০ ব্যক্তি ও প্রতিষ্ঠানের কাছ থেকে ১ হাজার ২৩২ কোটি টাকা আদায় করেন। এ টাকা দুই শতাধিক পে-অর্ডারের মাধ্যমে বাংলাদেশ ব্যাংকে সরকারের ০৯০০ নম্বর হিসাবে জমা হয়।

শুধু টাকা আদায়ই নয়, অনেক ব্যবসায়ী তখন জেলও খাটেন। আওয়ামী লীগের নেতৃত্বে মহাজোট সরকার গত মেয়াদে ক্ষমতায় আসার পর বিভিন্ন সময় মন্ত্রী-এমপিদের অনেকেই এভাবে অর্থ আদায়ের ওই ঘটনাকে অনৈতিক ও বেআইনি বলে মন্তব্য করেছিলেন। এর মধ্যে ৬১৫ কোটি ৫৫ লাখ টাকার বিষয়ে পৃথক ১১টি রিট হলে হাই কোর্ট তিন মাসের মধ্যে ওই টাকা ফেরত দেওয়ার নির্দেশ দেয়। বিভিন্ন সময়ে হাই কোর্টের দেওয়া এ রায়ের বিরুদ্ধে বাংলাদেশ ব্যাংক আপিল করে। এ আপিলের ওপর শুনানি শেষে ২০১৭ সালের ১৬ মার্চ রায় দেয় দেশের সর্বোচ্চ আদালত।  

বর্তমানে ওই টাকা কী অবস্থায় আছে—জানতে চাইলে নাম প্রকাশ না করার শর্তে বাংলাদেশ ব্যাংকের একজন শীর্ষ পর্যায়ের কর্মকর্তা বলেন, টাকাগুলো কীভাবে আছে তা সরকার জানে। তবে চলতি হিসাবে টাকাগুলো জমা হওয়ায় এ টাকার কোনো সুদ হয়নি। টাকাগুলো সরকার ফেরত দেওয়ার চিন্তা করতে পারে বলে মত দেন কেন্দ্রীয় ব্যাংকের একাধিক শীর্ষস্থানীয় কর্মকর্তা।  

সূত্র জানায়, ওয়ান-ইলেভেন সরকার ব্যবসায়ীদের জরিমানার নামে শুধু হয়রানিই করেনি, শারীরিক ও মানসিক নির্যাতনও করেছে। সেই নির্যাতনের বিচার ও জোর করে নেওয়া অর্থ ফেরত চান ভুক্তভোগীরা। ওয়ান-ইলেভেন সরকারের নির্যাতনের শিকার হয়েছিলেন দেশের অন্যতম জনশক্তি রপ্তানিকারক ও ইউনিক গ্রুপের ব্যবস্থাপনা পরিচালক নূর আলী।  

তার দাবি, মইনুদ্দিন-ফখরুদ্দীন সরকার অন্যায়ভাবে তার কাছ থেকে ৪০ কোটি ৫০ লাখ টাকা হাতিয়ে নিয়েছে। নূর আলীর ঘনিষ্ঠ একাধিক ব্যবসায়ী এই প্রতিবেদককে বিভিন্ন সময় বলেছেন, তিনি বন্দুকের নলের মুখ থেকে জীবন বাঁচাতে ওই সময় টাকা দিতে বাধ্য হয়েছেন। ওই সময় ব্যবসায়ীদের সঙ্গে সন্ত্রাসমূলক আচরণ করা হয়েছে। কালো কাপড়ে চোখ বেঁধে হুমকি দিয়ে টাকা নেওয়া হয়েছে।  

জানা গেছে, ওয়ান-ইলেভেন সরকার ২০০৭ সালের ১৯ এপ্রিল জেমস ফিনলের কাছ থেকে আদায় করে ১১৭ কোটি ৪১ লাখ টাকা। ওই টাকা ১৬টি পে-অর্ডারের মাধ্যমে বাংলাদেশ ব্যাংকে সরকারের কনসোলিটেড ফান্ডে প্রথম জমা দেওয়া হয়। এরপর ২২ এপ্রিল একই প্রতিষ্ঠানের নামে ১৫টি পে-অর্ডারের মাধ্যমে আরও ১২০ কোটি ২৪ লাখ টাকা বাংলাদেশ ব্যাংকে জমা হয়। একই প্রক্রিয়ায় পর্যায়ক্রমে দেড় বছর ধরে বিভিন্ন তারিখে বাংলাদেশ ব্যাংকে সরকারের সংশ্লিষ্ট হিসাবে টাকা জমা হয়েছে।  

