ঢাকা, শুক্রবার, ২২ আশ্বিন ১৪২৯, ০৭ অক্টোবর ২০২২, ১০ রবিউল আউয়াল ১৪৪৪

জাতীয়

বশেফমুবিপ্রবিতে জাতীয় শোক দিবস পালন

ডিস্ট্রিক্ট করেসপন্ডেন্ট | বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম
আপডেট: ১৯৫১ ঘণ্টা, আগস্ট ১৫, ২০২২
বশেফমুবিপ্রবিতে জাতীয় শোক দিবস পালন

জামালপুর: জামালপুরে অবস্থিত বঙ্গমাতা শেখ ফজিলাতন্নেছা মুজিব বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ে (বশেফমুবিপ্রবি) যথাযোগ্য মর্যাদায় সর্বকালের সর্বশ্রেষ্ঠ বাঙালি ও জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের ৪৭তম শাহাদাত বার্ষিকী এবং জাতীয় শোক দিবস পালিত হয়েছে।

সোমবার (১৫ আগস্ট) সকালে বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রশাসনিক ভবনের সামনে জাতীয় পতাকা অর্ধনমিত করার মধ্যে দিয়ে শোক দিবসের আনুষ্ঠানিকতা শুরু হয়।

জাতীয় সঙ্গীত পরিবেশনের সঙ্গে জাতীয় পতাকা অর্ধনমিত করেন বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য প্রফেসর ড. সৈয়দ সামসুদ্দিন আহমেদ।

এছাড়া ট্রেজারার মোহাম্মদ আবদুল মাননান বিশ্ববিদ্যালয়ের পতাকা এবং বিজ্ঞান অনুষদের ডিন প্রফেসর ড. সুশান্ত কুমার ভট্টাচার্য কালো পতাকা উত্তোলন করেন। পরে জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান এবং বঙ্গমাতা শেখ ফজিলাতুন্নেছা মুজিবের প্রতিকৃতিতে ফুলেল শ্রদ্ধা নিবেদন করা হয়।

এ সময় ট্রেজারার মোহাম্মদ আবদুল মাননান, বিজ্ঞান অনুষদের ডিন প্রফেসর ড. সুশান্ত কুমার ভট্টাচার্য, অর্থ ও হিসাব বিভাগের পরিচালক খান মো. অলিয়ার রহমান, পরীক্ষা নিয়ন্ত্রক প্রফেসর এসএমএ হুরাইরা, পরিকল্পনা ও উন্নয়ন বিভাগের পরিচালক এবং প্রকল্প পরিচালক কর্নেল (অব.) কাজী শরীফ উদ্দিন, বিভিন্ন বিভাগের চেয়ারম্যানসহ শিক্ষকরা উপস্থিত ছিলেন।

শ্রদ্ধা নিবেদন শেষে জাতীয় শোক দিবস উপলক্ষে এক আলোচনা সভার আয়োজন করা হয়। সভায় প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন উপাচার্য প্রফেসর ড. সৈয়দ সামসুদ্দিন আহমেদ।

বক্তব্যের শুরুতে সর্বকালের সর্বশ্রেষ্ঠ বাঙালি বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের প্রতি গভীর শ্রদ্ধা প্রদর্শন করে তিনি বলেন, বঙ্গবন্ধু বাঙালির মুক্তির স্বপ্নদ্রষ্টা ও স্বাধীনতার রূপকার। এই অবিসংবাদিত মহাপুরুষের দূরদর্শী, অকুতোভয় ও বলিষ্ঠ নেতৃত্বে সমগ্র বাঙালি জাতি ঐক্যবদ্ধ হয়ে মহান স্বাধীনতা সংগ্রামে ও মুক্তিযুদ্ধে ঝাঁপিয়ে পড়ে। তাঁর নেতৃত্বে আমরা পেয়েছি স্বাধীন দেশ এবং স্বাধীন জাতির মর্যাদা।

উপাচার্য প্রফেসর ড. সৈয়দ সামসুদ্দিন আহমেদ বলেন, জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান স্বাধীনতার পরপরই দূরদর্শী শিক্ষা নীতি প্রণয়ন করেন। উচ্চশিক্ষার পথ সুগমে নানা উদ্যোগ নেন। এরই ফলশ্রুতিতে বাংলাদেশে উচ্চশিক্ষা প্রসার লাভ করেছে।

জাতীয় শোক দিবস উপলক্ষে রাজধানীর ধানমণ্ডির ৩২ এ জাতির পিতার প্রতিকৃতিতে শ্রদ্ধাঞ্জলি নিবেদন করেন রেজিস্ট্রার সৈয়দ ফারুক হোসেনসহ কর্মকর্তা-কর্মচারীরা।

এদিকে জাতীয় শোক দিবসে জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান, বঙ্গমাতা শেখ ফজিলাতুন্নেছা মুজিবসহ ১৫ আগস্টে নির্মম হত্যাকাণ্ডে শহিদদের স্মরণে কর্মকর্তা-কর্মচারীদের উদ্যোগে বিশেষ দোয়া-মিলাদ মাহফিল ও দুস্থ-এতিম শিশুদের মধ্যে খাদ্য বিতরণ করা হয়।  

জাতীয় শোক দিবস উপলক্ষে বিশ্ববিদ্যালয়ের বঙ্গবন্ধু কর্নারের উদ্যোগে দিনভর স্বাধীন বাংলাদেশের প্রতিষ্ঠাতা ও জাতির পিতার সংগ্রাম আর জীবন-কর্ম নিয়ে ভিডিও তথ্যচিত্র প্রদর্শন করা হয়। প্রচার করা হয় জাতির পিতার কালজয়ী ৭ মার্চের ভাষণ।

বাংলাদেশ সময়: ১৯৫১ ঘণ্টা, আগস্ট ১৫, ২০২২
কেএআর

বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম'র প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।
Alexa