ঢাকা, শনিবার, ১০ জ্যৈষ্ঠ ১৪৩১, ২৫ মে ২০২৪, ১৬ জিলকদ ১৪৪৫

বিদ্যুৎ ও জ্বালানি

পানগাঁওয়ে ৩শ’ মেগা. বিদ্যুৎ কেন্দ্র করছে যুক্তরাষ্ট্র

| বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম
আপডেট: ০৯১৭ ঘণ্টা, নভেম্বর ২৩, ২০১৭
পানগাঁওয়ে ৩শ’ মেগা. বিদ্যুৎ কেন্দ্র করছে যুক্তরাষ্ট্র বক্তব্য রাখছেন নৌপরিবহন মন্ত্রী শাজাহান খান। তার ডান পাশে মার্কিন রাষ্ট্রদূত মার্শিয়া বার্নিকাট। ছবি: বাংলানিউজ

ঢাকা: ঢাকা জেলার কেরানীগঞ্জের পানগাঁওয়ে ২৪ একর জমির ওপর একটি ভ্রাম্যমাণ বিদ্যুৎ কেন্দ্র নির্মাণ করবে যুক্তরাষ্ট্র। এজন্য সরকার থেকে জমি লিজ (বরাদ্ধ) নিয়েছে দেশটি।

পানগাঁও কন্টেইনার বন্দরের পাশে নৌ মন্ত্রণালয় যুক্তরাষ্ট্রের এপিআর এনার্জি নামক কোম্পানিকে ৫ বছরের জন্য এ জমি ইজারা দিয়েছে। যদিও কোম্পানিটি ৭২ মাসের জন্য জমি চেয়েছিল।

এই জমিতে ৫০০টি কন্টেইনারের মাধ্যমে ৩০০ মেগাওয়াট বিদ্যুৎ উৎপন্ন করে তারা জাতীয় গ্রিডে সরবরাহ করবে।

বৃহস্পতিবার (২৩ নভেম্বর) দুপুরে সচিবালয়ে নৌপরিবহন মন্ত্রী শাজাহান খানের সঙ্গে বৈঠক করেন বাংলাদেশে নিযুক্ত মার্কিন রাষ্ট্রদূত মার্শিয়া বার্নিকাট। বৈঠক শেষে শাজাহান খান এ তথ্য জানান।

তিনি বলেন, ৩০০ মেগাওয়াট একটি মোবাইল বিদ্যুৎ কেন্দ্রের জন্য তারা (যুক্তরাষ্ট্র) আমাদের কাছে পানগাঁওয়ে জায়গা চেয়েছে। ৫ বছর পরে এটা অন্য জায়গায় নিয়ে যাবে তারা। পানগাঁও অভ্যন্তরীণ কন্টেইনার টার্মিনালের পাশে একটি জায়গা অব্যবহৃত আছে। তাদেরকে বিদ্যুৎ কেন্দ্র নির্মাণের জন্য আমরা জায়গাটা দিয়েছি।

ঐ বিদ্যুৎ কেন্দ্রে উৎপাদিত বিদ্যুৎ জাতীয় গ্রিডে যোগ হবে বলে জানান শাজাহান খান।

এদিকে, চট্রগ্রাম বন্দরের নিরাপত্তা বাড়ানোর প্রস্তাব দিয়েছে যুক্তরাষ্ট্র। শাজাহান খান বলেন, চট্রগ্রাম বন্দরের সকল কর্মকাণ্ড, বিশেষ করে নিরাপত্তার বিষয়ে তারা সন্তুষ্ট হয়েছে। তবে নিরাপত্তা বৃদ্ধির বিষয়ে তারা কিছু প্রস্তাব দিয়েছে, আমরা সেটা দেখবো।

রোহিঙ্গা ইস্যুতে বাংলাদেশের পাশে থাকায় যুক্তরাষ্ট্রকে ধন্যবাদ জানিয়ে মন্ত্রী বলেন, আশা করছি ভবিষ্যতেও তারা আমাদের পাশে থাকবে।

এসময় মার্শিয়া বার্নিকাট বলেন, চট্টগ্রাম বন্দরের সক্ষমতা ও নিরাপত্তা ইস্যুতে আমরা কথা বলেছি। আমরা এ বন্দরকে গুরুত্ব দেই। কেননা, বন্দর একটি রাষ্ট্রের প্রধান অর্থনৈতিক শক্তি। এ কারণে জঙ্গি কার্যক্রমসহ সবার প্রধান টার্গেট হতে পারে বন্দর। এজন্য বন্দরের নিরাপত্তা নিশ্চিতের জন্য আমরা বলেছি।

বাংলাদেশ সময়: ১৫১০ ঘণ্টা, নভেম্বর ২৩, ২০১৭
জেডএম/

বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম'র প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।