ব্যক্তি বা প্রতিষ্ঠানের পরিচয় ছাড়াও ‘অজানা’ উল্লেখ করেও সেনাসমর্থিত সরকারের প্রভাবশালী একটি গোয়েন্দা সংস্থার কর্মকর্তারা চার দফায় প্রায় ৪৭ কোটি টাকা জমা দিয়েছেন। ২০০৭ সালের ১৯ জুন থেকে একই বছরের ২৭ নভেম্বর পর্যন্ত মিসেস পারভীন হক সিকদার বাধ্য হয়ে সিকদার গ্রুপের পরিচালক ও সদস্যদের পক্ষ থেকে ৯টি পে-অর্ডারের মাধ্যমে মোট ৪২ কোটি টাকা পরিশোধ করেন বলে জানা গেছে।

সাবেক তত্ত্বাবধায়ক সরকারের আমলে আরও যাদের কাছ থেকে টাকা আদায় করা হয়েছে, এমন ব্যক্তি ও প্রতিষ্ঠানগুলো হলো—যমুনা গ্রুপের চেয়ারম্যান নুরুল ইসলাম বাবুলের ৩০ কোটি, এমজিএইচ গ্রুপ ২৪ কোটি, বিএনপির সাবেক এমপি কাজী সালিমুল হক কামাল ২০ কোটি, কবির স্টিল সাত কোটি, ব্যবসায়ী নূর আলী ৪০ কোটি ৫০ লাখ, আমিন মোহাম্মদ ফাউন্ডেশন ৩২ কোটি ৫০ লাখ, সাগুফতা হাউজিং দুই কোটি ৫০ লাখ, হোসাফ গ্রুপ ১৫ কোটি, পারটেক্স গ্রুপ ১৫ কোটি, স্বদেশ প্রোপার্টিজ ৯ কোটি, ইসলাম গ্রুপ ৩৫ কোটি, কনকর্ড ইঞ্জিনিয়ারিং ৮ কোটি, ব্যবসায়ী রেজাউল করিম ১৭ কোটি, আবু সুফিয়ান ১৪ কোটি, শওকত আলী চৌধুরী ৬ কোটি, আশিয়ান সিটি ১ কোটি, পিংক সিটি ৬ কোটি ৪১ লাখ, বাংলাদেশ শিপব্রেকার্স অ্যাসোসিয়েশন ১৯ কোটি ৪৫ লাখ, সাবেক স্বরাষ্ট্র প্রতিমন্ত্রী লুত্ফুজ্জামান বাবর ১৫ কোটি, ওয়াকিল আহমেদ ১৬ কোটি, এবি ব্যাংক ফাউন্ডেশন ৩২ কোটি, বিএনপির সিনিয়র ভাইস চেয়ারম্যান তারেক রহমানের বন্ধু গিয়াসউদ্দিন আল মামুন ২০ কোটি ৪১ লাখ, এলিট পেইন্ট ২৫ কোটি ৪৪ লাখ, এবি ব্যাংক ১৯০ কোটি, কনকর্ড রিয়েল এস্টেট ৭ কোটি, জনৈক মালিক চার কোটি এবং ব্যবসায়ী আবদুল আউয়াল মিন্টু ২ কোটি ২০ লাখ টাকা।

