ঢাকা, বৃহস্পতিবার, ১৬ জ্যৈষ্ঠ ১৪৩১, ৩০ মে ২০২৪, ২১ জিলকদ ১৪৪৫

ইসলাম

বায়তুল মোকাররমে হাজারো মুসল্লি পেল বসুন্ধরার ইফতার

স্টাফ করেসপনডেন্ট | বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম
আপডেট: ২১৩০ ঘণ্টা, এপ্রিল ৯, ২০২৪
বায়তুল মোকাররমে হাজারো মুসল্লি পেল বসুন্ধরার ইফতার

ঢাকা: জাতীয় মসজিদ বায়তুল মোকাররমে প্রতিদিন তিন হাজার রোজাদারের ইফতারের ব্যবস্থা করেছে দেশের শীর্ষস্থানীয় শিল্পগোষ্ঠী বসুন্ধরা গ্রুপ। এ আয়োজন চলবে শেষ রোজা পর্যন্ত।

বসুন্ধরার এ আয়োজন নিয়ে খুশি মসজিদে আগত মুসল্লিরা।

বসুন্ধরা গ্রুপের ব্যবস্থাপনা পরিচালক (এমডি), বাংলাদেশ জুয়েলার্স অ্যাসোসিয়েশনের (বাজুস) প্রেসিডেন্ট ও বায়তুল মোকাররম জাতীয় মসজিদ মুসল্লি কমিটির প্রধান উপদেষ্টা সায়েম সোবহান আনভীরের পক্ষ থেকে প্রতিদিন এ ইফতার বিতরণ করা হচ্ছে।

জাতীয় মসজিদের মুসল্লি কমিটির সভাপতি হাজী ইয়াকুব আলী ও সাধারণ সম্পাদক মিজানুর রহমান মানিক উপস্থিত থেকে রোজাদারদের মধ্যে ইফতার বিতরণ করেন।

মঙ্গলবার (৯ এপ্রিল) বসুন্ধরার ইফতার পেয়েছেন মতিঝিলের দিলকুশা এলাকার একটি সরকারি ব্যাংকের নিরাপত্তাকর্মী মো. মানিক হোসেন। তিনি বাংলানিউজকে বলেন, আমি প্রায়ই বায়তুল মোকাররমে ইফতার করতে আসি। আমার এখানে ইফতার করতে ভালো লাগে। প্রায় তিন হাজার মানুষ এখানে ইফতার করেন। এত মানুষের সঙ্গে ইফতার করতে অনেক আনন্দ লাগে। বসুন্ধরা গ্রুপ এখানে ইফতারের আয়োজন করেছে, আল্লাহ তাদের ভালো করুক। আল্লাহ তাদের সব বিপদাপদ থেকে রক্ষা করুক।

মতিঝিল এলাকা থেকে এসেছেন প্রেস কর্মচারী মো. খালেক মিয়া। তিনি বলেন, আমি অফিসিয়াল কাজে এখানে এসেছি। ইফতারের কিছু সময় বাকি আছে, বাসায় যেতে চাইলে পথে আজান দিয়ে দেবে। এ কারণে মসজিদে ইফতার করা। একসঙ্গে এত মানুষের ইফতারের আয়োজন নিঃসন্দেহে প্রশংসনীয়।

বায়তুল মোকাররম জাতীয় মসজিদ মুসল্লি কমিটির সভাপতি হাজী মো. ইয়াকুব আলী বলেন, তৃতীয়বারের মতো রমজানে বসুন্ধরা গ্রুপের উদ্যোগে ইফতার বিতরণ করা হচ্ছে। প্রতিদিন তিন হাজার রোজাদারকে ইফতার করানো হচ্ছে। এর আগে, প্রথমবার এক হাজার, দ্বিতীয়বার দুই হাজার এবং এবার তিন হাজার মানুষকে ইফতার করানো হচ্ছে।

তিনি বলেন, বাংলাদেশের মানুষ ইফতারকে ইবাদতের অংশ হিসেবে গ্রহণ করেন। গরিব মানুষরাও ইফতার করা পছন্দ করেন। বায়তুল মোকাররমে রোজাদারদের ইফতারে কোনো প্রকার সমস্যা যেন না হয়, সেজন্য বসুন্ধরা গ্রুপের ব্যবস্থাপনা পরিচালক সায়েম সোবহান আনভীর সুন্দর এই ব্যবস্থাপনা করেছেন। দূর দূরান্ত থেকে সর্বস্তরের মানুষ এখানে ইফতার করতে আসেন। বসুন্ধরা গ্রুপের এই উদ্যোগকে স্বাগত জানাই। দেশে অনেক ধনী মানুষ আছেন। অনেকের টাকা আছে কিন্তু সবাই দ্বীনের কাজে টাকা ব্যবহার করেন না। বসুন্ধরা গ্রুপ প্রতিদিন সারা বাংলাদেশে প্রায় ২১ হাজার মানুষের ইফতারের ব্যবস্থা করছে। আল্লাহ তাদের মহতী কাজের সঙ্গে সম্পৃক্ত থাকার তৌফিক দান করুন।

বাংলাদেশ সময়: ২১২৮ ঘণ্টা, এপ্রিল ০৯, ২০২৪
এইচএমএস/এইচএ/

বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম'র প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।