ঢাকা, শুক্রবার, ৯ জ্যৈষ্ঠ ১৪৩১, ২৪ মে ২০২৪, ১৫ জিলকদ ১৪৪৫

জাতীয়

সব ষড়যন্ত্র মোকাবিলা করে বাংলাদেশ উন্নত হবে: চিফ হুইপ

ডিস্ট্রিক্ট করেসপন্ডেন্ট  | বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম
আপডেট: ২০১৭ ঘণ্টা, এপ্রিল ১৩, ২০২৪
সব ষড়যন্ত্র মোকাবিলা করে বাংলাদেশ উন্নত হবে: চিফ হুইপ

মাদারীপুর: সব ষড়যন্ত্র মোকাবিলা করে বাংলাদেশ উন্নত দেশে পরিণত হবে বলে মন্তব্য করেছেন জাতীয় সংসদের চিফ হুইপ নূর-ই-আলম চৌধুরী।

শনিবার (১৩ এপ্রিল) বিকেলে মাদারীপুর জেলার শিবচরের সূর্যনগরে বীর মুক্তিযোদ্ধা ইলিয়াস আহমেদ চৌধুরী তোরণ উদ্বোধন অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথির বক্তব্য তিনি এ মন্তব্য করেন।

নূর-ই-আলম চৌধুরী বলেন, প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা ছাড়া বাংলাদেশে কোনো বিকল্প নেই। সব ষড়যন্ত্র মোকাবিলা করে বাংলাদেশ উন্নত দেশে পরিণত হবে এবং শিবচরের মাটিকে আমরা সোনার মাটিতে রূপান্তর করবো। দেশের মধ্যে সর্বপ্রথম যে থানাগুলো উন্নত হবে, তার মধ্যে শিবচর থাকবে!
 
তিনি আরও বলেন, আজ থেকে ৫০ বছর আগে এই এলাকা এরকম ছিল না। এখান থেকে যে একটা বিশ্বরোড যাবে, এত সুন্দর একটা রাস্তা যাবে, এটা আমরা ভাবতে পারিনি। আমাদের পিতা মরহুম ইলিয়াস আহমেদ চৌধুরী ১৯৭৪ সালেই ঢাকা-খুলনা মহাসড়কের প্রস্তাব বঙ্গবন্ধুর কাছে দিয়েছিলেন। বঙ্গবন্ধু ১৯৭৪ সালের বাজেটেই এই রাস্তার জন্য বরাদ্দ দিয়েছিলেন। জাতির পিতা যদি বেঁচে থাকতেন, তবে অনেক আগেই আমাদের স্বপ্নের রাস্তা বাস্তবায়ন হতো।  

‘বঙ্গবন্ধু কন্যা শেখ হাসিনা ক্ষমতায় আসার কারণে, আপনারা তাকে বারবার ক্ষমতায় বসানোর কারণে আমরা শুধু রাস্তাই নয়, পদ্মাসেতু পেয়েছি। রেল সড়ক পেয়েছি, রেল স্টেশন পেয়েছি। আজ শিবচরের মানুষ সড়কপথে এবং রেলপথে আসা-যাওয়া করতে পারছে’, যোগ করেন তিনি।

চিফ হুইপ আরও বলেন, শিবচরকে আমরা আরও উন্নত করবো। শিবচরের ছেলেমেয়েদের যেন বিদেশে গিয়ে লেখাপড়া করতে না হয়, বিদেশে গিয়ে চিকিৎসা করতে না হয়। বিভিন্ন এলাকার মানুষ যেন শিবচরে আসে।

এসময় জেলা পরিষদের চেয়ারম্যান মুনির চৌধুরী, শিবচর উপজেলা চেয়ারম্যান আব্দুল লতিফ মোল্লা, পৌর মেয়র আওলাদ হোসেন খান, উপজেলা ভাইস চেয়ারম্যার আতাউর রহমান আতাহার বেপারী, উপজেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ডা. মো. সেলিম, উপজেলা যুবলীগের সভাপতি মো. ইলিয়াস পাশাসহ স্থানীয় নেতারা উপস্থিত ছিলেন।

সূর্যনগর-উৎরাইল আঞ্চলিক সড়কের প্রবেশপথে মাদারীপুর জেলা পরিষদের অর্থায়নে এক কোটি পাঁচ লাখ টাকা ব্যয়ে একটি তোরণ নির্মাণ করা হয়। ৭৬ ফিট লম্বা, ৩৫ ফিট উঁচু এবং ৯ ফিট প্রস্থের এই তোরণটির নামকরণ করা হয় মুক্তিযুদ্ধের অন্যতম সংগঠক, স্বাধীনতা পুরস্কার প্রাপ্ত বীর মুক্তিযোদ্ধা ইলিয়াস আহমেদ চৌধুরীর (দাদা ভাই) নামে।  

বাংলাদেশ সময়: ২০১৫ ঘণ্টা, এপ্রিল ১৩, ২০২৪
এইচএ/

বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম'র প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।