ব্যবসায়ীদের ৬১৫ কোটি টাকা ফেরতে আপিল বিভাগের পূর্ণাঙ্গ রায়: 
সেনাসমর্থিত তত্ত্বাবধায়ক সরকারের আমলে বিভিন্ন প্রতিষ্ঠান ও ব্যক্তির কাছ থেকে নেওয়া ৬১৫ কোটি ৫৫ লাখ টাকা তিন মাসের মধ্যে ফেরত দিতে হাই কোর্টের রায় বহাল রেখে আপিল বিভাগের দেওয়া পূর্ণাঙ্গ রায় ২০১৭ সালের ১৫ মে প্রকাশিত হয়েছে সুপ্রিম কোর্টের নিজস্ব ওয়েবসাইটে।  

রায়ে দেশের সর্বোচ্চ আদালত বলেছে, রিট আবেদনকারীদের কাছ থেকে নেওয়া অর্থ ফেরত দিতে আইনগত কোনো বাধা নেই। ব্যবসায়ী ও বিভিন্ন ব্যক্তির কাছ থেকে জোর করে আদায় করা এসব অর্থ বাংলাদেশ ব্যাংকে জমা রাখা যেমন ঝুঁকিপূর্ণ, তেমনি ভয়ানক বিপদও।  

দেশ থেকে জরুরি অবস্থা প্রত্যাহারের পর বাংলাদেশ ব্যাংক ওই টাকা সংশ্লিষ্টদের ফেরত দিতে পারত। কিন্তু কী কারণে তা আটকে রেখেছে তা বোধগম্য নয়। ভবিষ্যৎ ট্যাক্স আদায়ের জন্য ওই টাকা রেখে দেওয়ার যুক্তি আমাদের অর্থনৈতিক আইনে সম্পূর্ণ অজানা।  

তৎকালীন প্রধান বিচারপতি সুরেন্দ্র কুমার সিনহার নেতৃত্বে আপিল বিভাগের চার বিচারপতির বেঞ্চের দেওয়া পূর্ণাঙ্গ রায়ে এ মন্তব্য করা হয়েছে। আপিল বিভাগ ২০১৭ সালের ১৬ মার্চ তিন মাসের মধ্যে টাকা ফেরত দিতে হাই কোর্টের রায়ের বিরুদ্ধে বাংলাদেশ ব্যাংকের করা আবেদন খারিজ করে দেয়। ৮৯ পৃষ্ঠার রায়টি লিখেছেন তৎকালীন প্রধান বিচারপতি নিজে।  

রায়ে আদালত বলেছেন, কোনো আইন ছাড়াই অবৈধভাবে জনগণের কাছ থেকে নেওয়া টাকা ফেরত দিতে আদালতের নির্দেশনা দেওয়ার এখতিয়ার রয়েছে। হাই কোর্ট যথাযথভাবেই টাকা ফেরতের নির্দেশ দিয়েছে। এ ছাড়া টাকা ফেরত দেওয়ার জন্য জাতীয় সংসদে আইন করার প্রয়োজন নেই। জোর করে আদায় করা এ টাকা ডিজিএফআইর এক কর্মকর্তা কেন্দ্রীয় ব্যাংকে জমা রাখার জন্য পাঠিয়েছেন।  

পরবর্তী সময়ে এ টাকা উদ্ধারের বৈধতা দিতে চেষ্টা করে, যা অত্যন্ত নিন্দনীয়। ওই রায়ে আরও বলা হয়েছে, ডিজিএফআই দেশের একটি স্বাধীন সংস্থা এবং নির্বাহী বিভাগ থেকে তাদের কর্মকাণ্ড সম্পূর্ণ আলাদা। নির্বাহী বিভাগের মতো তারা কাজ করতে পারে না। আবার বেআইনি কাজও তারা বৈধতা দিতে পারে না।  

রায়ে বলা হয়, কোন ক্ষমতাবলে এবং কীভাবে তারা টাকাগুলো উদ্ধার করে বা জোরপূর্বক নেয়, তা ব্যাখ্যা করার দায়িত্ব ছিল সরকারের। সরকার নীরব থেকেছে। বাংলাদেশ ব্যাংক এবং তার প্রধান নির্বাহী এ অনৈতিক ও অমানবিক কাজকে সমর্থন করেছেন।

বাংলাদেশ সময়: ১২৫১ ঘণ্টা, মে ০৭, ২০১৮
এমএ/

বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম'র প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।
Alexa