ঢাকা, সোমবার, ১৯ আষাঢ় ১৪২৯, ০৪ জুলাই ২০২২, ০৪ জিলহজ ১৪৪৩

আইন ও আদালত

শিশুর হেফাজত: হাইকোর্টের সেই রায় ফ্যামিলি কোর্টে পাঠানোর নির্দেশ

স্পেশাল করেসপন্ডেন্ট | বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম
আপডেট: ২১২৪ ঘণ্টা, মে ২৫, ২০২২
শিশুর হেফাজত: হাইকোর্টের সেই রায় ফ্যামিলি কোর্টে পাঠানোর নির্দেশ

ঢাকা: শিশু সন্তানদের অভিভাবকত্ব ও হেফাজতের মামলাগুলো ছয় মাসের মধ্যে নিষ্পত্তিতে হাইকোর্টের রায় পারিবারিক আদালতে পাঠানোর নির্দেশ দিয়েছে সুপ্রিম কোর্ট প্রশাসন।

সম্প্রতি এ বিষয়ে সুপ্রিম কোর্টের হাইকোর্ট বিভাগের রেজিস্ট্রার জেলা জজদের প্রতি এ রায়ের নির্দেশনা পারিবারিক আদালতে পাঠাতে একটি স্মারক দিয়েছেন।

গত বছরের ৭ নভেম্বর রাজশাহী-রংপুরের এক দম্পতির সন্তানের হেফাজত নিয়ে করা এক রিট মামলায় রায় দেন বিচারপতি এম ইনায়েতুর রহিম ও বিচারপতি মো. মোস্তাফিজুর রহমানের হাইকোর্ট বেঞ্চ।

রায়ে বলা হয়, “...সাম্প্রতিক সময়ে হাইকোর্ট বিভাগের এই বেঞ্চে পিতা-মাতার বিবাহ বিচ্ছেদ, মনোমালিন্য, দাম্পত্য কলহ-সহ বিভিন্ন কারণে শিশুদের হেফাজত সম্পর্কে উল্লেখযোগ্য সংখ্যক হেবিয়াস কর্পাস মামলা পরিচালনা করতে হয়েছে এবং হচ্ছে। আদালত এ অভিজ্ঞতা অর্জন করেছে যে, পারিবারিক আদালতসমূহে শিশুদের অভিভাবকত্ব ও হেফাজত সম্পর্কে মামলাসমূহ দীর্ঘ সময় ধরে চলমান। আদালতের নজরে এসেছে যে, ২০১০ সাল, ২০১৪ সাল এবং ২০১৮ সালের দাখিলকৃত মামলাসমূহ এখনো বিচারাধীন। শিশুদের অভিভাবকত্ব ও হেফাজত সম্পর্কে মামলাগুলো এতো দীর্ঘ সময় ধরে চলমান থাকা দুঃখ ও হতাশাজনক এবং ন্যায়-নীতির পরিপন্থী। এসকল মামলাসমূহ দ্রুত নিষ্পত্তি হওয়া বাঞ্ছনীয়। এমতাবস্থায়, সংবিধানের অনুচ্ছেদ ১০৯ অনুযায়ী দেশের সকল পারিবারিক আদালতসমূহকে শিশু সন্তানদের অভিভাবকত্ব ও হেফাজত সম্পর্কিত মামলাসমূহ যাতে মামলা দায়েরের ৬ (ছয়) মাসের মধ্যে নিষ্পত্তি করা সম্ভব হয় সে বিষয়ে নির্দেশনা প্রদান করা হলো। ”

এ রায় উল্লেখ করে জেলা জজদের কাছে দেওয়া স্মারকে বলা হয়, পারিবারিক আদালতে শিশু সন্তানদের অভিভাবকত্ব ও হেফাজত সম্পর্কিত মামলাসমূহ নিষ্পত্তি সংক্রান্তে হাইকোর্ট বিভাগের নির্দেশনা প্রতিপালনের জন্য উল্লিখিত রায় ও আদেশের কপি সংশ্লিষ্ট পারিবারিক আদালতের নিকট পাঠাতে নির্দেশ দেয়া হলো।

রিটের পূর্বাপর
২০১১ সালে রংপুরের মেয়ে ও রাজশাহীর এক ছেলে বিয়ে করেন। পরে ২০১৫ সালে তাদের ঘরে কন্যাশিশুর জন্ম হয়। পারিবারিক দ্বন্দ্বের কারণে ২০১৮ সালে তাদের বিবাহ বিচ্ছেদ হয়। এর মধ্যে শিশুটির মা পারিবারিক আদালতে একটি মামলা করেন।

কিন্তু শিশুটি তার বাবার কাছে ছিল। আর শিশুটিকে ফিরে পেতে ২০২১ সালে  হাইকোর্টে রিট করেন মা। তখন প্রাথমিক শুনানি নিয়ে হাইকোর্ট শিশুটিকে হাজিরে রুলসহ আদেশ দেন। ওই রুলের শুনানি শেষে আদালত রায় দেন।

উচ্চ আদালত রায়ে বলেন, হেবিয়াস কর্পাস রিট মোকদ্দমায় শিশুর অভিভাবকত্ব নির্ধারণের সুযোগ নেই, সংশ্লিষ্ট পারিবারিক আদালতেই তা নির্ধারিত হবে।

বাংলাদেশ সময়: ২১২৩ ঘণ্টা, মে ২৫, ২০২২
ইএস/এমজেএফ

বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম'র প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।
Alexa