ঢাকা, বুধবার, ১৪ জ্যৈষ্ঠ ১৪৩১, ২৯ মে ২০২৪, ২০ জিলকদ ১৪৪৫

রাজনীতি

বিএনপি নেতারা কেন তাদের স্ত্রীদের ভারতীয় শাড়ি পোড়াচ্ছে না: শেখ হাসিনা

স্পেশাল করেসপন্ডেন্ট | বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম
আপডেট: ১৪৫৭ ঘণ্টা, মার্চ ২৭, ২০২৪
বিএনপি নেতারা কেন তাদের স্ত্রীদের ভারতীয় শাড়ি পোড়াচ্ছে না: শেখ হাসিনা

ঢাকা: বিএনপি নেতারা সত্যিকারে ভারতীয় পণ্য বর্জন করছেন কি না জানতে চেয়ে আওয়ামী লীগ সভাপতি প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বলেছেন, বিএনপি নেতারা তাদের বউদের কাছ থেকে কেন (ভারতীয়) শাড়িগুলো এনে পুড়িয়ে দিচ্ছেন না।

বুধবার (২৭ মার্চ) রাজধানীর তেজগাঁওয়ে ঢাকা জেলা আওয়ামী লীগ কার্যালয়ে মহান স্বাধীনতা ও জাতীয় দিবস উপলক্ষে দলটির আলোচনা সভায় তিনি এ কথা বলেন।

প্রধানমন্ত্রী বলেন, বিএনপির এক নেতা চাদর খুলে আগুন দিচ্ছেন যে ভারতীয় পণ্য ব্যবহার করবেন না। এরপর আবার দেখা গেলে কিছু চাদর কিনে এনে পোড়ানো হলো। আচ্ছা শীতকাল তো চলে গেছে এখন আর চাদর পোড়ালে কী এসে যায়?

শেখ হাসিনা বলেন, আমার প্রশ্ন যে নেতারা বলছেন ভারতীয় পণ্য বর্জন করছেন, তাদের বউদের কয়খানা ভারতীয় শাড়ি আছে। তাহলে বউদের কাছ থেকে কেন শাড়িগুলো এনে পুড়িয়ে দিচ্ছেন না। আপনারা সবাই একটু বিএনপি নেতাদের এ কথাটা জিজ্ঞেস করেন।

আওয়ামী লীগ প্রধান বলেন, বিএনপি নেতাদের বলব, যারা যারা ভারতীয় পণ্য বর্জন করবেন সবাই বাড়িতে গিয়ে তাদের বউরা যেন কোনো মতে কোনো ভারতীয় শাড়ি না পরেন; আলমারিতে যে কয়টা শাড়ি আছে সব এনে যেদিন ওই অফিসের সামনে পোড়াবেন, সেদিন বিশ্বাস করবো আপনারা সত্যিকারে ভারতীয় পণ্য বর্জন করলেন।

বিএনপি নেতারা কি ভারতীয় মসলা ব্যবহার বন্ধ করতে পারবেন, এমন প্রশ্ন রেখে প্রধানমন্ত্রী বলেন, আমাদের দেশে গরম মসলা, পেঁয়াজ; ভারত থেকে আমরা পেঁয়াজ আমদানি করছি, রসুন-আদা, মিজোরাম থেকে আমরা আদা আনি, মসলাপাতি, আদা; ভারত থেকে যা কিছু আসছে তাদের কারও রান্না ঘরে যেন এ ভারতীয় মসলা দেখা না যায় । তাদের মসলা ছাড়া রান্না করে খেতে হবে। এটা তারা খেতে পারবেন কি না সেই জবাবটা তাদের দিতে হবে।

বিএনপি নেতাদের সমালোচনা করে শেখ হাসিনা বলেন, আপনারা রং-ঢং করতে ওস্তাদ, এটা আমরা আগেও দেখেছি। বাস্তব কথা হলো আপনারা সত্যিকারের পণ্যগুলো বর্জন করছে কি না সেটাই আমরা জানতে চাই।
 
তিনি আরও বলেন, বিএনপি নেতাদের পেলে তাদের বউদের শাড়ির কথা আর মসলার কথা বলবেন।

বাংলাদেশ সময়: ১৪৫৪ ঘণ্টা, মার্চ ২৭, ২০২৪
এমইউএম/এইচএ/

বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম'র প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।